জিনের বাদশাহ ডাকাত শহীদ!

পুরান ঢাকার জিনের বাদশাহ এখন ডাকাত শহীদ। সশরীরে তার কোথাও দেখা নেই, অশরীরী এই বাদশাহ ধুমছে চালিয়ে যাচ্ছে চাঁদাবাজি। আধুনিক যুগের জিনের বাদশাহ যেমন মোবাইল ফোনে গভীর রাতে সতর্কবাণী শুনিয়ে সহজ-সরল মানুষকে সর্বস্বান্ত করে, তেমনি মোবাইল ফোনে গায়েবি চাঁদা দাবি করে ডাকাত শহীদ। তার ক্যাডারদের চোখে থাকে কালো চশমা। চোখের পলকে আসে তারা, গলিপথের মধ্যেই আবার দ্রুত উধাও হয়ে যায়। পুলিশের ধারণা, ডাকাত শহীদের নাম ভাঙিয়ে অন্য কোনো গ্রুপ চাঁদাবাজি করছে। এলাকাবাসীর বক্তব্য, এলাকার রাজনৈতিক প্রভাবশালীরাই এখন ডাকাত শহীদের নামের আড়ালে চাঁদাবাজি-সন্ত্রাস চালিয়ে যাচ্ছে। ডাকাত শহীদ নামটি এখন তাদের মুখোশ! এ কারণেই ডাকাত শহীদের ‘ফোনের নির্দেশমতো’ চাঁদা না দিলে হামলা হয়, বোমা ফোটে। ডাকাত শহীদের দুই সহযোগী ‘ক্রসফায়ারে’ নিহত হওয়ার পরও তার নামের দাপট কমে না। কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সালাহউদ্দিন সমকালকে জানিয়েছেন, ডাকাত শহীদের নামে চাঁদা দাবির অভিযোগ আমাদের কাছেও আসছে, কিন্তু ডাকাত শহীদ এলাকায় কিংবা ঢাকা শহরে আছে এমন তথ্য-প্রমাণ পুলিশের কাছে নেই। তবে ডাকাত শহীদের নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজি-সন্ত্রাসের ঘটনা স্বীকার করেন তিনি।
এলাকাবাসী জানান, মাস ছয়েক আগে র‌্যাংকিন স্ট্রিটে সাততলা একটি বাড়ি নির্মাণ কাজ চলাকালে বাড়ির মালিকের কাছে একটি অচেনা নম্বর থেকে ফোন আসে। ফোনে অপরপ্রান্ত থেকে বলা হয়, ‘আমি ডাকাত শহীদ।

এক কোটি টাকা চাঁদা দেবেন আমার লোককে।’ বাড়ির মালিক ফোনে হুমকি পাওয়ার পর আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে আলাপের পর বিষয়টি থানায় অবহিত করেন। কিন্তু তার অভিযোগের কথা গোপন থাকেনি। অভিযোগ করার এক সপ্তাহের মধ্যে কালো চশমা পরা একদল যুবক মোটরসাইকেল নিয়ে এসে নির্মাণাধীন বাড়িতে বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। চলে যাওয়ার সময় যুবকরা বাড়ির নির্মাণকাজ বন্ধ রাখতে বলে যায়। পুলিশ অবশ্য ডাকাত শহীদের সহযোগী সন্দেহে চারজনকে গ্রেফতার করে। কিন্তু এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় কোনো ভবন নির্মাণ হলে বাড়ির মালিক নিজ উদ্যোগেই ডাকাত শহীদের সহযোগীদের খোঁজ করছেন। যেন মাঝপথে বাড়ির নির্মাণকাজ বন্ধ না হয়।
এলাকাবাসীর কাছে আরও একটি ঘটনা জানা গেল। ধূপখোলা মাঠে আরেকজন জমির মালিক নিজের ১০ কাঠা জমি বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন। একটি হাউজিং কোম্পানির সঙ্গে আলোচনা শুরু হয়। হঠাৎ একদিন বাড়ির মালিকের কাছে ফোন আসে_ ‘আমাকে চিনতে পারছেন, আমি ডাকাত শহীদ, আপনার এই জমি বিক্রি করা যাবে না।’ জমির মালিক বললেন, ‘শহীদ ভাই, আপনার কোনো ডিমান্ড থাকলে বলেন, জমি বিক্রি করা খুব জরুরি’। ডাকাত শহীদের সাফ জবাব, ‘ভাই বলছি বিক্রি করতে পারবেন না। করবেন না। রাখি ভাই।’ ফোন কেটে গেল। তারপরও তিনি ওই হাউজিং কোম্পানির অফিসে আবার গেলেন। কিন্তু সেখানেও একই ঘোষণা চলে এসেছে। তারা আর জমি কিনতে চান না। এই জমির মালিকও ছয় মাস ধরে ঘুরছেন। জমি বিক্রি করা হচ্ছে না। ক্রেতাই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

কোতোয়ালি, সূত্রাপুর এলাকার যত ব্যবসায়ী আছেন সবাইকে মাসে মাসে টাকা দিতে হয় ডাকাত শহীদের ক্যাডারদের। কিন্তু কারা এই ক্যাডার, তাও বলতে চান না ভীতসন্ত্রস্ত ব্যবসায়ীরা। একজন জানালেন, কালো চশমা পরে মোটরসাইকেল নিয়ে আসে। টাকা নিয়ে চলে যায়। এলাকার বাসিন্দা বলে মনে হয় না। এর আগে দু-একজন চাঁদা না দেওয়ার পর দোকানপাট ভাঙা হয়েছে, স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রেমকৃষ্ণ গুলিতে নিহত হয়েছেন।

বিভিন্ন সূত্রের তথ্য অনুযায়ী, ডাকাত শহীদের উত্থান ১৯৯৮ সালের শেষের দিকে। মুন্সীগঞ্জের শ্যামসিদ্ধি এলাকায় কিশোর বয়স থেকেই সে শহীদ মস্তান নামে পরিচিত ছিল। এলাকা দিয়ে চলাচলকারী ট্রলার ও লঞ্চ থেকে চাঁদা আদায় করত। এ চাঁদাবাজির জেরেই এক কাঠ ব্যবসায়ীকে হত্যা করে সে হয়ে ওঠে ‘ডাকাত শহীদ’। সেই হত্যা মামলায় ফেরারি হয়ে ১৯৯৮ সালে সে রাজধানীর জুরাইন এলাকায় এসে বাসা ভাড়া নেয়। স্থানীয় একজন সাবেক ওয়ার্ড কমিশনারের আশ্রয়ে তার হয়ে শুরু করে চাঁদাবাজি। দুই বছরের মধ্যে ওই এলাকার ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী আগা শামীমকে হটিয়ে ডাকাত শহীদ হয়ে ওঠে এলাকার নতুন ত্রাস। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে শুরু করলেও পরে চারদলীয় জোট সরকারের আমলে সে হয়ে ওঠে আরও ভয়ঙ্কর। তার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী প্রেমকৃষ্ণ হত্যাসহ পুরান ঢাকাতেই ৩০টি খুনের মামলা রয়েছে। ২০০৬ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতা ছাড়ার কিছুদিন আগে থেকেই আত্মগোপনে যায় ডাকাত শহীদ। এরপর তাকে আর কেউ এলাকায় দেখেনি। ওয়ান ইলেভেন-পরবর্তী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তার প্রধান সহযোগী ট্যাবলেট বাবু, বিদ্যুৎ ও কাওসার গ্রেফতার হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর তারা পুলিশকে জানায়, ‘ডাকাত শহীদ নেপালে আছেন। তারা চাঁদা তুলে সেই টাকা হুন্ডি করে পাঠিয়ে দেন।’ এর কিছুদিন পর তার দুই সহযোগী ‘ক্রসফায়ারে’ নিহত হয়। এরপর জনগণ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিল। কিন্তু সপ্তাহখানেক পর আবার ডাকাত শহীদের ফোন আসা শুরু হয়_ ‘আমি ডাকাত শহীদ বলছি, চাঁদাটা কিন্তু দিতে হবে।’

অপরাধের আরও কিছু চিত্র
পুরান ঢাকায় গত ছয় মাসে একের পর এক হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। চলতি বছরের শুরুতে ৩ জানুয়ারি চাঁদাবাজরা সূত্রাপুরের মোটর পার্টস ব্যবসায়ী নির্মল চন্দকে সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত করে। একই দিনে গেণ্ডারিয়া বি কে দাস রোডে বিভূতিরঞ্জন দাসের বাড়িতে ঢুকে তাকেও হত্যার চেষ্টা চালায় সন্ত্রাসীরা। এ সময় তার ছেলে শুভ দাস চিৎকার করলে তাকে বাথরুমের পানির ড্রামে চুবিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ৫ জানুয়ারি বংশালের সিক্কাটুলি এলাকার ব্যবসায়ী শফিক আনাম মাসুম খুন হন। এসব ঘটনার প্রতিবাদে ৬ জানুয়ারি পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীরা ৪ ঘণ্টা দোকান বন্ধ রেখে সন্ত্রাসবিরোধী কর্মসূচি পালন করেন। ১ ফেব্রুয়ারি তাঁতীবাজারের রাজেশ্বরী মন্দিরের একটি স্বর্ণের দোকানের কর্মচারী রাজীব দাসকে খুন করে দোকানে ডাকাতি করে দুর্বৃত্তরা। ২৩ ফেব্রুয়ারি খুন হন শ্যামপুর থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ উল্লাহ এবং তার গাড়িচালক হারুন উর রশিদ। ৭ মার্চ কদমতলীর একটি ডোবা থেকে পুলিশ উদ্ধার করে তিনটি লাশ, ২১ মার্চ যাত্রাবাড়ীতে খুন হন ঢাকা জেলা প্রশাসনের বিচার শাখার কর্মকর্তা হোসেন খান জামাল, ৩১ মার্চ লালবাগে খুন হন ব্যবসায়ী সোহেল মাহমুদ বিপ্লব। ২০১০ সালের চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের মধ্যে রয়েছে ৭০ নম্বর ওয়ার্ড কমিশনার হাজী আহম্মেদ হোসেন এবং ব্যবসায়ী প্রেমকৃষ্ণ।
খুন, চাঁদাবাজি ছাড়াও পুরান ঢাকার নয়াবাজার এবং মিটফোর্ড এলাকাজুড়ে রয়েছে বিশাল মাদক বাণিজ্য। সূত্রাপুর থানার একটি সূত্র জানায়, রাজধানীতে যে পরিমাণ মাদকদ্রব্য ব্যবহার হয় তার বড় চালান যায় নয়াবাজার এবং মিটফোর্ড থেকে। পুরান ঢাকার সুইপার কলোনি এলাকায় বড় মাদক ব্যবসায়ী মারিয়া আক্তার মাবু। ২০১০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তার এক সহযোগী আহসান উল্লাহ পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার ১ ঘণ্টা পর তাকে গ্রেফতারে সহায়তা করা কমিউনিটি পুলিশ সদস্য আবদুুল বারেক খুন হন। এলাকাবাসী জানান, টোকাই এবং ছিন্নমূল শিশুরাই হচ্ছে মাবুর মাদক ব্যবসার প্রধান হাতিয়ার। পুলিশের রেকর্ড অনুযায়ী পুরান ঢাকার বুড়িগঙ্গা ব্রিজ, সুইপার কলোনি, বাহাদুর শাহ পার্ক এবং নয়াবাজার এলাকা পুরান ঢাকার অন্যতম প্রধান মাদক স্পট।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ সালাহউদ্দিন সমকালকে বলেন, ‘ডাকাত শহীদের নামে চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসের অভিযোগ আমাদের কাছেও আসছে। আমরা এটা নিশ্চিত, ডাকাত শহীদ এলাকায় নেই। কিন্তু কারা তার নামে চাঁদাবাজি করছে, এটা এখন পর্যন্ত নির্ধারণ করা যাচ্ছে না।’ একাধিক খুন এবং মাদক ব্যবসা সম্পর্কে তিনি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের পক্ষে যতটা সম্ভব করে যাচ্ছে।

রাশেদ মেহেদী/রাজীব আহাম্মদ

[ad#bottom]

Leave a Reply