পুত্রের অপরাধে পিতাকে দিগম্বর, লজ্জাস্থানে আলকাতরা

সরেজমিন – মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চল
লুৎফর রহমান/রাসেল মাহমুদ, মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চল থেকে: মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলে চলছে মধ্যযুগীয় নির্মম নির্যাতন। তুচ্ছ ঘটনায় ডেকে এনে গাছে বেঁধে বিচার করা হচ্ছে বাংলাভাই স্টাইলে। ছেলে গাঁজা সেবন করায় বাবাকে উলঙ্গ করে রাস্তায় ঘোরানো হয়। ন্যাড়া করে মাথা আর লজ্জাস্থানে লাগিয়ে দেয়া হয় আলকাতরা। গলায় ঢোল ঝুলিয়ে ঘোরানো হয় পুরো গ্রাম। ছেলের গালে বাবার জুতাপেটা হয় অপরাধের শাস্তি। দিনের পর দিন এমন অনেক অপকর্ম হলেও ভয়ে মুখ খুলতে পারেন না স্থানীয়রা। জেলা শহর থেকে মাত্র ১৫ কিলোমিটার দূরে পদ্মার চরাঞ্চল ঘুরে পাওয়া গেছে এমন অনেক তথ্য। এক সময় প্রমত্ত পদ্মার ভাঙনে বিলীন হওয়া অনেক জনপদে নতুন করে চর গজানোয় এখন এ চর দখলে রাখতে চলছে স্থানীয় প্রভাবশালীদের প্রতিযোগিতা। ৩০-৩৫ বছর আগে বসতবাড়ি আর ফসলের জমি হারিয়ে অনেকে এলাকা ছেড়েছিলেন।

ভূমিহীন হয়ে কেউ কেউ বাসিন্দা হয়েছেন অন্য জেলায়। সম্প্রতি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রভাবশালীদের অত্যাচার নির্যাতনের মাত্রা আরও বেড়ে গেছে। সদর উপজেলার ১০নং বাংলাবাজার ইউনিয়নের নমঃকান্দি গ্রামে গত মঙ্গলবার স্থানীয় প্রভাবশালীরা এক পরিবারের ওপর বর্বর নির্যাতন চালায়। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সদস্য প্রার্থী পদে আগাম সমর্থন আদায়ের জন্য স্থানীয় সিবিন্দা বাড়ৈ ও তার ছেলে পাপন বাড়ৈকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বাংলাভাই স্টাইলে নির্যাতন করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাপ-ছেলেকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে চালানো হয় নির্যাতন। নমঃকান্দির বাসিন্দারা জানিয়েছেন, স্থানীয় প্রভাবশালী মমেন মাঝি ও তার লোকজন সিবিন্দাকে ধরে নিয়ে নির্যাতন চালায়। মমেন মাঝি আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য সদস্য প্রার্থী। এ ওয়ার্ডে হিন্দু সমপ্রদায় অধ্যুষিত হওয়ায় তাদের আগাম সমর্থন পাওয়ার জন্য মমেন মাঝির লোকজন ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে। প্রভাবশালীরা আওয়ামী লীগ নেতা উপজেলা চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান আনিসের নাম ব্যবহার করে এলাকায় অপকর্ম করছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন। নির্যাতনের শিকার সিবিন্দা বাড়ৈ জানান, ছোটদের ঝগড়াকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার সকালে বিচারের নামে মমেন মাঝির বাড়ির উঠানে তিনি ও তার ছেলে সদ্য এসএসসি উত্তীর্ণ পাপনকে বেঁধে রাখা হয়। এ সময় স্থানীয় প্রভাশালীরা ওই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন। সিবিন্দিা বাড়ৈ ও তার ছেলেকে প্রায় এক ঘন্টা গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়। পরে তার আত্মীয় স্বজন ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সহায়তায় তারা মুক্ত হন। ছাড়ার আগে ছেলেকে জুতাপেটা করতে বিসিন্দাকে বাধ্য করে প্রভাবশালীরা। এ বিষয়ে স্থানীয় ্‌ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম মর্তুজা সরকার জানান, স্থানীয় প্রভাবশালীরা প্রায়ই এ ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে। মঙ্গলবার সিবিন্দা বাড়ৈকে নির্যাতনের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, খবর পেয়ে আমি তাদের মুুক্ত করার উদ্যোগ নিই। এ বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা সেলিম হোসেন জানান, আওয়ামী লীগের নাম ভাঙিয়ে কিছু প্রভাবশালী লোক চরাঞ্চল দখল ও মানুষের ওপর নিনর্যাতন চালাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয় বাংলাবাজার ইউনিয়ন পরিষদ এ কথা হয় ৩১ বছর পরে গ্রামে ভিটামাটি খুঁজতে আসা মিলনের সঙ্গে। এক সময়ে এ এলাকার মহেশপুর গ্রামের বাসিন্দা মিলন। ৩১ বছর আগে নদীভাঙনের শিকার হয়ে এলাকা ছেড়েছিলেন তারা। নিজেদের বসতভিটা এলাকায় আবার চর জেগেছে এই খবর পেয়ে ওই দিন তিনি ঢাকা থেকে বাংলাবাজার গিয়েছিলেন নিজেদের জমি ভিটা ফিরে পাওয়ার আসায়। তবে তার কোন হদিস পাননি। কোথায় তাদের বাড়ি আর জমি ছিল তা আমিন এনে খুঁজে বের করতে পরামর্শ দেন স্থানীয় ইউপি চেয়াম্যান গোলাম মর্তুজা। আর এ আশ্বাস পেয়ে মিলন ফিরে যান ঢাকায়। একই সময়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে জমি দখলের অভিযোগ নিয়ে যান মহেশপুর গ্রামের আবদুল আউয়াল। তিনি জানান, তার ৫৬ শতাংশ জমি তার চাচাতো ভাইয়েরা দখল করে নিয়েছে। ওই জমি তার চাচাতো ভাই হারুনুর রশিদ এলাকার আরেক প্রভাবশালী মোফাজ্জল সরকারের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন। মোফাজ্জল সরকার বাংলাবাজার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান। এখন ঢাকায় ব্যবসা করেন। এলাকায় তার বিরুদ্ধে জমি দখল ও প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ রয়েছে। মোফাজ্জল এবারও ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী হতে এলাকায় রাস্তার মোড়ে মোড়ে রঙিন বিলবোর্ড লাগিয়ে রেখেছেন। বর্তমান চেয়ারম্যান গোলাম মর্তুজা বিএনপি নেতা ও স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় তার সঙ্গে মোফাজ্জল সরকারের দা-কুমড়োর সম্পর্ক। তারা এলাকায় একে অন্যকে ঘায়েল করতে ঘটাচ্ছেন একের পর ঘটনা। সম্প্রতি মোফাজ্জল সরকারের একটি মাইক্রোবাস ভাঙচুরের ঘটনা এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় হয়। মোফাজ্জল সরকার দাবি করেছেন, গোলাম মর্তুজার লোকজন তার গাড়ি ভেঙেছে। আর গোলাম মর্তুজা জানিয়েছেন, মোফাজ্জল নিজে গাড়ি ভেঙে তার ওপর মামলা দিয়েছেন। ভাঙচুর করা ওই গাড়িটি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বাংলাবাজার ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের সামনে পড়েছিল। স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, গাড়ি ভাঙচুরের দিন সাবেক চেয়ারম্যান মোফাজ্জল নিজেই একটি ভ্যান গাাড়িতে করে বাংলাবাজার এলাকায় মাইকিং করে তার গাড়ি ভাঙচুরের বিষয়টি প্রচার করে এর বিচার দাবি করেন। মোফাজ্জল একাধিক বিয়ে করেছেন। এলাকায় দখল ও প্রভাব খাটানোর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি এ ইউনিয়নের প্রথম চেয়ারম্যান। দখল আর প্রভাব খাটানোর বিষয়টি আমার প্রতিপক্ষ ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মর্তুজা হিংসার বশে প্রচার করছেন। আমি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি। রাস্তায় হাঁটলে মানুষ সালাম দেয়। আমিও উত্তর দিই। নারীর প্রতি আমার কোন দুর্বলতা নেই। ব্যবসা করে জীবন চালাই। মোফাজ্জল এলাকায় তার প্রতিপক্ষ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে সন্ত্রাসী ও দখলবাজ আখ্যা নিয়ে বেশ কয়েকটি অভিযোগপত্র স্থানীয় প্রশাসন এমনকি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরেও পাঠিয়েছেন। মোফাজ্জল তার অভিযোগপত্রে শুরুতে দাবি করেন তার দেয়া অভিযোগের একটিও মিথ্যা হলে তিনি যে কোন শাস্তি মাথা পেতে নেবেন। এসব অভিযোগপত্রে ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক স্থানীয় লোকজনের জমি দখল, বিচারের নামে টাকা আদায় এবং লোকজনকে নির্যাতনের অভিযোগ করেন। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে করা কিছু অভিযোগের সত্যতাও পাওয়া যায় এলাকা ঘুরে। বিচারের নামে এলাকার নিরীহ মানুষকে নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। কিছুদিন আগে তেমনি এক ঘটনা ঘটে। ছেলের গাঁজা সেবনের বিচার করতে গিয়ে এলাকার জেলে সম্প্রদায়ের মরণ দাস ও তার ছেলেকে মাথা ন্যাড়া করে আলকাতরা লাগানো হয় গোলাম মর্তুজার নির্দেশে। শুধু তাই নয়, তার গোপন অঙ্গেও লাগানো হয় আলকাতরা। পরে গলায় ঢোল ঝুলিয়ে ঘোরানো হয় পুরো বাজার। জেলা বিএনপির এই নেতার বিরুদ্ধে আছে চরের জমি দখলেরও অভিযোগ। বাংলাবাজারে বারেক মোল্লা নামের এক বৃদ্ধ অভিযোগ করেন চরবানিয়াল মৌজায় তার শ্বশুরের ১২০ শতাংশ জমি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দখল করে নিয়েছেন। ১৮৯৮ খতিয়ানের ২০২২ ও ২০২৫ দাগের জমির কাগজ দেখিয়ে তিনি বলেন, কাগজপত্র থাকলেও চেয়ারম্যানের কাছ থেকে জমি উদ্ধার করা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মর্তুজা জানান, ক্ষমতাসীন দলের পরিচয়ে স্থানীয় কিছু সন্ত্রাসী এলাকায় জমি দখল ও এলাকার লোকজনের ওপর অত্যাচার নির্যাতন হামলা ও চাদাঁবাজি করছে। তাদের নিজেদের জমিও অন্যরা চাষাবাদ করে খাচ্ছে। অন্যের জমি দখলের অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, কাগজপত্র থাকলে যার যেখানে জমি ছিল তা তারা ফিরে পাবে। তিনি জানান, মালিক না থাকায় অনেক জমি এলাকার লোকজন চাষাবাদ করে খাচ্ছে। এদিকে সদর উপজেলার চরাঞ্চল মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন সন্ত্রাসের জনপদে পরিণত হয়েছে। আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই এলাকায় প্রায়ই বন্দুকযুদ্ধ ও ব্যাপক বোমাবাজির ঘটনা ঘটছে। প্রভাব বিস্তার করতে গিয়ে এক পক্ষ আরেক পক্ষের জমি ও ফসল দখল এবং এলাকা থেকে বের করে দিতেও কুণ্ঠা করছে না। নিজের প্রভাব ধরে রাখার জন্য এলাকায় চলছে চাঁদাবাজি। নিজের বাড়িতে থাকলেও সন্ত্রাসীদের চাঁদা দিতে হয়। এলাকায় সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনায় বহুসংখ্যক মামলা হয়েছে। এলাকা থেকে পুলিশ উদ্ধার করেছে গুলি ও অস্ত্র। এর আগে জাজিরা সৈয়দপুর এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জামাতা ও শ্বশুরকে একসঙ্গে গুলি করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এলাকায় অরাজক পরিস্থিতির কারণে সেখানে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প বসানো হয়েছে। এখানে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শাহ আলম মল্লিক, কল্পনা মল্লিকের সঙ্গে একই দলের মোস্তফা মোল্লা নুরুল আমিন এবং আজিজ মল্লিকের বিরোধকে কেন্দ্র করে ঘটছে নানা অঘটন। স্থানীয় বিএনপি নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান আজিজ মল্লিক মোস্তফা মোল্লার পক্ষে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে মদত দিচ্ছেন। সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও সংঘর্ষের আশঙ্কায় প্রতিনিয়তই আতঙ্কিত থাকেন, কংসপুরা, আমঘাটা, চরডুমুরিয়া, ও লোকজন। এছাড়া জেলার টঙ্গিবাড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জগলুল হালদার ভুতুর বিরুদ্ধে এলাকায় দখল ও প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ রয়েছে। দীঘিরপাড়, কামারখাড়া ও হাসাইল বানারি ইউনিয়নের চরাঞ্চলে প্রতিটি গ্রামেই তার লোকজনের ভয়ে মানুষ তটস্থ। ওই এলাকায় পদ্মায় জেগে ওঠা চরের শ’ শ’ একর জমি তিনি নিজের দখলে নিয়েছেন। অন্যদিকে সিরাজদিখান উপজেলার চরাঞ্চলেও চলছে দখল এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। সদর উপজেলার চরাঞ্চলে সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিষয়ে জানতে চাইলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম জানান, স্থানীয় একজন সাংবাদিক পরিচয়ে বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছে। তবে ঘটনার শিকার কেউ এমন অভিযোগ করেনি। ইউনিয়ন নির্বাচনকে সামনে রেখে চরাঞ্চলে অস্থিরতা রয়েছে বলে তিনি জানান। চরে সন্ত্রাস দখলবাজির বিষয়ে তিনি বলেন, সন্ত্রাস নৈরাজ্য এ এলাকায় বহু আগে থেকে চলে আসছে। আগে চরাঞ্চলে খুনোখুনি হতো। গত দুু’বছরে অনেক ঘটনা ঘটলেও খুনের কোন ঘটনা ঘটেনি। এ বিষয়ে জেলার পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চরাঞ্চলে যাতে সহিংস কোন ঘটনা ঘটতে না পারে সেজন্য এখন থেকেই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য প্রতি ইউনিয়নের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে স্ব স্ব ইউনিয়নে পুলিশ সুপার ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে বৈঠক করা হচ্ছে। পরে চূড়ান্ত প্রার্থীদের নিয়ে থানায় আলাদা বৈঠক করে পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখার প্রতিশ্রুতি আদায় করা হবে।

Leave a Reply