দৃষ্টিশক্তি হারাচ্ছেন আবদুর রহমান বয়াতী

বিশিষ্ট লোকসংগীত শিল্পী আবদুর রহমান বয়াতী দৃষ্টি শক্তি হারিয়ে ফেলছেন। গত কয়েক বছর ধরে অনেকটা বিনা চিকিৎসাতেই মানবেতর দিনযাপন করছেন বরেণ্য এই শিল্পী। গত এক বছরে বেশ গুরুতর আকারে রূপ নেয় বয়াতীর শারীরিক অবস্থা। এরই মধ্যে গত বছরের শেষের দিকে হৃদরোগ ও উচ্চ রক্তচাপজনিত সমস্যা হঠাৎই গুরুতর আকার ধারণ করলে তাকে ভর্তি করা হয় জাপান-বাংলাদেশ-ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে। হৃদরোগ ছাড়াও মূত্রথলী ও চোখের ছানিজনিত সমস্যাও চিহ্নিত করেন চিকিৎসকরা।

সেখানে অবশ্য এক মাস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বয়াতীকে বিনামূল্য চিকিৎসাসেবা প্রদান করে। তবে এক মাস পর বাসায় ফিরে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন বয়াতী। বিশেষ করে চোখের ছানি ও মূত্রথলীজনিত সমস্যাই প্রকট হয়ে দেখা দেয়। বর্তমানে বিনা চিকিৎসায় নিজের মাতুয়াইলের ভাড়া করা ছোট একটি বাড়িতে দিনাতিপাত করছেন বয়াতী। মূত্রথলীতে একটি অপারেশন করার কথা থাকলেও সেটি অর্থের অভাবে আর করানো যায়নি। তবে সব কিছু ছাপিয়ে এখন চোখের ছানিজনিত সমস্যাই সবচেয়ে বড় হয়ে দেখা দিয়েছে তার। নির্মম হলেও সত্য যে চোখ হারানোর পথেই রয়েছেন দেশবরেণ্য এই লোকসংগীত শিল্পী। চোখে পুরোপুরি ছানি পড়ে যাওয়ায় তেমন একটা দেখতেই পাচ্ছেন না তিনি। অনেক কাছে এলে হালকা দেখতে পান শুধু।

এই অবস্থা আর কিছুদিন চললে পুরোপুরি চোখ হারাবেন বয়াতী। চোখের ছানি দূর করার জন্য একটি অপারেশন করা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। আর সব মিলিয়ে সেই অপারেশনে ব্যয় হবে অর্ধ লাখ টাকার কিছু বেশি। কিন্তু অর্থসঙ্কটের কারণে কোন রকমে খেয়ে না খেয়ে দিনযাপন করা বয়াতীর পরিবার নিয়মিত তার ওষুধই দিতে পারছে না, অপারেশন করা তো দূরের কথা। আবদুর রহমান বয়াতীর মেঝ ছেলে মোহাম্মদ আলম বলেন, আমার বাবা এক সময় গান দিয়ে কত মানুষকে আনন্দ দিয়েছেন, আর আজ তিনি নিয়মিত ওষুধই খেতে পারছেন না। আমরা কোন রকমে খেয়ে না খেয়ে দিন পার করছি, চিকিৎসা করাবো কোত্থেকে। একটি ফান্ড গঠন করেছিলাম, কিন্তু সেখান থেকে কোন ধরনের সহায়তাই পাইনি। সবচেয়ে ভয়ের ব্যাপার হলো বাবার চোখে ছানি পড়ে গেছে অনেকখানি, এখনই দেখতে অনেক কষ্ট হয় তার। খুব শিগগিরই অপারেশন করাতে না পারলে এক সময়ে সবার প্রিয় আবদুর রহমান বয়াতী আর চোখে দেখতে পারবেন না।

ফয়সাল রাব্বিকীন

Leave a Reply