উপমহাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন শ্যামসিদ্ধি মঠ অযত্নে অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় প্রাচীন শ্যামসিদ্ধি মঠটি অযত্নে অবহেলায় নষ্ট হতে চলেছে। এখনিই এ বিষয়ে কোন পদক্ষেপ না নিলে ইতিহাসের পাতা থেকে শ্যামসিদ্ধি মঠ হারিয়ে যাবে। এ মঠটি নতুন করে সংস্কার করা হলে এখানে গড়ে উঠতে পারে পর্যটন কেন্দ্র। এতে সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে। ঢাকার খুব কাছে এই এলাকার অবস্থান। ঢাকা থেকে মাত্র আধা ঘন্টায় এই এলাকায় যাওয়া যায়।

মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার থেকে এক কিলোমিটার পশ্চিমে শ্যামসিদ্ধি গ্রামে এই প্রাচীন মঠটির অবস্থান। গ্রামের নামানুসারে এই মঠটির নাম শ্যামসিদ্ধি মঠ রাখা হয়েছে বলে ধারণা করা হয়। এই গ্রামের গাদিঘাট সড়ক দিয়ে এই মঠটির কাছে যাওয়া যায়। তাছাড়া মঠটির বিশাল উচ্চতার কারণে অনেক দূর থেকে মঠের চূড়া দেখা যায়। এক সময় এই জনপদে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের একক আধিপত্য ছিল। সপ্তদশ শতাব্দীতে এ এলাকায় ধনী ও প্রভাবশালী অধিবাসী ছিলেন শম্ভুনাথ মজুমদার। এলাকায় জনশ্রুতি আছে যে শম্ভুনাথ মজুমদারের পিতার মৃত্যু পর তিনি স্বপ্নে পিতার সমাধির উপর মঠ নির্মাণের আদেশ প্রাপ্ত হন। এরপর তিনি পিতার সমাধিস্থলের উপর এক বিরাট মঠ নির্মাণ করেন। আর এই মঠটির নাম শ্যামসিদ্ধি মঠ হিসেবে এলাকায় নাম ছড়িয়ে পরে। হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন বিশেষ দিনে এই মঠে শিব পুজা করে থাকে। শিব রাত্রিতে পুজা উপলক্ষ্যে মঠের আঙিনা নতুন করে ধোয়া মুছা করা হয়।

আনুমানিক ২৪৭ বছর পূর্বে ১৭৫৮ খ্রিষ্ঠাব্দে উপমহাদেশের সবচেয়ে বিশাল শ্যামসিদ্ধি মঠটি নির্মিত হয়। সুবিশাল এই মঠটির উচ্চতা হচ্ছে ২৪২ ফুট। মঠের ভিত্তিপ্রস্তরের দৈর্ঘ্য ২১ ফুট। বৃহত্তর এই মঠটির গঠন শৈলী অষ্ঠভুজাকৃতি। মঠের দরজার উচ্চতা ২৭ ফুট। মঠের মুল স্তম্ভের ভেতরের মেঝের ক্ষেত্রফল ৩২৪ বর্গফুট। মঠের ভিতরের উচ্চতা ৮০ ফুট। সেই সময় ইট সুরকি দিয়ে এই প্রাচীন মঠটি নির্মাণ করা হয়। এখনো এই মঠটির গঠন শৈলীর ভিত্তি অত্যান্ত মজবুত রয়েছে। মঠের বাহিরে ও ভেতরে নানা রকমের কারুকাজ রয়েছে। মঠের চারিদিকে রয়েছে নানা রকমের ছিদ্র। মঠে ছিদ্র থাকায় এখানে নানা ধরণের পাখি বর্তমানে বসবাস করছে। পাখির কলকাকলির শব্দে বিকেলে অন্য রকমের পরিবেশ সৃষ্ঠি হয়। মঠের চূড়ায় রয়েছে একটি নকশা করা ত্রিশুল। অনেক উঁচুতে ত্রিশুল থাকায় এটি এখনো কেউ চুরি করতে পারেনি। তবে নিচের অংশের দরজা জানালা ও কাঠের মূল্যবান অংশ ইতোমধ্যে অনেক কিছু চুরি হয়ে গেছে। যুগের পর যুগ মঠটি কোন ধরণের সংস্কার না করায় মঠের দেয়ালে ও চূড়ায় বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দিয়েছে। যে কো সময় মঠটির অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তাই এই বিষয়ে এখনি পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন। এলাকাবাসী মঠের বিষয়ে সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

[ad#bottom]

Leave a Reply