ভূমিকম্প ও সুনামির দুই মাস পূর্তিতে

রাহমান মনি
১১ মার্চ জাপানে ভয়াবহ ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট সুনামিতে বিপর্যয়ের দুই মাস পূর্তিতে জাপানের প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান ১০ মে তার কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন। সাংবাদিক সম্মেলনে কান বলেন, বিপর্যয়ের দুই মাস পূর্তিতে আমি আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি, জাপানের বর্তমান পরিস্থিতিতে আপনাদের সহযোগিতায়, জাপানি জনগণের সহযোগিতায়, আমাদের বিদেশি বন্ধুদের সহযোগিতায় আমরা কতটুকু পরিস্থিতি সামাল দিতে পেরেছি তা আপনাদের সামনে তুলে ধরতে। তবে হ্যাঁ বলতে দ্বিধা নেই যে, যত দ্রুত এবং যতটুকু করা উচিত ছিল তা আমরা করতে পারিনি কিন্তু আমাদের আন্তরিকতায় কোনো অভাব ছিল না। সরকারপ্রধান হিসেবে একজন নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে এ ব্যর্থতার দায় কিছুটা আমারও। আমি তার দায় স্বীকার করছি।

আপনারা জানেন, দুর্ঘটনার পর থেকে স্থানীয় জনগণ, প্রশাসন এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। এর মধ্যে ফুকুশিমা পরমাণু দুর্যোগ কাজের গতিকে মারাত্মক ব্যাঘাত সৃষ্টি করেছে। গত গোল্ডেন উইকে (২৯ এপ্রিল থেকে ৫ মে) জাপানের বিভিন্ন স্থান থেকে ৮০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক দুর্গত এলাকাগুলোতে কাজ করেছে জাপান পুনর্গঠনের জন্য। আমি নিজেও ফুফুশিমা, সাইতামা গিয়েছি। আশ্রয় কেন্দ্রগুলো ঘুরে আশ্রিতদের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি অনুভব করেছি, তারা একদিন আগে হলেও নিজ গৃহে, আবাসস্থলে ফিরে যেতে চায়। স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে চায়। আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে তাদের প্রাইভেসির সীমাবদ্ধতা আমি অনুভব করেছি। আমি এবং আমাদের সরকারও চায় যতদ্রুত সম্ভব সবাইকে স্বাভাবিক জীবনে, কর্মজীবনে, ব্যক্তিগত জীবনে ফিরিয়ে দিতে।

কান আরো বলেন, ফুকুশিমা পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র, মিয়াগি ভূমিকম্প এবং সুনামি বিপর্যয়ে আমাদের শুধু সামাল দিলেই চলবে না, আমাদের শিক্ষা নিতে হবে কিভাবে ভবিষ্যতে এ ধরনের বিপর্যয় থেকে রক্ষা করা যায়। পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো আরো সুরক্ষিত করা যায়। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ওপর হয়ত আমাদের সীমাবদ্ধতা আছে কিন্তু উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলার যথেষ্ট প্রস্তুতি থাকতে হবে। যেসব স্থানে পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র আছে আমি নির্দেশ দিয়েছি সেগুলো শনাক্ত করে যুগোপযোগী করে তোলার জন্য এবং সুরক্ষিত করার জন্য।

কান বলেন, আপনারা জানেন, জাপানের বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, আগামী ৩০ বছরের মধ্যে মধ্য জাপানে ৮ মাত্রার চেয়েও বড় ভয়াবহ ভূমিকম্পের আশঙ্কা ৮৭%। জাপানি স্কেলে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ মাত্রা ৭ পর্যন্ত। যদি ৮ মাত্রায় ভূমিকম্প হয় এবং তাও আবার তোউকাই (মূল শহর) অঞ্চলে তা হলে তার যে ভয়বহতা হবে তা মোকাবিলার সতর্কতা এখন থেকেই নেয়া জরুরি। তাই হামাওকা পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো বন্ধ ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

কান বলেন, আমি আগেও বলেছি এখনো বলছি, জাপানবাসী প্রতিটি মানুষের নিরাপদ জীবন নিশ্চিত করা আমাদের প্রধান দায়িত্ব। আমরা সেই দায়িত্ব পালনে যা যা করণীয় তার সবটাই করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

হামাওকা বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ কার্যকর : প্রধানমন্ত্রী কানের নির্দেশের একদিন পর ১২ মে হামাওকা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৪ নং চুল্লি এবং ১৩ মে ৫ নং চুল্লি স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ১ এবং ২ নম্বর চুল্লি দুইটি আগে থেকেই বন্ধ ছিল। ৩ নম্বর চুল্লি মেরামতের জন্য বন্ধ ছিল। ১৪ মে দুপুর ১টার সময় সবই আনুষ্ঠানিকভাবে স্থায়ী বন্ধ ঘোষণা দেয়া হয়।

দাই-ইচি প্লান্টের কর্মী নিহত : এদিকে প্রথম বারের মতো একজন কর্মীর মৃত্যু নিশ্চিত করেছে জাপান পুলিশ এজেন্সি। ১৪ মে শনিবার এ মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। দাই ইচি প্লান্টে কর্মরত এক আবর্জনা অপসারণ কর্মী সকাল ৬টায় যথাযথ পোশাক এবং প্রস্তুতি সমেত কাজে যোগদান করেন। ৬.৫০ এর সময় তিনি অসুস্থ বোধ করেন এবং কর্মরত অবস্থায় জ্ঞান হারান। তাকে হাসপাতাল নেয়ার কিছুক্ষণ পর তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি। তেজস্ক্রিয়তাজনিত কারণ কি না তা পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। তবে প্রাথমিকভাবে হৃদক্রিয়া বন্ধের কারণে মৃত্যু হয়েছে বলে (গুড়পধৎফরধষ ওহভৎধপঃরড়হ) ধারণা করা হলেও নিশ্চিত হওয়ার জন্য আরো সূক্ষ্ম পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। কারণ ফুকুশিমা পরমাণুর তেজস্ক্রিয়াজনিত কারণে তার মৃত্যু হলে তিনি হবেন প্রথম ফুকুশিমা হিবাকুসা (তেজস্ক্রিয়তার শিকার)। তোশিবা কোম্পানির ষাটোর্ধ্ব এই কর্মীর ইতঃপূর্বে এ কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে এবং কর্ম সময়ে তিনি যথাযথ প্রতিকারক ব্যবস্থা নিয়ে এবং সুস্থ শরীরের কাজে যোগদান করেছিলেন অসুস্থ হওয়ার ৩ ঘণ্টা পর মৃত্যু তার হওয়ায় বিলম্বের কারণটিও খুঁজে দেখা হচ্ছে।

ফুকুশিমা ১ নং চুল্লি ঢেকে দেওয়া হয়েছে : অবশেষে পুরোপুরি আয়ত্তে আনতে না পেরে ফুকুশিমা পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ১নং চুল্লিটি পলিয়েস্টার চাদর দিয়ে ঢেকে দেয়া হয়েছে। অনেক চেষ্টা করেও চুল্লি থেকে ফুয়েল রড গলে যাওয়ার ঘটনা ধরা পড়ার পর বাতাসে যেন তেজস্ক্রিয়তা ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেই জন্য এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

টোকিও ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানি (ঞঊচঈঙ, টেপকো) জানিয়েছে, রাসায়নিক পদার্থ জমাট বাঁধিয়ে ফেলে এমন পদার্থ ¯েপ্র করবে যাতে করে তেজস্ক্রিয়তা বাতাসে ছড়াতে না পারে, পলিয়েস্টার চাদরগুলো স্টিলের ফ্রেমের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে। চাদরে বাতাস চলাচলের জন্য পথ রাখা হবে, তবে যেখানে এয়ারফিল্টার বসানো হবে যাতে করে ভেতরের বাতাস বাইরে গিয়ে তেজস্ক্রিয়তা ছড়াতে না পারে। কারণ ভেতরের বাতাস বাইরে এবং বাইরের বাতাস ভেতরে প্রবেশ করা না হলে কর্মীদের পক্ষে ভেতরে কাজ করা সম্ভব হবে না স্বাভাবিক কারণেই।

জাপান পুলিশ এজেন্সির সর্বশেষ হিসাবে অনুযায়ী ১১ মার্চ ভূমিকম্প এবং সুনামির পরবর্তী সংশ্লিষ্ট কারণে এ পর্যন্ত ১৫০১৯ জন মৃত এবং ৯৫০ জন নিখোঁজ রয়েছেন এবং ২৪০০টি আশ্রয় কেন্দ্রে ১৩ মে পর্যন্ত মোট ১,১৫,০০০ জন আশ্রিত রয়েছেন। তবে তেজস্ক্রিয়তাজনিত কারণে এখনো পর্যন্ত কোনো মৃত্যুর খবর জানা যায়নি।

rahmanmoni@sheptahik.com

Leave a Reply