সেতু বিভাগের সচিবের বক্তব্যে বিব্রত জাপান দূতাবাস

বুধবার আর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সম্মেলন কক্ষে পদ্মা সেতু প্রকল্পের ৪০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ চুক্তি শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে দেয়া সেতু বিভাগের সচিব মোশারেফ হোসেনের বক্তব্যে বিব্রতবোধ করেছে জাপান দূতাবাস । তিনি বলেছিলেন, জাপান বাংলাদেশের পরম বন্ধু। তারা পূর্বের ঋণ মাফ করে দিয়েছে। এটিকেও মাফ করে দিবেন। এছাড়া সরকার পক্ষ থেকে ঋণ মওকুফের আবেদন না করা সত্ত্বেও মওকুফ হয়ে যাবে এ ধরণের বক্তব্য দেন।

সূত্র জানায়,এ বিষয়ে মৌখিক ভাবে ইআরডিকে জানিয়েছে জাপান দূতাবাস। এমনকি বিনিময় নোট এবং ঋণ চুক্তি স্বাক্ষরের পর ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত তোমাচু সিনো তোকা উপস্থিত ইআরডি কর্মকর্তাদের কাছে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। এ সময় তিনি ইআরডি’র কয়েকজন কর্মকর্তাকে জানান ঋণ পরিশোধ না করলে আমরা আবার সহযোগিতা করব কি করে?

এ ব্যাপারে ইআরডি সচিব মোশারেফ হোসেন ভূইঞা বলেন,ঋণ চুক্তির পর সেতু বিভাগের সচিব যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে জাপান রাষ্ট্রদূতসহ উর্ধতন কর্মকর্তারা ক্ষুব্ধ হয়েছেন। কারণ ঐ দেশের সরকার এ বিষয়ে কোন চিন্তাই করেনি। কিংবা আমাদের দেশের সরকারও এ বিষয়ে কোন আবেদন করেনি।

আর জাপান দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারী সিন্টু শীর্ষ নিউজ কে বলেন, সেতু বিভাগের সচিব যা বলেছেন তার সাথে জাপান দূতাবাস একমত না। তিনি এ ধরণের কথা জেনে শুণে বলেছেন বলে মনে হয় না। তার এ কথা বলা ঠিক হয়নি। টেলিফোনে সেতু বিভাগের সচিবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ব্যক্তিগত ফোন ধরেননি। এর পর বাসার টেলিফোন নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তিনি নেই বলা হয়।

উল্লেখ্য,জাপানি ঋণ মওকুফ সহায়তা তহবিল (জেডিএফ) স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশকে ১৭ বছর পর্যন্ত যে ঋণ দিয়েছে সেগুলো মাফ করে দেয়। এই টাকা দিয়ে একটি বিশেষ ফান্ড গঠন করতে বলা হয়। জাপানের অনুমোদন নিয়ে সেই টাকা বাংলাদেশের দারিদ্র্য বিমোচনে ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হয়।

Leave a Reply