দ্বন্দ্বে পুড়ছে মুন্সীগঞ্জ আওয়ামী লীগ

লুৎফর রহমান/ রাসেল মাহমুদ, মুন্সীগঞ্জ থেকে: দ্বন্দ্বে পুড়ছে মুন্সিগঞ্জ আওয়ামী লীগ। জেলার এক সময়ের দাপুটে নেতা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনকে দমিয়ে রাখতে একাট্টা জেলার সংসদ সদস্য ও অন্য নেতারা। তাদের সঙ্গে আছেন জেলার বাসিন্দা একজন কেন্দ্রীয় নেতাও। মহিউদ্দিনকে ঠেকাতে প্রয়োজনে তারা হাত মেলান বিরোধী দলের লোকজনের সঙ্গেও। চলে সর্বদলীয় মিশন। মহিউদ্দিনের অনুসারীদের দমিয়ে রাখতে প্রয়োজনে তারা সুবিধা দেন বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের। অন্য দিকে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিনের পারিবারিক বিরোধও কূরে খাচ্ছে স্থানীয় আওয়ামী লীগকে। বিএনপি’র দুর্গ বলে খ্যাত এ জেলার তিনটি আসনেই গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। স্থানীয় নেতাদের দাবি বিএনপি’র সময়ের অত্যাচার-নির্যাতনের কারণে স্থানীয় লোকজন আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করেছে। তবে নির্বাচনের পর দলীয় সরকার ক্ষমতায় থাকলেও পরিস্থিতি নিজেদের অনুকূলে রাখতে পারছেন না আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা। জেলার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড এখন চলছে দুই ধারায়। একদিকে জেলা সভাপতি মহিউদ্দিন সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছেন; অন্যদিকে জেলার সংসদ সদস্যরা নিজেদের মতো করে এলাকা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী দেয়াকে কেন্দ্র করে তারা দ্বন্দ্বে জড়াচ্ছেন জেলা সভাপতির সঙ্গে। সর্বশেষ মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে এই দ্বন্দ্বের খেসারত হিসেবে সেখানে বিএনপি নেতা একেএম ইরাদত মানু মেয়র নির্বাচিত হন। দলের পক্ষে সেখানে মহিউদ্দিনের ছেলে ফয়সাল বিপ্লব প্রার্থী হলেও পরে স্থানীয় সংসদ সদস্য এম ইদ্রিস আলী ও অন্য একজন কেন্দ্রীয় নেতার হস্তক্ষেপে সেখানে জাতীয় পার্টির এডভোকেট মুজিবুর রহমানকে মহাজোটের প্রার্থী করা হয়। এই পৌরসভায় মহাজোট সমর্থিত মুজিবুর রহমানের পক্ষে জেলার সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতারা কাজ করেন। তবে নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী ভোট পান মাত্র ৫ হাজার। আর আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রাথী মহিউদ্দিনের ছেলে বিপ্লব পান ১১ হাজার ভোট। মাত্র এক হাজার ভোটের ব্যবধানে তিনি পরাজিত হন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শহরের সনাতন ধর্মাবলম্বী অধ্যুষিত এলাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী ভোট পাওয়ার কথা থাকলেও সেখানে বেশি ভোট পড়ে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে। এতে বিপ্লব সমর্থকরা প্রচার করেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের কেউ কেউ বিপ্লবকে হারাতে বিএনপি’র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন। স্থানীয় নেতা-কর্মীদের ধারণা, দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করার কোন লক্ষ্য ছিল না স্থানীয় সংসদ সদস্য ও ওই কেন্দ্রীয় নেতার। তারা চেয়েছিলেন বিপ্লবকে ঠেকাতে। আর সেখানে তারা সফল হয়েছেন। তবে নিশ্চিত বিজয় হাতছাড়া হয় আওয়ামী লীগের।

এর আগে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও দলীয় সমর্থন চেয়েছিলেন ফয়সাল বিপ্লব। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও অন্য নেতারা সমর্থন দেন আনিছুজ্জামান আনিসকে। পরে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে বিপ্লব নির্বাচন করেন। নির্বাচনে চাচার কাছে হেরে যান ভাতিজা। সমপ্রতি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জেলা নেতা মহিউদ্দিনের সঙ্গে স্থানীয় সংসদ সদস্যদের বিরোধ দেখা দিয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি বিরোধে জড়াচ্ছেন মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি সাবেক সচিব এম ইদ্রিস আলী। জেলা সভাপতি উপজেলা ও স্থানীয় নেতাদের নিয়ে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করার প্রক্রিয়া চালালেও সংসদ সদস্য তার বলয়ের প্রার্থীকে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা দিয়ে মাঠে নামিয়েছেন।

জাতীয় নির্বাচনের পর উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে জেলা আওয়ামী লীগে নতুন করে মেরুকরণ শুরু হয়। এই দুই নির্বাচনে জেলা নেতাদের বিতর্কিত অবস্থান ও ব্যক্তিস্বার্থ কেন্দ্রিক আচরণের কারণে ক্ষুব্ধ দলের কর্মী-সমর্থকরা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চিফ সিকিউরিটি অফিসার ছিলেন মোহাম্মদ মহিউদ্দিন। রাজনীতি শুরু ছাত্রজীবন থেকে। স্বাধীনতার পর মূল ধারার রাজনীতিতে আসেন। সে সময় থেকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা হয়ে ওঠেন তিনি। তখন তার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতেন তার ছোট ভাই আনিছুজ্জামান আনিসের মাধ্যমে। পরে বিগত আওয়ামী লীগের সময় পৌর নির্বাচনে আনিস পৌর চেয়ারম্যান হন। ওই সময় শহরের মসজিদের পাশের একটি জমির লিজকে কেন্দ্র করে দুই ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এই বিরোধের জের ধরে বিগত বিএনপি সরকারের সময় দুই ভাইয়ের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে গুলিতে মারা যান তাদের ভাইপো তৎকালীন শহর ছাত্রলীগের সভাপতি তাপস। এ ঘটনায় সে সময়ের জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিউদ্দিনকে প্রধান আসামি করে মামলা করা হয়। তাপসের মায়ের পক্ষ হয়ে মামলা করেন আনিছুজ্জামান আনিস। ঘটনার রাতেই শহরের কোর্টগাঁয়ের নিজ বাসভবনে অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে গ্রেপ্তার হন মহিউদ্দিন ও তার ছেলে বিপ্লবসহ দলের আট নেতা-কর্মী। মহিউদ্দিন জেলে থাকায় দলীয় কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে পড়ে। আর এ সুযোগে রাজনৈতিক মাঠে নিজের অবস্থান শক্ত করে নেন আনিস। বিএনপি’র শেষ সময়ে মহিউদ্দিন মুক্তি পান। সক্রিয় অংশ নেন বিএনপি’র সরকার পতনের আন্দোলনে। ওই সময় ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে অবরোধসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে তিনি তৎপর ছিলেন। তবে গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শুরুতেই তিনি আরেক দফায় বিপদে পড়েন। সে সময়ের করা দুর্নীতিবাজ প্রথম ৫০ জনের তালিকায় তার নাম আসায় তিনি আত্মগোপনে চলে যান। ফের সুযোগ কাজে লাগান আনিস। ওই সময় থেকেই সদর আসনের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য দৌড়-ঝাঁপ শুরু করেন সাবেক সচিব ও বর্তমান সংসদ সদস্য এম ইদ্রিস আলী। তখন আনিসও নামেন মনোনয়নের লড়াইয়ে। রিকাবী বাজারের একটি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত তৃণমূল নেতাদের সভায় নিজের পক্ষের লোকজনের মাধ্যমে সমর্থন আদায় করেন আনিস। ওই সভায় তৃণমূলের সমর্থনের দিক দিয়ে চতুর্থ হলেও দলের হাইকমান্ডের আনুকূল্য পেয়ে দলীয় প্রার্থী হন এম ইদ্রিস আলী। পরে মহাজোটের হয়ে এ আসনে প্রার্থী হন জাতীয় পার্টির এডভোকেট মুজিবুর রহমান। তবে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষেই এক হয়ে কাজ করেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। নির্বাচনের দিন শহরের প্রধানকেন্দ্র বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে নিজের কোন এজেন্ট না পেয়ে মনঃক্ষুণ্ন হন ইদ্রিস আলী। এ কেন্দ্রে আগে থেকেই দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল জেলা আওয়ামী লীগ নেতা আনিসকে। এ ঘটনায় আনিছুজ্জামান আনিস ও এম ইদ্রিস আলীর মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়। তবে গত পৌর নির্বাচনে নিজের ভাইপোকে ঠেকাতে আবার ইদ্রিস আলীর সঙ্গে একাট্টা হন আনিস। এদিকে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর প্রকাশ্যে আসেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন। শহরের কাচারিঘাট বালুর মাঠে তাকে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়। সেখানে তার দেয়া বক্তব্যকে কেন্দ্র করে সংসদ সদস্য এম ইদ্রিস আলীর সঙ্গে নতুন করে দূরত্ব সৃষ্টি হয়। এদিকে জেলার সংসদ সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি, জেলার বাসিন্দা কেন্দ্রীয় নেতা ও উপজেলা চেয়ারম্যানরা যার যার মতো করে দলীয় কর্মকাণ্ড চালাচ্ছেন। ব্যক্তিগত সুযোগ-সুবিধা বুঝে স্থানীয় নেতা-কর্মীরাও একেক সময় একেক জনের পক্ষ নিচ্ছেন। দলের নাম ভাঙিয়ে যখন যাকে দরকার তার মাধ্যমে সুবিধা আদায় করছেন তারা। টেন্ডারবাজি, বালুমহাল ভাগবাটোয়ারাসহ বিভিন্ন অবৈধ কাজ করছেন কেউ কেউ। সম্প্রতি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে শুরু হয়েছে নতুন মেরুকরণ। কেন্দ্রীয়ভাবে যোগ্য ও গ্রহণযোগ্য প্রার্থীকে দলীয়ভাবে সমর্থন দেয়ার জন্য বলা হলেও নিজেদের পছন্দের প্রার্থী দিতে বিভক্ত গ্রুপের নেতারা যার যার মতো কাজ করছেন। স্থানীয়ভাবে অভিযোগ উঠেছে, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দল সমর্থিত প্রাথী দেয়া হবে বলে সম্ভাব্য প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকাও নিচ্ছেন কোন কোন নেতা। নেতাদের এই মনোনয়ন বাণিজ্যের কারণে দলীয় প্রার্থীদের নির্বাচনের ফলে প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন স্থানীয় কর্মী-সমর্থকরা। দলীয় কর্মসূচি পালনের ক্ষেত্রেও দেখা যায় একই চিত্র। দলীয় কোন কর্মসূচি থাকলে সেখানে একপক্ষের নেতারা উপস্থিত হলে অন্যপক্ষ থাকেন অনুপস্থিত।

জেলার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের বিষয়ে জেলা নেতা সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আনিস জানান, মুন্সীগঞ্জে দলীয় কার্যক্রম বলতে কিছু নেই। এখানে দল চালাচ্ছেন এক ব্যক্তি। তার কথা মতোই সব হয়। তিনি জানান, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে একক প্রার্থী ঠিক করার জন্য সবাইকে নিয়ে বৈঠক করতে জেলা সভাপতিকে বলা হয়েছে। কিন্তু এ পর্যন্ত বৈঠকের কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি জেলার পাবলিক প্রসিকিউটর এডভোকেট আবদুল মতিন জেলার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের বিষয়ে হতাশা প্রকাশ করে বলেন, জেলা নেতাদের বিভক্তির কারণে দল চলছে না। কোন কর্মকাণ্ড নেই। এ অবস্থা চললে আগামী নির্বাচনেও এর প্রভাব পড়বে। তিনি জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং জেলা নেতাদের মধ্যে সমন্বয় নেই। শহর আওয়ামী লীগের এ নেতা জানান, প্রায় সাত বছর আগে জেলা কমিটির কাউন্সিল হয়েছিল। আর শহর কমিটিও চলছে ছয় বছর ধরে। বারবার বলা হলেও কাউন্সিলের কোন উদ্যোগ নেয়া যাচ্ছে না। জেলার সাংগঠনিক স্থবিরতার বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, জেলা সাংগঠনিক কাজের দায়িত্ব নির্বাচিত কমিটির ওপর। এখানে সংসদ সদস্যের কোন এখতিয়ার নেই। কিন্তু প্রায়ই স্থানীয় সংসদ সদস্য দলীয় কর্মকাণ্ডে হস্তক্ষেপ করেন। এতে নেতা-কর্মীদের মাঝে বিভেদ তৈরি হচ্ছে। আর এই বিভেদে ব্যক্তির চেয়ে দল বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

Leave a Reply