বাদীর সাক্ষ্য নিলেন মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার

লেবাননে নারী পাচার মামলা
মুন্সীগঞ্জে বৃহস্পতিবার সকালে লেবাননে চাঞ্চল্যকর নারী পাচার মামলার বাদী ফুলমালার সাক্ষ্য নিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার। এ সময় জেলা পুলিশ সুপার শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) শিগগিরই অভিযুক্ত নারী পাচারকারীদের গ্রেপ্তারের জন্য কড়া নির্দেশ দেন।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চাঞ্চল্যকর ওই মামলার বাদীকে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে পুলিশি নিরাপত্তায় ডেকে নেওয়া হয়। পরে প্রায় ১ ঘণ্টা ধরে বাদী ফুলমালার সাক্ষ্য নেন জেলা পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম। এ সময় পুলিশ সুপার জেলার শ্রীনগর থানায় দায়েরকৃত মামলায় নারী পাচারকারীদের বিরুদ্ধে বাদীর আনা অভিযোগ বিস্তারিত শোনেন।

মামলার বাদী ফুলমালা ও তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ খালিদ বৃহস্পতিবার দুপুরে বাংলানিউজকে এসব তথ্য জানান।

বাদী ফুলমালা জানান, পুলিশ সুপার মোঃ শফিকুল ইসলাম ধৈর্য ধরে তার কথা শুনেছেন।

বাদী জানান, পুলিশ সুপার নিজেই তার মামলার তদারক করছেন বলে। এ কারণেই তিনি বাদীর সাক্ষ্য নেন।

এদিকে, চাঞ্চল্যকর নারী পাচার মামলার বাদীকে প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে আসছে নারী পাচারকারী চক্রটি।

বাদীর অভিযোগ, এতে তার জীবনের নিরাপত্তা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। আর নিরাপত্তাহীনতার কারণে দায়ের করা নারী পাচারের মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের এসআই মোঃ খালিদ বৃহস্পতিবার সকালে তাকে সঙ্গে করে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে নিয়ে আসেন।

অপরদিকে, লেবাননে নারী পাচারের প্রধান হোতা ইদ্রিস আলীর জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। বুধবার শামীম হাসনাইন ও মোঃ রেজাউল হাসানের গঠিত হাইকোর্টের বেঞ্চ তার জামিনের আবদেন নাকচ করেন।

উল্লেখ্য, মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর এলাকার অন্তত ১০ নারী ওই পাচারকারী চক্রের খপ্পড়ে পড়ে লেবানন গিয়ে নির্যাতনের শিকার হন। এ ঘটনায় গত ১১ এপ্রিল লেবাননে নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরে আসা শ্রীনগরের ষোলঘর এলাকার ফুলমালা থানায় নারী পাচারকারীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply