রবীন্দ্রনাথ যেখানে ছিলেন সেখানেই আমরা আটকা থাকব না, আমরা আরও এগিয়ে যাব

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
গ্রাম উন্নয়ন, শিক্ষা, আন্তর্জাতিকতা, কৃষির উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধি করা, সাম্প্রদায়িকতা দূর করে মানুষে মানুষে সম্প্রীতি তৈরি অতঃপর একটি সাংস্কৃতিক ঐক্যের মাধ্যমে কাজ করে বাঙালি জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার যে নিরলস চেষ্টা রবীন্দ্রনাথের সাহিত্যে, রাজনৈতিক, সাংগঠনিক এবং সামাজিক কর্মকাণ্ডে ছিল ১৫০তম জন্মবার্ষিকী শেষে তার কতটুকু প্রতিফলিত হয়েছে আমাদের রাষ্ট্রীয়, সামাজিক এবং ব্যক্তি জীবনে? রবীন্দ্র জন্মবার্ষিকীতে তার গান, নাটক, নৃত্য প্রদর্শন, বহু বছর ধরে তার সাহিত্যের প্রশংসামূলক সেই একই ব্যাখ্যা বিশ্লেষণে ক্রোড়পত্র প্রকাশ, তাকে নিয়ে পরিচিতিমূলক বক্তৃতা প্রদান যতখানি রবীন্দ্র সাহিত্য-চর্চা বিষয়ে গুরুত্ব বহন করে তার চেয়ে কম নয় ফিরে দেখা যে, রবীন্দ্র-সাহিত্যের মূল দর্শন আমাদের সমাজ ও রাষ্ট্রে কতটুকু প্রতিফলিত। রবীন্দ্র জন্মবার্ষিকী উদযাপন শেষে এসব বিষয়ে জুননু রাইন কথা বলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সঙ্গে রবীন্দ্র জন্ম উৎসবের ধরন তার সাহিত্যের মূল বিষয়ের সঙ্গে কতটুকু সঙ্গতিপূর্ণ?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : এই উৎসবের একটাই ভালো দিক তা হচ্ছে রবীন্দ্রনাথ সম্পর্কে একটা আগ্রহ, কৌতূহল তৈরি হচ্ছে। রবীন্দ্রনাথ যে সব বাঙালির কবি সেই সত্যটা বেড়িয়ে আসছে। আমাদের যে বিচ্ছিন্নতা; রাজনৈতিক, রাষ্ট্রীয় এবং শ্রেণীগত বিচ্ছিন্নতা, এই ব্যাপারগুলো সম্পর্কে বাঙালি সচেতন হচ্ছে। বাস্তবতা হচ্ছে রবীন্দ্রনাথ কিন্তু মধ্যবিত্ত শ্রেণীর হাতে আবদ্ধ। রবীন্দ্রনাথ নিজেও কোথাও আবদ্ধ থাকতে চাননি, তাকে যখন নোভেল পুরস্কার দেয়া হল তখন ইউরোপের লোকেরা মনে করেছিল যে, তিনি গীতাঞ্জলি এমন ভাষায় লিখেছেন যেন একজন অভিজাত পরিপারের লোক লিখছেন কিন্তু যেটা কৃষক, জেলে, তাঁতী সবাই পড়তে পারবে। অর্থাৎ মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মধ্যে আবদ্ধ থাকবে না। রবীন্দ্রনাথ নিজেও মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মধ্যে আবদ্ধ থাকতে চাননি। তিনি শহরে থাকতে ক্লান্ত হয়ে পড়তেন, গ্রামে চলে যেতেন এবং তিনি ওই কৃষকের জীবনের কাছে যেতে চাইতেন। সবুজের অভিযান কবিতায় তিনি বলেছেন ওরে নবীন ওরে কাঁচা/আধমরাদের ঘা মেরে তুই বাঁচা।
এই তো একটা চ্যালেঞ্জ নবীনদের প্রতি। নবীন মানে হচ্ছে যারা সৃষ্টিশীল, যাদের মধ্যে নবীন চেতনা আছে, যাদের মধ্যে পরিবর্তনের আকাক্সক্ষা আছে। যেমন ধরা যাক; যারা মুক্তিযুদ্ধ করেছিল তারা যেন আধমরাদের বাঁচিয়ে তোলেঃ। বার বার চেষ্টা হয়েছে মুক্তির কিন্তু আমরা পারিনি। আমরা সমষ্টিগতভাবে এখনও আধমরা অবস্থায় আছি। যে সমাজ ব্যবস্থা, যে অর্থনৈতিক ব্যবস্থা এবং বিশ্বের যে বিশ্বপুঁজিবাদ আমাদের ঘিরে রেখেছে এই ব্যবস্থাকে ভাঙার যে চ্যালেঞ্জ সেটা রবীন্দ্রনাথের ভেতরে আছে। রবীন্দ্রনাথ আমাদের একটা পথের নির্দেশ দিয়েছেন যে সমষ্টিগত উদ্যোগ নিতে হবে এবং সমাজকে বদল করতে হবে। আমরা তো এগুলো করতে পারছি না কিন্তু সচেতনতারও তো দাম আছে। আমি ওই অর্থে জন্মদিনের এ উৎসবকে গুরুত্ব দিচ্ছি। তবে জন্মদিনে রবীন্দ্রনাথের গান, নাচ এবং নাটক প্রদর্শন রবীন্দ্র-সাহিত্যের মূল্যায়নের ক্ষেত্রে একেবারেই প্রাথমিক পর্যায়ের বা পরিচিতি পর্ব হিসেবেও ধরে নেয়া যায়, যেটা বহু বছর ধরে চলে আসছে। অথচ আমরা কেন আধমরা অবস্থা থেকে প্রাণবন্ত হয়ে উঠতে পারলাম না, সেই পেছনের দিকে তাকিয়ে মূল্যায়নই রবীন্দ্র-সাহিত্য চর্চা অথবা তার সাহিত্যের আসল মূল্যায়ন।

রবীন্দ্রনাথ ও তার সাহিত্যই কি বাঙালি জাতি এবং তার সংস্কৃতির প্রধান কথা?
সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : রবীন্দ্রনাথ যেখানে ছিলেন সেখানেই আমরা আটকা থাকব না, আমরা আরও এগিয়ে যাব এবং এই অতিক্রমের ব্যাপারটা রবীন্দ্রনাথ নিজের মধ্যেই দেখিয়েছেন। সেটা হচ্ছে ক্রমাগত নিজেকে অতিক্রম করে যাওয়া। আর এই এগিয়ে যাওয়ার জন্য আমাদের মধ্যে যেটা দরকার সেটা দেশপ্রেম।

আপনি যে এগিয়ে যাওয়ার বিষয়টি বললেন যেহেতু রবীন্দ্রনাথ কবি; তার সাহিত্য নিয়েই যদি বলি যে, রবীন্দ্রনাথের ১৫০তম জন্মবার্ষিকী পেরিয়ে এলাম অথচ তার সাহিত্যের বলয় ভেঙে শক্তিশালী কোন নতুন সাহিত্য-ধারা তেমনভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। বর্তমান সময়ের মুখোমুখি রেখে তার সাহিত্যের নতুন ব্যাখ্যাও পর্যাপ্ত নয়। রবীন্দ্রনাথ এভাবে পূজনীয় হয়ে থাকা কী আমাদের রবীন্দ্র-সাহিত্য চর্চার সহায়ক হবে?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : রবীন্দ্রনাথের সমালোচনা তো হতে পারে, বড় লেখকদেরও সমালোচনা হয়, প্রত্যেক যুগ তার দৃষ্টিভঙ্গি বদলায় এবং প্রত্যেক যুগেই মানুষ পুরনো সৃষ্টিকে নতুন করে মূল্যায়ন করে। নবমূল্যায়ন করতেই হবে, আজকের প্রেক্ষিত আর রবীন্দ্রনাথ যখন লিখেছেন তখন প্রেক্ষিত বা যখন রবীন্দ্রনাথের শতবর্ষ উদযাপন করেছিলাম তার প্রেক্ষিত এক নয়। এগুলো তো বদলে যাচ্ছে। নতুন প্রেক্ষিতে নিশ্চয়ই তাকে আমরা নতুনভাবে দেখব, এটা সমালোচনা বা প্রশংসার ব্যাপার নয়। এটা হচ্ছে বিচার করার যে তাকে আমরা কিভাবে মূল্যায়ন করব নতুন প্রেক্ষিতে। এই প্রেক্ষিতটা বদলে যাচ্ছে, আমরা এই সময় তাকে কিভাবে দেখব, হয়তো সেই দেখাটা আগামীকাল ভুল প্রমাণিত হবে। কিন্তু প্রত্যেক যুগই এরকম মহামানবদের তার নিজের মতো করে দেখে নেয়। সেই দেখাটা তো জরুরি। নতুনভাবে মূল্যায়ন করতে হবে এবং ক্রমাগত মূল্যায়ন করতে হবে।

রবীন্দ্রনাথের গ্রাম উন্নয়নের প্রেক্ষাপটে বর্তমানের আমাদের গ্রামের প্রকৃতি আপনার কাছে কীভাবে দৃশ্যায়িত?
সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : গ্রাম উন্নয়নের জন্য সরকার অবশ্য চেষ্টা করে যাচ্ছে। কিন্তু গ্রাম তো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, গ্রাম ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে এজন্য যে, গ্রামের যে অর্থনৈতিক জীবন সে জীবনটা এখন আর প্রাণবন্ত নয়। গ্রামে কর্মের সংস্থান নেই, গ্রাম এখন শহরের দিকে চলে আসছে এবং গ্রামগুলোতে শহরের পণ্যের বাজার প্রবেশ করছে। সেজন্য গ্রামের যে নিজস্বতা বা যে স্বাভাবিকতা সেটা নেই। এজন্য আমরা বলতে পারি গ্রাম উন্নয়নে রবীন্দ্রনাথের যে ধারণা সেটা মোটেও রূপায়িত হয়নি। আর কৃষিতে তিনি যে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি প্রবর্তন করতে চেয়েছেন সেটা কিছুটা এসেছে। কিন্তু মালিকানার প্রশ্নটা গুরুত্বপূর্ণ রয়ে গেছে। রবীন্দ্রনাথ সমবায় পদ্ধতিতে কৃষি কাজের কথা ভাবতেন, সেই সমবায় পদ্ধতিটা প্রয়োগ করা যায়নি, ব্যক্তিমালিকানাটাই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এতে কৃষক জমি হারিয়ে অনেক ক্ষেত্রে ক্ষেতমজুরে পরিণত হয়েছে। সুতরাং রবীন্দ্রনাথের ১৫০তম জন্মবার্ষিকী শেষে রবীন্দ্রনাথের কৃষির যে উন্নয়ন চিন্তা সেটাও ঘটেনি, গ্রামেরও পরিবর্তন হয়নি।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২১ ফেব্র“য়ারি উপলক্ষে আয়োজিত একুশের বইমেলা এলেই সর্বস্তরে বাংলা ভাষা প্রচলনের যে তাগিদ দেখা যায় এবং ফেব্র“য়ারি মাস শেষে তা আর থাকে না। আমরা যে সাহিত্যের জন্য রবীন্দ্রনাথের ১৫০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করি তা বাংলা ভাষার কবি এবং বাঙালি কবি বলেই বিশেষভাবে হয়ে থাকে, আমরা কি রবীন্দ্রনাথের ১৫০তম জন্মবার্ষিকী শেষে মাতৃভাষার শুদ্ধ চর্চা ও সর্বস্তরে প্রয়োগের ব্যাপারে চিন্তা করতে পারি না?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : রবীন্দ্রনাথই মনে করতেন শিক্ষা হতে হবে মাতৃভাষার মাধ্যমে। এটা ছিল শিক্ষার ক্ষেত্রে তার প্রধান শর্ত। মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষা না হলে সেই শিক্ষাটা স্বাভাবিক হবে না, গভীরও হবে না এবং তা তাৎপর্যপূর্ণও হবে না। কাজেই তিনি মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষার কথা বলতেন বা ভাবতেন এবং তিনি মনে করতেন শিক্ষার যে পরিবেশ সেটা হবে স্বাভাবিক প্রকৃতি সংলগ্ন। এই যে মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষাদান এখনও এটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। শিক্ষা ক্ষেত্রে রবীন্দ্রনাথের বিজ্ঞানমনস্কতাও সমাজে আসেনি। বিজ্ঞান সমাজে খুব অবহেলিত আছে। রবীন্দ্রনাথ বিজ্ঞানে খুব আগ্রহী ছিলেন। তিনি ‘বিশ্ব পরিচয়’ নামে বই লিখেছিলেন। রবীন্দ্রনাথ চাইতেন এক মাধ্যম অর্থাৎ মাতৃভাষার মাধ্যমে হবে শিক্ষা। বহুভাষা মানুষকে বিচ্ছিন্ন করে রবীন্দ্রনাথ মানুষের সমষ্টিগত মুক্তি চেয়েছেন। আমরা সর্বস্তরে মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষা দিতে পারছি না, মাতৃভাষার চর্চা ছাড়া উন্নতিরও পথ নেই, মুক্তির পথ নেই।

Leave a Reply