পদ্মা সেতুর ভূমি অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসনের নামে হরিলুট

পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণ ও ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন কার্যক্রম আর্থিক অনিয়ম ও দুর্নীতির বেড়াজালে জড়িয়ে পড়েছে। সরকারি অর্থ হাতিয়ে নিতে ‘ভুয়া’ ক্ষতিগ্রস্ত সেজে কোটি কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ আদায় করছে একটি সংঘবদ্ধ অসাধু চক্র। অন্যদিকে প্রকৃত মালিক হয়েও মোটা অঙ্কের ঘুষের বিনিময়ে ক্ষতিপূরণ নিতে হচ্ছে অনেককে। এমন হাজারো অভিযোগ স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্তদের।

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, দক্ষিণাঞ্চলের কোটি কোটি মানুষের বহুদিনের স্বপ্ন পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেলার মাওয়া ও অন্যদিকে শিবচর উপজেলার জাজিরা পাড়ের ১ হাজার ১০০ হেক্টর ভূমি অধিগ্রহণ করা হয়। এ সংক্রান্ত এক হিসাবে বলা হয়, এসব অঞ্চলের ১৩ হাজার ৫০০ পরিবারের আনুমানিক ৭৬ হাজার মানুষ বসতভিটা ও কৃষিজমি হারিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে শুধু বসতবাড়ি হারিয়েছেন এমন পরিবারের সংখ্যা ৫ হাজার। এছাড়া ভূমি ও বসতবাড়ি দুটোই হারিয়েছেন ৬ হাজার ৩৮৮টি পরিবার। এ অবস্থায় সরকারের পুনর্বাসন আইন অনুযায়ী এসব পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ভূমি ও বসতবাড়ির উপযুক্ত মূল্য পরিশোধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
অভিযোগ রয়েছে, নিয়ম অনুযায়ী জমির মূল্য পরিমাণ অর্থ ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে প্রদানের কথা থাকলেও নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে এ কার্যক্রম যাচ্ছেতাইভাবে চলছে। জমির মালিক না হয়েও ভুয়া দলিলের মাধ্যমে মালিকানা দাবি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একটি সংঘবদ্ধ অসাধু চক্র। জানা গেছে, সরকার ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ক্ষতিপূরণ হিসেবে নগদ অর্থ প্রদান করবেন এমন খবর পেয়ে রাতারাতি অধিগ্রহণ করা হবে এমন এলাকায় অস্থায়ী ঘর (ছাপড়া) তুলে জমি দখল করে উচ্ছেদকৃতদের তালিকায় নিজেকে মালিক হিসেবে নাম লিখিয়েছেন কোনো কোনো অসাধু ব্যক্তি। এ ধরনের কাজে সংশ্লিষ্ট জেলার ভূমি বিভাগের কর্মকর্তাদের জড়িত থাকার খবরও পাওয়া গেছে।

অন্যদিকে জমির প্রকৃত মালিক হওয়ার পরও নিয়মমাফিক ক্ষতিপূরণ না পেয়ে বাধ্য হয়ে শতকরা ১০ থেকে ১৫ শতাংশ কমিশন প্রদানের মাধ্যমে টাকা পেয়েছেন তারা। এসব ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ক্ষতিপূরণের জন্য গিয়ে দিনের পর দিন ধরণা দিয়ে যখন টাকা পাচ্ছিলেন না; তখন অগ্রিম মোটা অঙ্কের ঘুষের বিনিময়ে প্রাপ্য অর্থ তুলতে হয়েছে তাদের। মুন্সীগঞ্জের লৌহজং ইউনিয়নের কুমারভোগ গ্রামের বাসিন্দা আরিফ ঢালি শীর্ষ নিউজ ডটকমকে জানান, সেতু প্রকল্পে তিনি হারিয়েছেন প্রায় ৭০ শতাংশ জমি। কিন্তু জমির সম্পূর্ণ দাম পাননি তিনি। যতটুকুই পেয়েছেন তার জন্য গুনতে হয়েছে শতকরা ১০ ভাগ কমিশন। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অসাধু কর্মকর্তা ও ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের দিতে হয়েছে এ অর্থ। এমনকি এ অর্থ তৎকালীন জেলা প্রশাসকসহ অন্যদের মাঝে ভাগবাটোয়ারা হয়েছে এমন তথ্য মিলেছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকার প্রথম দিকে প্রতি শতক জমির দাম ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা দিলেও পরবর্তীতে এ হার কমিয়ে ১ লাখ ৪৬ হাজার করা হয়েছে। তার ওপর হয়রানি তো আছে। ভুক্তভোগীদের আরেকজন চুন্নী খাঁ। পদ্মা সেতুর জন্য ৩২ শতাংশ কৃষি জমি হারিয়ে তিনি আরো কোনো টাকা পাননি। তারও অভিযোগ, জমির মালিক না হয়েও ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় মদদপুষ্টরা রাতিরাতি ভুয়া মালিক বনে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

জানা গেছে, সরকার ও সেতু নির্মাণে আর্থিক সহায়তা প্রদানকারী বিদেশি দাতা গোষ্ঠীদের যৌথ সহায়তায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হচ্ছে। দাতা গোষ্ঠীর চাপে এ কার্যক্রমে সরকারের পাশাপাশি খ্রিস্টিয়ান কমিশন ফর ডেভেলপমেন্ট ইন বাংলাদেশ (সিসিডিবি) নামে একটি এনজিওকে এ দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। কিন্তু এনজিওটির কর্মকাণ্ডের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এ সংস্থার বিভিন্ন সারির কর্মকর্তারা আর্থিক অনিয়মের সাথে জড়িয়ে গেছেন। অর্থ আত্মসাৎ করতে গিয়ে ভুয়া তালিকা তৈরি করে নিজেরাই এ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এদিকে পুনর্বাসন কার্যক্রমের দুর্নীতির প্রতিবাদে এ বছরের শুরুতে স্থানীয়রা কয়েক দফা মানববন্ধন ও অবরোধ কর্মসূচি পালন করলেও কোনো ফল পাননি। এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্যদের দ্বারস্থ হয়েও সুফল মেলেনি।

প্রশাসন কী বলছে

এ ব্যাপারে পুনর্বাসন প্রকল্পের পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম শীর্ষ নিউজ ডটকমকে জানান, ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ক্ষতিপূরণ প্রদানে কোনো অনিয়ম হচ্ছে না। প্রকৃত মালিকের সম্পদের দলিলপত্র যাচাই-বাছাইপূর্বক অর্থ প্রদান করা হচ্ছে। এ কাজে সিসিডিবির সহায়তায় সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি। অথচ স্থানীয়দের দাবি, এ কাজে নিয়োজিত এনজিওটির যোগসাজশে সরকারি কর্মকর্তারা এসব অনিয়মের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

সরকারের তরফে দাবি

এদিকে গত ২৮ এপ্রিল পদ্মা সেতুর নির্মাণে আর্থিক ঋণ সহায়তা প্রদানকারী অন্যতম প্রতিষ্ঠান বিশ্বব্যাংকের সাথে ঋণচুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেন সেতু নির্মাণে কোনো অনিয়ম ও দুর্নীতি হবে না বলে দাবি করেন। একই অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এ কাজের যাবতীয় কার্যক্রম দুর্নীতিমুক্ত রাখতে সরকার বিশেষ মনিটরিং ব্যবস্থা গড়ে তুলবে বলে আশ্বস্ত করেন। অন্যদিকে বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এনগোজি ওকোনজো ইউয়েলা জানান, এ কার্যক্রমে অনিয়ম, দুর্নীতি কিংবা গুণগত মান নিয়ে বিশ্বব্যাংক কোনো ছাড় দেবে না বলেও সরকারকে সতর্ক করে দিয়েছেন।

পুনর্বাসন প্রকল্প
পদ্মা সেতুর পুনর্বাসন প্রকল্পের আওতায় সেতুর দু’প্রান্তে অর্থাৎ মুন্সীগঞ্জের লৌহজং-এর কুমারভোগ ও জসলদিয়া গ্রামে এবং শরীয়তপুরের জাজিরা ও মাদারীপুরের শিবচরের বাখড়েরকান্দি গ্রামে ৪টি পুনর্বাসন এলাকা গড়ে তোলা হয়েছে। ৪টি পুনর্বাসন এলাকায় ৫০০টি করে মোট ২ হাজার প্লট ও ৮০টির মতো বাণিজ্যিক প্লট (মার্কেট নির্মাণ) তৈরি করা হয়েছে। এসব এলাকায় সকল প্রকার নাগরিক সুবিধা থাকবে। এলাকাগুলোকে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ, ৫ শতাংশ এবং ২ দশমিক ৫ শতাংশ প্লট আকারে ভাগ করা হয়েছে। পুনর্বাসন এলাকা চারটির আয়তন প্রায় ৬৯ হেক্টর। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এ প্রকল্পের আওতায় ক্ষতিগ্রস্তদের তিন ভাগের এক ভাগ থাকার সুযোগ পাবেন। তাদের নির্ধারিত মূল্য পরিশোধের মাধ্যমে প্লট সংগ্রহ করতে হবে।

হাবিবুল্লাহ ফাহাদ

[ad#bottom]

Leave a Reply