পদ্মা সেতু: দুর্নীতি হলে অর্থ ফিরিয়ে নেবে বিশ্বব্যাংক

আশরাফ খান
দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলবাসীর আজন্ম লালিত স্বপ্ন ছিল পদ্মা সেতু। সে সেতু এখন আর স্বপ্ন নয়। নির্মাণ কাজ শুরু হতে যাচ্ছে আগামী অক্টোবর থেকে। তবে বর্তমান সরকারের মেয়াদকালেই নির্মাণ কাজ করার ঘোষণা বিলাসী ভাবনায়ই থেকে যেতে পারে। পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে রেল চালু করার স্বপ্নও পূরণ হবে পরবর্তী সরকারের মেয়াদে। আর পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নের কোন পর্যায়ে যদি দুর্নীতি, আর্থিক অনিয়ম হয় তাহলে গোটা প্রকল্পই পিছিয়ে যাবে। ২০ হাজার ৫০ কোটি টাকার এ প্রকল্পে বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির আশঙ্কা করছে। তেমন কোন অভিযোগ, দুর্নীতির গন্ধও যদি পায় তাহলে বিশ্বব্যাংক সরকারের সঙ্গে মিলে তদন্ত করবে। প্রয়োজনে নিজস্বভাবে তদন্ত করবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে অর্থছাড় বন্ধ করে দেবে। যোগাযোগ মন্ত্রণালয় ও সেতু বিভাগ সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

সরকারের অন্যতম প্রধান নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিল এ পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের লোকজনসহ দেশবাসীরও প্রত্যাশা এ সেতু। নিরূপায় হয়েই সরকার প্রধান উন্নয়ন সহযোগীর একের পর এক শর্ত মেনে আসতে বাধ্য হচ্ছে। দেশের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রকল্প হলেও জোট সরকারের সময়ে তা ন্যূনতম গুরুত্বও পায়নি। কারণ প্রধানত এ প্রকল্পের জন্য জোট সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার ছিল না। অর্থাৎ, ভোটের হিসেবে মিল খুঁজে পায়নি। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ হিসেবে ব্যক্তিগত ও সামাজিক কারণেও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও যোগাযোগমন্ত্রীর তাগিদটা যতটা না রাজনৈতিক তার চেয়ে অনেক বেশি প্রাণের। তবে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। যদিও এর আগে আওয়ামী লীগ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেও জোট সরকার এ প্রকল্পের জন্য অর্থায়ন, প্রাথমিক পর্যায়ের কাজেও হাত দেয়নি। গোটা মেয়াদে ফাইল চাপা রাখা হয়। পাতাল রেল, উড়াল সড়ক, ইলেকট্রিক ট্রেন, মনোরেল, কড লাইন- প্রভৃতি নানা স্বপ্নবিলাসিতায় বিভোর করে রেখেছিলেন যোগাযোগমন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। বাস্তবে পাঁচ বছরে একটি বৃহৎ প্রকল্পও হাতে নেয়া হয়নি। পেশাগত জীবনে সফল ব্যবসায়ী বর্তমান যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন মানুষের সে স্বপ্নের ঘোর কাটিয়ে ওঠাতে কিছুটা হলেও সফল হয়েছেন। তবে ঢের দেরি করে ফেলেছেন। ইতিমধ্যে সড়ক ও রেলপথে সমস্যার পাহাড় জমেছে। এ সময় ক্ষেপণের জন্য যোগাযোগমন্ত্রী বা সরকারের সিদ্ধান্ত গ্রহণে অদক্ষতাকে দায়ী করার সুযোগও সীমিত। যেমন এ পদ্মা সেতু প্রকল্প।
মহাজোট সরকারের মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে যে সিদ্ধান্তটি নেয়া হয় তা ছিল পদ্মা সেতু। এ প্রকল্পের চূড়ান্ত সম্ভাব্যতা জরিপ, স্থান চূড়ান্ত করা, জমি অধিগ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ, পুনর্বাসন, ডিজাইন স্ট্যান্ডার্ড নির্ধারণ, পরামর্শক নিয়োগ, ডিজাইন চূড়ান্তকরণ, নদী শাসন ও সংযোগ সড়ক নির্মাণে ঠিকাদার নিয়োগ, সকল দাতা সংস্থার অনুমোদন, প্রাকযোগ্যতা সম্পন্ন ঠিকাদার নির্বাচনের জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান এবং একই সঙ্গে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ঋণ প্রাপ্তির নিশ্চয়তা বিধানসহ আরও বেশকিছু কাজ এ সময়ে সম্পন্ন করা হয়। বৈদেশিক অর্থায়নের জন্য উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে যোগাযোগ, সমন্বয় সাধনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর অর্থ উপদেষ্টার নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়। মেয়াদকালেই যাতে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা যায় সে লক্ষ্য সামনে রেখে সরকার ধাপে ধাপে কাজ এগিয়ে নিলেও বিশ্বব্যাংকের কয়েকটি সিদ্ধান্ত এতে অন্তরায় হয়ে আসে। এর প্রধান দু’টির একটি হচ্ছে পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের পূর্বশর্ত হিসেবে জুড়ে দেয়া হয় বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর ওপর দিয়ে চলাচলকারী সব ধরনের যানবাহনের ওপর টোল বাড়ানো। এই বৃদ্ধির হারও শতকরা ৫০ থেকে ৭৫ ভাগ। এতে জনজীবনে যে কি মারাত্মক বিরূপ প্রতিক্রিয়া হবে তা তারা বিবেচনায় নেয়নি। যমুনা সেতু প্রকল্পের চুক্তিতেও এ ধরনের শর্ত ছিল না। বিষয়টি নিয়ে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে তিন মাসের দেন দরবারেও ফল হয়নি। শেষ পর্যন্ত দেশের মানুষের স্বার্থ বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী এতে তীব্র আপত্তি জানান। মন্ত্রিসভার বৈঠকে পরবর্তী সময়ে বিশ্বব্যাংকের প্রস্তাব বিবেচনার আশ্বাস দিয়ে তাদের আশ্বস্ত করা হয়।

প্রাক-যোগ্য ঠিকাদার নিয়োগ নিয়ে বিশ্বব্যাংকের শর্ত প্রকল্পটি অন্তত ছয় মাস পিছিয়েছে। বিশ্বব্যাংকের সুপারিশে ‘ম্যানসল’ নামক একটি প্রতিষ্ঠানকে পদ্মা সেতু প্রকল্পের কনসালট্যান্ট নিয়োগ করা হয়। দেশের খ্যাতিমান বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন মূল্যায়ন কমিটি এবং ‘ম্যানসল’-এর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পাঁচটি আন্তর্জাতিক নির্মাণ প্রতিষ্ঠানকে প্রাক-যোগ্য হিসেবে নির্বাচন করা হয়। এ জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্রে অংশ নিয়েছিল ১১টি প্রতিষ্ঠান। প্রাক-যোগ্য নির্বাচিত পাঁচটি প্রতিষ্ঠান থেকেই একটিকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করা হবে আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে। বিশ্বব্যাংকের দাবি অনুযায়ী নির্বাচিত পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের দলিলপত্র পাঠানো হয় তাদের সদর দপ্তরে। উদ্দেশ্য মূল্যায়ন কমিটি এবং বিশ্বব্যাংকেরই মনোনীত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ‘ম্যানসল’-এর দরপত্র মূল্যায়ন সঠিক হয়েছে কি-না যাচাই করা। বিশ্বব্যাংকের এ দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও সরকার অসহায়ভাবে তা মেনে নেয়। বিশ্বব্যাংক তার মূল্যায়নে ‘ম্যানসল’ ও ‘মূল্যায়ন’ কমিটির মূল্যায়ন সঠিক হয়নি বলে অভিযোগ করে আবার নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের প্রাক-যোগ্যতা নির্বাচনের জন্য দরপত্র আহ্বানের শর্ত দেয়। আবারও আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করতে হয়। এতেও প্রথমে যে পাঁচটি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান প্রাক-যোগ্য নির্বাচিত হয় তারাই পুনঃনির্বাচিত হয়। মাঝখানে চলে যায় ছয় মাস। নির্বাচিত এ প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- সামসং সি অ্যান্ড টি কর্পোরেশন, কোরিয়া, চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোং লিঃ, চায়না, ডেলিম-বাম-ভিসিআই, কোরিয়া, ভিনচি-এইচসিসি, ভারত এবং কমিউনিকেশন কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লি.।

ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর করার পর্যায়ে বিশ্বব্যাংক প্রকল্পের সকল পর্যায়ে আর্থিক শৃঙ্খলা রক্ষা করা এবং অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধ করে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার জন্য বলেছে। বিশ্বব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর নমোজি ও কানোজা নাইওয়ালা সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে বৈঠকে ও চুক্তি স্বাক্ষরের পর প্রকাশ্যেই বিষয়টি এত গুরুত্বের সঙ্গে বলেছেন যেন তারা আগাম ধরেই নিয়েছেন এখানে দুর্নীতি হবে। এমনি সংশয়-শঙ্কা যেন তাদের বদ্ধমূল। বিষয়টি অমর্যাদাকর হলেও তাদের আশঙ্কাকে হালকা করে দেখার অবকাশ নেই। অযৌক্তিক বাড়াবাড়িও বলা যাবে না। জোট সরকারের সময় রোড সেক্টর রিফর্মস প্রজেক্টের আওতায় বিশ্বব্যাংক ২ হাজার কোটি টাকা দিয়েছিল। ময়মনসিংহ-গাজীপুর অংশে সড়ক উন্নয়ন ও নির্মাণ কাজেই অর্থের বড় অংশ ব্যয় হওয়ার জন্য নির্ধারিত ছিল। কিন্তু এখানে ব্যাপক দুর্নীতি হওয়ায় বিশ্বব্যাংক কর্তৃক এ অর্থ প্রত্যাহার করে নেয়ার ঘটনা ঘটে। বর্তমান সরকারের সময়ে গত বছরের মাঝামাঝি বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিনিধি দল সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরে এক সভায় সওজকে দুর্নীতিগ্রস্ত সংস্থা বলে চিহ্নিত করে। এর ইঞ্জিনিয়ারদের বিরুদ্ধে লাগামহীন দুর্নীতির অভিযোগ এনে প্রতিষ্ঠানটিকে দুর্নীতিমুক্ত করা সাপেক্ষে ঋণ দেয়ার কথা বলেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার পরিবর্তে পুনর্বাসন করায় তারা তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেন। পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক করা হয়েছে তাদেরই একজনকে। সওজের চিফ ইঞ্জিনিয়ারসহ বিভিন্ন প্রাইজ পোস্টিং দেয়া হয়েছে আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজদের। বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের সর্ববৃহৎ এ প্রকল্পে দুর্নীতির আশঙ্কা মূলত সরকারের চিহ্নিত দুর্নীতিবাজদের লালন করার এই নীতির কারণে। এ সম্পর্কে যোগাযোগ মন্ত্রী অবশ্য মানবজমিনকে বলেন, আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত চাওয়ার পরও তারা আপত্তি করেননি বলেই এদের নিয়োগ দেয়া হয়। তাছাড়া তাঁর মতে অভিজ্ঞ দক্ষ ইঞ্জিনিয়ারের অভাবও রয়েছে। এভাবেই পার পেয়ে যাচ্ছে শত শত কোটি টাকার দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতরা। যা বিশ্বব্যাংকের উৎকণ্ঠা হয়ে আছে। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে সরকারের এমপি, মন্ত্রীরা শতভাগ স্বচ্ছতা, দুর্নীতিমুক্তভাবে প্রকল্প বাস্তবায়নের অঙ্গীকার করেন। বিশ্বব্যাংকের এমডি তাদের বাংলা ভাষার বক্তব্য বুঝার জন্য দোভাষীর ব্যবস্থাও রেখেছিলেন। বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনায় দুর্নীতির অভিযোগ পেলে তাৎক্ষণিক তদন্ত, কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার তাগিদ দিয়েছেন বিশ্বব্যাংকের এমডি। এর ব্যতিক্রম হলে বিশ্বব্যাংকের সতর্ক বার্তাও দিয়েছেন।

স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে পদ্মা সেতু প্রকল্প প্রথম নিয়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তখন প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছিল ৮০০ কোটি টাকা। জোট সরকারের সময় প্রকল্প ব্যয় ধরা হয় ১৪ হাজার কোটি টাকা। বর্তমান সরকারের সময় তা প্রথমে ১৮ হাজার কোটি টাকা (২ দশমিক ৯৩ বিলিয়ন ডলার) ধরা হয়। সর্বশেষ ২০ হাজার ৫০ কোটি টাকায় (২০৯ কোটি ডলার) দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে বিশ্বব্যাংক দেবে ১২০ কোটি ডলার, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক ৬১ কোটি ৬০ লাখ ডলার, জাপান ৪০ কোটি ডলার এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক দেবে ১৪ কোটি ডলার। বিশ্বব্যাংক অতিরিক্ত ৩০ কোটি ডলার দেবে যা প্রয়োজনে ব্যবহার করা হবে। তারা সার্ভিস চার্জ নেবে শতকরা শূন্য দশমিক ৭৫ ভাগ। ঋণ পরিশোধ করতে হবে ১০ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৪০ বছরে। সরকারিভাবে দেয়া হবে ৪২৫৭ কোটি ৬৮ লাখ টাকা বা ৬১৭ দশমিক ০৬ মিলিয়ন ডলার। ব্রিজের দৈর্ঘ্য হবে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার, প্রস্থ ১৮ দশমিক ১০ মিটার। পদ্মা সেতু হবে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম দীর্ঘ সেতু। মাওয়া হতে জাজিরা পর্যন্ত উভয় প্রান্ত হবে ইস্পাতের তৈরি দোতলা। উপরে চার লেনের সড়ক, নিচে থাকবে রেল। সেতুর উভয় প্রান্তে সড়ক হবে ১২ দশমিক ১৬ কিলোমিটার। উভয় পাশে নদী শাসনের কাজ হবে ১৬ দশমিক ৩০ কিলোমিটার। সেতুর জীবন ধরা হয়েছে ১০০ বছর। পদ্মা সেতু নির্মিত হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১৯টি জেলা রাজধানী ঢাকাসহ পূর্বাঞ্চলের সঙ্গে যুক্ত হবে।

জাইকার সমীক্ষা অনুযায়ী এ প্রকল্পের জন্য ৩১৫০টি বসতবাড়ি, অবকাঠামো, ২০৭৭টি বাণিজ্যিক এন্টারপ্রাইজ, ৬৫টি মসজিদ, মাদরাসা, স্কুল, ঈদগাহ, শ্মশানঘাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বস্তুহারা হচ্ছেন ১৯০২১ জন। ভূমিহারা হবেন ৩০ হাজার মানুষ। ভূমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন আরও ৫ হাজার লোক। সেতু নির্মাণে জমি অধিগ্রহণ করা হচ্ছে ১০৯৫ হেক্টর। গাছ কাটা পড়ছে ৩ লাখ ২৭ হাজার ৮০৬টি। ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসনে সরকারের ব্যয় হচ্ছে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা।

পদ্মা সেতুর নিচ দিয়ে রেলের ব্যবস্থা রাখা হলেও রেল লাইনের কাজে এ পর্যায়ে হাত দেয়া হচ্ছে না। বিশ্বব্যাংক, এডিবিও এখন প্রতিশ্রুতি দিতে চাচ্ছে না। কিন্তু সরকার গভীরভাবে আগ্রহী। ফরিদপুর-মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, বরিশাল, পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রেল সংযোগ স্থাপন করার কাজ মূল সেতু নির্মিত হওয়ার পর শুরু করা হবে। এডিবি ও বিশ্বব্যাংকও তখনই অর্থায়ন করবে। জাইকার সমীক্ষায় ট্রান্স পদ্মা করিডরের সুপারিশ করা হয়েছে। তারা দেখিয়েছে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে ২০১৫ সালে প্রতিদিন ২০৩০০ যান চলাচল করবে। ২০২৫ সালে তা বেড়ে দাঁড়াবে ৪১৬০০টি। এসব যানবাহনের শতকরা ৮৫ ভাগই হবে ভারতীয়। রেল হলে এ চাপ কমে আসবে। পদ্মা সেতুর অর্থনৈতিক উপযোগিতা ও আর্থিক লাভের জন্য ভারতকে এ সুবিধা দেয়ার পক্ষে তারা মত দিয়েছে। ক্রস বর্ডার যান চলাচলে আন্তর্জাতিক চুক্তি করতেও বলেছে।

মূলত পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে ভারতীয় পণ্য পরিবহনের জন্য আখাউড়া-ফতুল্লা-ঢাকা কড লাইন নির্মাণের পরিকল্পনা নেয়া হয়। এতে অবশ্য ঢাকা-চট্টগ্রামের দূরত্ব প্রায় ৯০ কিলোমিটার কমবে। সময়ও বাঁচবে এক ঘণ্টা। ৭ হাজার কোটি টাকার কড লাইনের প্রকল্প ব্যয় এখন বাড়িয়ে প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত করার কাজ চলছে।
জাইকার সমীক্ষায় বলা হয়েছে, পদ্মা সেতু এশিয়ান হাইওয়ে এ এইচ-১ এবং ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ের সঙ্গে সংযুক্ত হওয়ায় এ সেতু নির্মিত হলে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ যাতায়াত ব্যবস্থাসহ দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে যাতায়াত ব্যবস্থায় বৈপ্লবিক পরিবর্তনের সুযোগ সৃষ্টি হবে। জাতীয় জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ১ দশমিক ২ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। প্রতিবছর দারিদ্র নিরসন হবে শূন্য দশমিক ৮৪ শতাংশ হারে।

Leave a Reply