নিজ জেলায় পরবাসী বি. চৌধুরী

লুৎফর রহমান/রাসেল মাহমুদ/আরিফ হোসেন, মুন্সীগঞ্জ থেকে: অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী। বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব। দায়িত্ব পালন করেছেন স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে। ছিলেন সংসদ উপনেতা, সর্বশেষ ২০০১-এর নির্বাচনের পর প্রেসিডেন্ট। এরপর পদ আর দল ছেড়ে গড়েন বিকল্পধারা বাংলাদেশ।

নিজে দল করার পর প্রথম নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায়ও ছিলেন না তিনি। নির্বাচনের পর এলাকায়ও যান না খুব একটা। তার ছেলে মাহী বি. চৌধুরীও এলাকাবিমুখ। নিজের এলাকায়ই দুরবস্থা দলের। নিজ জেলা ও উপজেলায় নেই দলীয় কার্যালয়। পূর্ণাঙ্গ কমিটিও নেই। শ্রীনগর উপজেলার মজিদপুর দয়হাটা গ্রামে নিজ বাড়িতেও খুব একটা যান না পিতা-পুত্র কেউ। নিজ জেলায় যেন পরবাসী। সাবেক প্রেসিডেন্টের নিজ এলাকায় তাকে নিয়ে নানা আলোচনা। তার রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে হিসাব-নিকাশ করছেন অনেকে। এ বিষয়ে হতাশ তার নিজ দলের লোকেরাও। তারা জানিয়েছেন, ব্যক্তি বি. চৌধুরীর জন্য তারা তার সঙ্গে আছেন। বিকল্পধারা নিয়ে তাদের কোন প্রত্যাশা নেই। বিকল্পধারার মুন্সীগঞ্জ জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান গাজী শহিদুল হক জানান, দল নিয়ে তার কোন প্রত্যাশা নেই। নিজে বিএনপি করতেন। বলেন, বি. চৌধুরী ভাল লোক। এরকম আরও ১০টি লোক থাকলে দেশ বদলে যেতো। একারণে তার সঙ্গে আছি। বিকল্পধারা দিয়ে কিছু একটা হবে তা আমি মনে করি না। তিনি বলেন, বিকল্পধারা বিএনপি থেকে সৃষ্টি। যারা বিকল্পধারা করে তারা বিএনপি’র লোক। নতুন দল করে বড় দলের সঙ্গে পাল্লা দেয়া সম্ভব না। তিনি জানান, জেলার ছয়টি উপজেলার মধ্যে জেলা সদর, শ্রীনগর ও লৌহজং-এ দলের কমিটি আছে। গজারিয়ায় কমিটি আছে কিনা আমার জানা নেই। বিএনপি ছেড়ে এসে বিকল্পধারায় কমিটিতে আছেন এমন এক নেতা বলেন, যাদের জন্য বিএনপি ছেড়ে এলাম এখন তারাই কোন খোঁজ নেন না। দলীয় কোন অফিস নেই। সভাপতির বাসায়ই হয় নামকাওয়াস্তের মিটিং। কোন মিটিংয়েই বি. চৌধুরী ও মাহী চৌধুরী থাকেন না। মূলত নেতাকর্মীদের সবাই ঝিমিয়ে পড়েছে। দলের অপর এক কেন্দ্রীয় নেতা জানান, যে হিসেবে দল গঠন করা হয়েছিল তা পূরণ হয়নি। এখন বি. চৌধুরী বা মাহী বি. চৌধুরীকে নির্বাচনে জিততে হলে বিএনপি’র হয়ে নির্বাচন করতে হবে।

এলাকা ঘুরে দেখা গেছে ভদ্র ও সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান হিসেবে বি. চৌধুরীর প্রতি মানুষের শ্রদ্ধা থাকলেও দায়িত্বে থাকার সময় এলাকার উন্নয়ন কাজ না হওয়ায় তার বিষয়ে হতাশ অনেকে। আর এলাকার সাধারণ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ না থাকায় রাজনৈতিক ক্যারিয়ারেও নেমেছে ধস। ঢাকা থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরত্বের পথ হয়েও কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি শ্রীনগরে। গ্যাস নেই, পৌরসভা করা হয়নি, কলেজে অনার্স কোর্স চালুর প্রতিশ্রুতি দেয়া হলেও হয়নি, রাস্তাঘাট ব্রিজ কালভার্ট নির্মাণ করা হয়নি, যোগাযোগ ব্যবস্থা একেবারেই ভঙ্গুর। পর পর পাঁচবার এলাকার জনপ্রতিনিধি ছিলেন কিন্তু এলাকায় বড় কোন উন্নয়ন কাজ করতে পারেননি। এর ফল হিসেবে গত জাতীয় নির্বাচনে ভোটের লড়াইয়ে তৃতীয় হন তিনি। মহাজোটের প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের চেয়ে লক্ষাধিক ভোট কম পান। দলীয় সূত্র জানায়, এলাকার লোকজন তার দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়ায় তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন এবং এলাকায় যোগাযোগ কমিয়ে দেন। পারিবারিক সূত্র ধরে রাজনীতিতে আসা ছেলে মাহী বি. চৌধুরীও এলাকাবিমুখ। গত নির্বাচনের পর এলাকায় গেছেন তিন বার- দুই ঈদে আর এক অনুষ্ঠানে। এলাকায় না গেলেও নিজের সমসাময়িকদের খোঁজখবর নেন। টেলিফোনে কথা বলেন। প্রয়োজন হলে ঢাকায় ডেকে নিয়ে যান। তবে সাধারণ ভোটার আর নতুন প্রজন্মের কাছে সাবেক প্রেসিডেন্ট এখন অনেকটা ইতিহাসের মতোই।

বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে দল গঠনের পর দলের প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব ছিলেন তিনি। জিয়াউর রহমানের অনুরোধে স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে যোগ দেন। এরশাদ সরকারের পতনের পর মুন্সীগঞ্জ-১ আসন থেকে বিএনপি’র টিকিটে এমপি নির্বাচিত হয়ে শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান। ’৯৬- এর নির্বাচনে একই দলের ব্যানারে নির্বাচন করে বিরোধী দলের উপনেতা হিসেবে সংসদে গঠনমূলক বক্তব্য রাখলেও নির্বাচনী এলাকায় উন্নয়নের দিক দিয়ে পিছিয়ে ছিলেন তিনি। পরের নির্বাচনে এমপি হয়ে তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হন। পরে পান রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদ প্রেসিডেন্টের চেয়ার। প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর নিজ নির্বাচনী আসনে ত্যাগী ও সিনিয়র নেতাদের বাদ দিয়ে তার ছেলে মাহী বি. চৌধুরীকে মনোনয়ন দেয়া হয় উপ-নির্বাচনে। দলীয় সরকারের অধীনে এই নির্বাচনে মাহী এমপি হলেও দলের স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে দূরত্ব সৃষ্টি হয় চৌধুরী পরিবারের। মূলত সেখান থেকেই বি. চৌধুরীর শুভাকাঙ্ক্ষী ও ত্যাগী নেতাদের সঙ্গে চৌধুরী পরিবারের দূরত্বের দেয়াল উঠতে থাকে। প্রেসিডেন্ট হিসেবে সাত মাস পার করার পর বিএনপি’র সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝির কারণে তিনি পদত্যাগ করেন। পিতার সঙ্গে ছেলে মাহী বি. চৌধুরীও সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন। দু’জনে মিলে ২০০৬ সালের ৬ই জুন বিকল্পধারা গঠন করেন। বিকল্পধারা গঠন করার পর উপ-নির্বাচনে মাহী বি. চৌধুরী এমপি নির্বাচিত হন। বি. চৌধুরী ও তার ছেলের উন্নয়নবিমুখতার কারণে তাদের হাত ধরে উঠে আসা অনেক নেতাকর্মী নতুন দলে যাননি। নিজেদের ভাগে লোকজন না থাকায় কোন রকমে জোড়াতালি দিয়ে গঠন করা হয়েছে উপজেলা কমিটি। শ্রীনগর উপজেলা বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি গাজী শহিদুল হক ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্যপরিষদের নেতা লক্ষ্মণ মণ্ডলকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। এলাকার লোকজন জানিয়েছেন, এলাকার খুব একটা উন্নয়ন না হলেও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড হয়নি শ্রীনগর এলাকায়। রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব-বিরোধও ছিল না খুব একটা। রাজনৈতিক ভাবে কাউকে হয়রানির ঘটনাও ঘটেনি। পরিচ্ছন্ন রাজনীতি করায় নিজ দলের কেউ সন্ত্রাস চাঁদাবাজি করে তার কাছে ঠাঁই পেতো না। আর এ কারণে এলাকায় ব্যক্তি বি. চৌধুরী ছিলেন ব্যাপক জনপ্রিয়। তবে মাহী বি. চৌধুরী এলাকার এমপি হওয়ার পর পরিস্থিতি পাল্টে যেতে থাকে। দলের সার্বিক অবস্থা জানতে চাইলে বিকল্পধারার শ্রীনগর উপজেলার সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মণ মণ্ডল বলেন এখন নির্বাচন হলে দল নয় বি. চৌধুরী ব্যক্তি ইমেজে বিপুল ভোটে জয় লাভ করবেন। কারণ এলাকায় যে পরিস্থিতি চলছে তাতে মানুষ ভাল মানুষকে ভোট দেবে।

Leave a Reply