টঙ্গিবাড়িতে পদ্মা তীর সংরক্ষণ বাঁধে ভাঙন

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়িতে পদ্মার তীর সংরক্ষণ বাঁধের বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দিয়েছে। উপজেলার পাঁচগাঁও ইউনিয়নের চিত্তকড়া গ্রাম থেকে হাসাইল পর্যন্ত নির্মিত পদ্মা নদী তীর সংরক্ষণ বাঁধের বিভিন্ন স্থানে ব্লক সরে গিয়ে এ ভাঙন দেখা দেয়।

জানা যায়, টঙ্গিবাড়ি উপজেলার হাসাইল বানারী ও পাঁচগাঁও এলাকায় তীব্র নদী ভাঙন দেখা দিলে ২০০৭-২০০৮ অর্থ বছরে ২.৪৪৩ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের জন্য ৯০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। পরে এ প্রকল্পটিকে ১০টি প্যাকেজে ভাগ করা হয়। ৬টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দরপত্রের মাধ্যমে কাজ পেয়ে ব্লক তৈরির কাজ শুরু করে। ২০০৯ সাল থেকে নদীর তলদেশ হতে ব্লকগুলো ফেলে পদ্মা নদী তীর সংরক্ষণ বাঁধ তৈরি করা হলে এ এলাকার ব্যাপক ভাঙন বন্ধ হয়ে যায়। আশার আলো দেখতে থাকে এ অঞ্চলের মানুষ। এর মধ্যে গত বছর বাঁধের কিছু কিছু অংশে ভাঙন দেখা দিলে তাতে ব্লক বসিয়ে পুনরায় সংস্কার করা হয়। কিন্তু প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলেই বাঁধের বিভিন্ন স্থানের ব্লক সরে গিয়ে গভীর ক্ষতের সৃষ্টি হয়ে। ক্ষতস্থান ধিরে ধিরে বড় হয়ে বর্তমানে ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে। যে কোনো সময় বাঁধটি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে বলে স্থানীয় এলাকাবাসী আশঙ্কা প্রকাশ করছেন।

চুক্তি মোতাবেক ২/১টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ভাঙন স্থানে ব্লক ফেলে পুনরায় সংস্কার করলেও অপর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাদের চুক্তি মোতাবেক কাজ করছে না। বর্তমানে নদীতে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই ত্বরিত গতিতে বাঁধ মেরামত না করা হলে পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে ব্যাপক ভাঙনের শিকার হতে পারে এলাকাবাসী।

এ প্রসঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. আরিফুল ইসলাম জানান, সংরক্ষণ বাঁধের ক্ষতস্থানগুলো জিও ব্যাগ ফেলে মেরামতের কাজ চলছে।

Leave a Reply