মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তার সংকটে চিকিৎসা সেবা ব্যাহত

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তার সংকটের কারণে চিকিৎসা সেবা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। মাত্র ৫/৬ জন ডাক্তার দিয়ে প্রতিদিন কয়েকশ’ রোগীকে চিকিৎসা দিতে না পেরে চাপ এড়াতে সিরিয়াস রোগীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া মানসিক ভারসাম্যহীন এক ডাক্তার দিয়ে জরুরি বিভাগ পরিচালনা করায় প্রায়ই রোগীদের সঙ্গে ঝগড়ার সৃষ্টি হচ্ছে। ৮ জন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পদ শূন্য থাকা ও ব্যবস্থাপনা দূর্বল হওয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে দীর্ঘদিন ধরে সিভিল সার্জন পদটি শূণ্য থাকায় সঠিকভাবে হাসপাতালের তদারকি হচ্ছে না। তাছাড়া ৬ বছর আগে ৫০ শয্যা থেকে হাসপাতালটি ১০০ শয্যায় উন্নীত করা হলেও লোকবল বা চিকিৎসা সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়নি। অপরিষ্কার ও অপরিচ্ছন্নতা হাসপাতালের নিত্যদিনের সঙ্গী। তাছাড়া দালালদের কাছে জিম্মি হয়ে আছে অসহায় রোগীরা।

অন্যদিকে হাসপাতালে ২২ জন ডাক্তার থাকার কথা থাকলেও গড়ে ৭ থেকে ৮ জনের বেশি ডাক্তার থাকে না। এর মধ্যে ৯ বছর ধরে মেডিসিন কনসালটেন্ট, দেড় বছর ধরে নাক-কান-গলার কনসালটেন্ট, ৬ মাস ধরে হাড় বিশেষজ্ঞ, ৩ মাস ধরে সার্জারি কনসালটেন্ট, ৮ মাস ধরে দন্ত চিকিৎসক, ৬ মাস ধরে রেডিওলজিস্ট ও ১ সপ্তা আগে চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পদটি শূন্য রয়েছে। এসব বিভাগের ডাক্তাররা বদলি হয়ে চলে গেলেও তাদের পরিবর্তে নতুন কোনো ডাক্তার যোগদান করেননি। এসব সমস্যা দেখার দায়িত্ব যে ব্যক্তির ওপর ন্যস্ত, সেই সিভিল সার্জনের পদটিও ৪ মাস ধরে শূন্য রয়েছে। সদর টিএইচও ডা. মো. শাহজাহান ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সূত্র জানায়, হাসপাতালে ২/১ জন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পোস্টিং হলেও তারা ঢাকা কিংবা বিভাগীয় শহরে বদলি হতে ব্যস্ত থাকেন। এ কারণে প্রায়ই ডাক্তাররা অনুপস্থিত থাকেন। শুধু আবাসিক মেডিকেল অফিসার ছাড়া কোনো ডাক্তার মুন্সীগঞ্জে থাকেন না। এরমধ্যে ডাক্তাররা বিলম্বে কর্মস্থলে পৌঁছায়। ফলে প্রতিদিন দূরদূরান্ত থেকে আসা অসংখ্য রোগী চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে বাড়ি ফিরে যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩শ’ রোগী চিকিৎসা নিতে বহির্বিভাগের শরণাপন্ন হয়। এতো রোগীর চিকিৎসা মাত্র ২/৩ জন ডাক্তার দিয়ে দিতে হিমশিম খেতে হয়। ডাক্তার স্বল্পতার কারণে বেশির ভাগ সময়ে স্বাস্থ্য সহকারীরা রোগীদের ব্যবস্থাপত্র দিয়ে থাকেন। এছাড়াও হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগীরা নানাভাবে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ডে শতাধিক বিছানা থাকলেও এরমধ্যে ৪০টি ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. এহসানুল করিম জানান, ডাক্তার স্বল্পতার কারণে চিকিৎসা সেবা মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। তবে এ সঙ্কট শিগগিরই কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

[ad#bottom]

Leave a Reply