আড়িয়ল বিলেই হচ্ছে বিমানবন্দর!

লুৎফর রহমান/রাসেল মাহমুদ, মুন্সীগঞ্জ থেকে : আড়িয়ল বিলেই বিমানবন্দর হচ্ছে। এমন জল্পনা পুরো আড়িয়ল বিল এলাকার মানুষের মাঝে। স্থানীয় সংসদ সদস্য বলছেন, এলাকার মানুষ চাইলে আড়িয়ল বিলেই বিমানবন্দর হবে। প্রতি বছর বিলের খাসজমি কৃষকদের লিজ দেয়া হলেও এবার দেয়া হয়নি। বিমানবন্দর না করার ঘোষণা দেয়া হলেও মাঝেমধ্যে বিল এলাকায় সার্ভেয়ার যান সরকারি জমি মাপতে। এসব কারণে আড়িয়ল বিলেই বিমানবন্দর হচ্ছে- এমন ধারণা করছেন স্থানীয় লোকজন। এ নিয়ে মানুষের মাঝে আছে চাপা ক্ষোভও। প্রতি বছরের মতো এবার সরকারি খাসজমি লিজ না দেয়ায় কেউ কেউ ভাবছেন বিমানবন্দর প্রকল্পকে সামনে রেখেই সরকারি জমি লিজ দেয়া বন্ধ রাখা হয়েছে। বিল এলাকার বাসিন্দারা এমন আরও আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ জানান, সরকার আড়িয়ল বিল এলাকায় বিমানবন্দর নির্মাণের প্রকল্প বাতিল করেনি। পরিস্থিতির কারণে তা স্থগিত করা হয়েছে। এলাকার জনগণ চাইলে এখানে বিমানবন্দর হবে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, এখানে বিমানবন্দর হলে এলাকার উন্নয়ন হবে। মানুষের সুযোগ-সুবিধা বাড়বে। বিমানবন্দর হলে ক্ষতির চেয়ে এলাকার লাভ হবে বেশি। স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, বিমানবন্দর করার সুবিধার বিষয়টি লোকজনকে বুঝিয়ে পক্ষে আনার লক্ষ্যে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা কাজ করছেন। তবে সামনে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও ধান তোলার মওসুম হওয়ায় আপাতত এ নিয়ে কোন আলোচনা হচ্ছে না।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন শেষ হলে এ প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে বিমানবন্দর প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত সূত্র জানিয়েছে। এদিকে এলাকা ঘুরেও পাওয়া গেছে এমন আভাস। বিমানবন্দর নির্মাণকে কেন্দ্র করে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতেও প্রভাব পড়েছে। তাড়াহুড়ো করে বিমানবন্দর নির্মাণ প্রকল্প হাতে নেয়া, সেখানে জমি অধিগ্রহণের লক্ষ্যে স্থানীয় প্রশাসনের বাড়াবাড়ির কারণে আওয়ামী লীগের জনপ্রতিনিধি ও নেতাদের সঙ্গে এলাকার সাধারণ মানুষের দূরত্ব তৈরি হয়েছে। নেতারা জানিয়েছেন, এই দূরত্ব কাটিয়ে উঠতে সময় লাগবে। আর মানুষকে সম্মত করে এখানে বিমানবন্দর নির্মাণ করতে হলেও অনেক সময়ের প্রয়োজন হবে। সূত্র জানায়, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের কারণে বিমানবন্দর নিয়ে এলাকায় কোন আলোচনা হচ্ছে না। নির্বাচনের পর এলাকায় লোকজনকে বিমানবন্দরের সুবিধার বিষয়টি বোঝানো হবে। এজন্য বিভিন্ন উদ্যোগও নেয়া হবে। বিল ও এর আশপাশের এলাকার বাসিন্দারা এখানে বিমানবন্দরের ঘোর বিরোধী হলেও জেলা সদরের কিছু লোক ও বিল থেকে দূরবর্তী এলাকার কিছু গ্রামের লোকজন বিমানবন্দর নির্মাণের পক্ষে।

কারণ এখানে বিমানবন্দর নির্মাণ হলে এসব গ্রামের লোকজনের সুবিধা হবে। সুবিধাগত দিক দিয়ে যেসব গ্রামের লোকজন বিমানবন্দর নির্মাণের পক্ষে, তাদের সংগঠিত করে বিমানবন্দরের পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে জনপ্রতিনিধিদের পরিকল্পনা রয়েছে। তবে সবকিছু নির্ভর করবে স্থানীয় লোকজনের মনোভাবের ওপর। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিল এলাকার মদনখালী, মরিচপট্টি, হাঁসাড়া, শ্রীনগরের অংশবিশেষ, কামারগাঁও, বারইখালী, লস্করপুর, সোনারগাঁও, পুটিমারা ষোলঘর, মুন্সিরহাটি, বালাসুর, ওমপাড়া, বাইনাবাড়ী এলাকার লোকজন বিমানবন্দর নির্মাণের ঘোর বিরোধী। এ ছাড়া বিল এলাকা থেকে দূরের নিমতলা, দক্ষিণ শ্রীনগর, জয়পাড়া ও মুন্সীগঞ্জের পার্শ্ববর্তী চর এলাকার অনেকে বিমানবন্দরের পক্ষে। বিমানবন্দরের পক্ষের লোকদের কাজে লাগিয়ে বিপক্ষের সমর্থন আদায়ের কৌশলে এগোচ্ছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। গত ডিসেম্বরে আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণকে কেন্দ্র করে এলাকায় যে জনরোষ তৈরি হয়েছিল, এর রেশ এখনও কাটেনি। বিমানবন্দর নির্মাণ ঠেকাতে স্থানীয় লোকজনকে নিয়ে গঠন করা আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির কার্যক্রমও সক্রিয় আছে। বারইখালী বাজারে কমিটির স্থায়ী অফিস করা হয়েছে। সেখানে নিয়মিত বসেন কমিটির নেতারা। এ বিলে বিমানবন্দর নির্মাণ ঠেকাতে গিয়ে মামলা মাথায় নিয়ে ঘুরছেন এলাকার ২০ হাজার মানুষ।

এদের মধ্যে ১৫৪ জন আছেন তলিকাভুক্ত আসামি। পৃথক দু’টি মামলায় তাদের আসামি করা হয়েছে। মামলার চার্জশিট না হলেও এই ১৫৪ জনকে নিয়মিত আদালতে হাজিরা দিতে হচ্ছে। আদালতে যাওয়া-আসার খরচও যোগান দিতে হচ্ছে নিজেদের পকেট থেকে। স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, এলাকার বহু লোক এই মামলায় জড়িত বলে পুলিশ কাউকে হয়রানি করছে না। ঘটনার তদন্ত ও ভিডিও ফুটেজ দেখে দায়ীদের চিহ্নিত করা হবে। আর ব্যবস্থা নেয়া হবে কেবল চিহ্নিতদের বিরুদ্ধে। সরজমিন ঘুরে দেখা যায়, আড়িয়ল বিল এলাকায় এখন চলছে ধান তোলার ধুম। বিল এলাকায় এবার ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। আলমপুরের কৃষক দীন ইসলাম শিকদার জানান, এলাকার মানুষ চাইলে এখানে বিমানবন্দর হবে। এখনও মাঝেমধ্যে প্রশাসনের লোকজন বিলে যায় সার্ভে করতে। আকাশে হেলিকপ্টার চক্কর দেয়। এলাকার কৃষক সাজেদ জানান, সরকার কৌশলে হয়তো এই এলাকায়ই বিমানবন্দর করতে চাইছে।

আড়িয়ল রক্ষা কমিটির আহবায়ক মো. শাহজাহান বাদল জানান, স্থানীয় এমপি ও গণপূর্ত মন্ত্রীর বক্তব্যে এলাকার অনেকে সন্দেহ করছেন যে সরকার আড়িয়ল বিলেই বিমানবন্দর পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে। তবে বিল এলাকার মানুষ এখানে কোনভাবেই বিমানবন্দর হতে দেবে না। আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটি এখনও আছে। সামনে আবারও বিমানবন্দর স্থাপনের কোন প্রক্রিয়া শুরু হলে কমিটি এর বিরোধিতা করবে। এ বিষয়ে শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন ঢালি জানান, প্রশাসনের তাড়াহুড়ার কারণে বিমানবন্দর নির্মাণ নিয়ে সরকার ও স্থানীয় আওয়ামী লীগকে বিপাকে পড়তে হয়েছে। পুুলিশ হত্যার ঘটনায় এলাকার বহু লোক মামলায় জড়িয়েছে। এতে দলীয়ভাবে আওয়ামী লীগের ক্ষতি হয়েছে।

তিনি জানান, এ অবস্থায় এখন খুব শিগগির এই এলাকায় বিমানবন্দরের উদ্যোগ নেয়া যাবে না। কারণ এলাকার মানুষ এখন ক্ষুব্ধ। সরকারি জমি লিজ না দেয়ার বিষয়ে তিনি জানান, লিজ দেয়া না হলেও সরকারি জমির বেশির ভাগই তো কারও না কারও দখলে। লিজ না দিলেও জমি অনাবাদি থাকবে না।

উল্লেখ্য, মুন্সীগঞ্জের আড়িয়ল বিলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিমানবন্দর নির্মাণকে কেন্দ্র করে গত ৩১শে জানুয়ারি স্থানীয় জনতার সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ঘটে। স্থানীয় লোকজনের হাতে নিহত হন পুলিশের এসআই মতিউর রহমান। বিলে সহিংস ঘটনার পর কয়েক হাজার লোককে আসামি করে পুলিশের পক্ষ থেকে মামলা করা হয়। এ ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা করেন ‘জনগণ না চাইলে আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর হবে না।’ আড়িয়ল বিলে ২৫ হাজার একর জমি নিয়ে বিমানবন্দর করার পরিকল্পনা ছিল সরকারের।

Leave a Reply