পদ্মা সেতু নির্মাণে আইডিবির সঙ্গে ঋণচুক্তি

পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংক ও জাপানের পর এবার ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের সঙ্গে ঋণচুক্তি হয়েছে। দেশের দীর্ঘতম এ সেতু নির্মাণে আইডিবি ১৪ কোটি ডলার দিচ্ছে। মঙ্গলবার এ ঋণচুক্তি স্বাক্ষর করেন আইডিবি প্রেসিডেন্ট আহম্মদ মোহাম্মদ আলী আল মাদানী ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

অর্থ মন্ত্রণালয়ে এ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা মশিউর রহমান, যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও আইডিবি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

২৯০ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয়ে নির্মিতব্য পদ্মা সেতুর জন্য ১২০ কোটি ডলার দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। গত ২৮ এপ্রিল তাদের সঙ্গে সরকারের ঋণচুক্তি হয়। জাপান দিচ্ছে ৪১ কোটি ৫০ লাখ ডলার।

এছাড়া আগামী ৬ জুন এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) সঙ্গে প্রায় ৬০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি হওয়ার কথা রয়েছে। বাকি অর্থ দেবে বাংলাদেশ সরকার।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী বলেন, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে সারাদেশের যে বিচ্ছিন্নতা, এ সেতু তা দূর করবে।

“একটি দেশের উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার অভাবে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ব্যাহত হয়”, বলেন তিনি।

২০১৪ সালের জানুয়ারিতে এ সরকারের মেয়াদ শেষের আগেই পদ্মা সেতু নির্মাণের কথা সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে।

মুহিত বলেন, আন্তরিকভাবে কাজ করলে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই সেতু নির্মাণের কাজ শেষ করা সম্ভব।

ঋণচুক্তির দলিলে অর্থমন্ত্রীর সই করার রীতি না থাকলেও তা করেছেন তিনি। এক্ষেত্রে আইন মন্ত্রণালয়ের পরামর্শও উপেক্ষা করার কথা জানিয়েছেন মুহিত।

“আশা করবো, আইন মন্ত্রণালয় এ ক্ষেত্রে সংকীর্ণতামুক্ত হবে”, বলেন তিনি।

পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজটি স্বচ্ছতার সঙ্গে করার আশ্বাস দেন যোগাযোগমন্ত্রী।

তিনি জানান, সেতু নির্মাণ, নদী শাসন এবং মাওয়া সংযোগ সড়কের দরপত্র খুব শিগগিরই ডাকা হবে। অন্যান্য দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৩০ জুন।

আবুল হোসেন জানান, পদ্মা সেতু নির্মাণে ১২০ কোটি ডলারের সঙ্গে আরো ৩০ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা দেবে বিশ্বব্যাংক।

পদ্মা সেতু নির্মাণেল এ প্রকল্প রাজনৈতিক নেতৃত্ব, সরকারি কর্মকর্তা এবং উন্নয়ন অংশীদারদের একসঙ্গে কাজ করার ক্ষেত্রে একটি নজির হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেন মশিউর রহমান। এ প্রকল্পে স্বচ্ছতা নিশ্চিতের কাজটি তদারক করবেন।

আইডিবি প্রেসিডেন্ট আশা প্রকাশ করেন, নির্দিষ্ট সময়েই এ সেতু নির্মাণের কাজ শেষ হবে এবং এতে অতিরিক্ত অর্থও প্রয়োজন হবে না।

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় যাওয়ার পর বহু প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতু নির্মাণে হাত দেয়। প্রধান সেতুর নকশা এরই মধ্যে তৈরি হয়েছে। নদী ব্যবস্থাপনা এবং সেতুর দু’পাশের রাস্তার নকশাও তৈরি হয়েছে।

নদীর ওপর সেতুর মূল দৈর্ঘ্য হবে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার, দুই পাশে সংযোগ সড়কের দৈর্ঘ্য ১২ কিলোমিটার।

এ সেতু এশিয়ার দীর্ঘতম সেতু হতে চলেছে বলে পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক রফিকুল ইসলাম ইতোপূর্বে জানিয়েছেন।

বলা হচ্ছে, পদ্মা সেতুর নির্মিত হওয়ার পর জিপিপি ১ দশমিক ২ শতাংশ বাড়বে।

পদ্মা সেতু ছাড়াও ঘূর্ণিদুর্গত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ এবং পয়ঃনিষ্কাশন প্রকল্পেও সহায়তা দিচ্ছে আইডিবি। এক্ষেত্রে ১ কোটি ৪৮ লাখ ডলারের একটি চুক্তিও মঙ্গলবার সই করেন অর্থমন্ত্রী ও আইডিবি প্রেসিডেন্ট।

Leave a Reply