অতিরিক্ত ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে বিপাকে

রাহমান মনি
যে কোনো প্রাকৃতিক বা মনুষ্য সৃষ্টি বড় দুর্যোগের পর সবচেয়ে অতি প্রয়োজনীয় হলো দুর্গতদের পাশে দাঁড়ানো, মনোবল চাঙ্গা করা সহ প্রয়োজনীয় জিনিসগুলির যোগান দেয়া। প্রয়োজনীয় জিনিস বলতে ত্রাণ সামগ্রী। অথচ এসব প্রয়োজনীয় জিনিসের অতিরিক্ততা এবং অপ্রয়োজনিয়তা দেখা দেয়ায় বিপাকে পড়েছে কর্তৃপক্ষ।

১১ মার্চ ভয়াবহ ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট সুনামিতে ব্যাপক জান-মালের ক্ষতির কথা বিশ্ববাসীর জানা। আত্মমর্যাদা সম্পন্ন জাপানি জাতি এত বড় দুর্যোগ সত্বেও বিশ্ববাসীর কাছে হাত পাতেনি সরকারিভাবে। তারপরও বন্ধু রাষ্ট্রগুলিসহ বিশ্ব সংস্থা সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে। জাপান সরকার কৃতজ্ঞতার সঙ্গে তা গ্রহণও করছে জাপান রেডক্রসের মাধ্যমে। সহযোগিতা করছে জাপানি জনগণও। প্রবাসী সমাজও এগিয়ে এসেছে দুর্গত মানুষদের পাশে।

বিভিন্ন দেশ, সংস্থা এবং বিশেষ করে জাপানি জনগণ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাগুলোতে (ইওয়াতে, মিয়াগি এবং ফুকুশিমা অঞ্চলে) এত বিপুল পরিমাণ ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছেছে এবং পৌঁছানোর অপেক্ষায় আছে যে, তা সামাল দিয়ে স্থান সংকুলান এবং বিতরণ করতে কর্তৃপক্ষকে রীতিমতো গলদঘর্ম হতে হচ্ছে। তারপরও কুলিয়ে ওঠতে পারছে না। কিন্তু সাধারণ মানুষের দেয়া এসব ত্রাণ-সামগ্রী এবং তাদের অনুভূতির প্রতি সম্মান জানিয়ে সর্বোচ্চ ব্যবহার করার জন্য কর্তৃপক্ষ আন্তরিক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু যতই আন্তরিকতা থাকুক না কেন, জাপান জাতি হিসেবে অপ্রয়োজনীয় জিনিস রেখে স্থান নষ্ট করার পক্ষে কোনো দিনই ছিল না। তারা চায় সব কিছুরই সর্বোচ্চ ব্যবহার। ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে এমন কিছু জিনিস রয়েছে যার প্রয়োজনীয়তা এখণ আর নেই মওসুম বদল হওয়ার কারণে। যেমন রুম হিটার, গরম রাখার কম্বল ইত্যাদি। এ গুলি স্থান দখল করে থাকায় প্রয়োজনীয় জিনিস গুলির স্থান দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

তাই কর্তৃপক্ষ সবার অনুভূতির কথা মাথায় রেখে অপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলো বা প্রয়োজনের অতিরিক্ত জিনিসগুলো বিভিন্ন স্থানে বিনামূল্যে জনগণের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছে। ভূমিকম্প উৎপত্তিস্থল মিয়ানির সেনদাই শহরেও ৫ মে বৃহস্পতিবার সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। অনেকেই তার পছন্দের জিনিসটি বিনামূল্যে সংগ্রহ করেন। তারপরও বিপুল পরিমাণ সামগ্রী রয়ে যায়। যেগুলো ফেলে দেয়া বা নষ্ট করা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

এদিকে ৬ মে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন, তিনি হামাওকা আণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সকল চুল্লী অবিলম্বে বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন। জাপানী বিজ্ঞানীদের গবেষণা এবং ফলাফলের জরিপের ভিত্তিতে তিনি এ নির্দেশ দেন।

জাপানী বিজ্ঞানীরা গবেষণায় জানিয়েছেন, আগামি ৩০ বছরের মধ্যে জাপানের তোকাই অঞ্চলে ৮ মাত্রার চেয়ে বড় ভূমিকম্পের আশংকা রয়েছে এবং এ আশংকার সম্ভাবনা ৮৭%। এর ফলে কেবল টোকিও শহরেই দশ হাজারেরও বেশি মানুষ সৃষ্ট অগ্নিকা-ে জীবন্ত দগ্ধ হবেন। কারণ বাতাসের জন্য তখন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা অপ্রত্যাশিতভাবে বেড়ে যাবে।

কান জানান, হামাওকা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ১ ও ২ নং চুল্লীটি আগেই স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ৩ নং চুল্লীটি মেরামতের জন্য বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। ৪ ও ৫ নম্বার চুল্লি দুটি অবিলম্বে বন্ধ এবং সুনামি প্রতিহত করতে উঁচু দেয়াল নির্মাণ করার নির্দেশ দিয়েছে তার সরকার।

Leave a Reply