শ্রীনগরের প্রার্থীরা দুয়ারে দুয়ারে

মো. আরিফ হোসেন, শ্রীনগর থেকে : শ্রীনগরে ১৪টি ইউনিয়নের নির্বাচন জমে উঠেছে। প্রার্থীরা ঘুরে বেড়াচ্ছে এক দুয়ার থেকে আরেক দুয়ারে। সবাই শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত। কারও চোখে ঘুম নেই। চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বেশির ভাগ ঢাকার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হওয়ায় বাতাসে উড়ছে টাকা।

তাছাড়া আঁড়িয়ল বিলে বিমান বন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্ত বিলপারের ৬টি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের চিন্তায় ফেলে দিয়েছে। তারপরও যোগ্যপ্রার্থীর অভাব ও দলীয় কোন্দলের ফলে জোট নয় ভোটের নির্বাচনের দিকে ঝুঁকে পড়েছে ভোটাররা। উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন ঘুরে পাওয়া গেছে ভিন্ন ভিন্ন চিত্র। প্রতি মুহূর্তে পাল্টাচ্ছে হিসাব নিকাশ।

শ্রীনগর : শ্রীনগর সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন আঁড়িয়ল বিল রক্ষা অন্দোলনের নেতা ও বিএনপি সমর্থক বর্তমান চেয়ারম্যান আঃ বারেক বেপারী ও নবীন প্রার্থী আওয়ামী লীগ সমর্থিত মোখলেছুর রহমান।

বীরতার : বীরতার ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান ও ঢাকা ইস্ট বেঙ্গল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জালাল মাস্টার, বিকল্পধারা সমর্থিত বর্তমান চেয়ারম্যান গাজী শহিদুল্লাহ কামাল ঝিলু। দু’জনের মধ্যে লড়াই হবে। অপরদিকে বিএনপি সমর্থিত নবীন প্রার্থী সোহরাব হোসেনও মাঠ গরম করে রেখেছেন। এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কোন প্রার্থী নেই।

আটপাড়া : আটপাড়া ইউনিয়নে নির্বাচন করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সফল ব্যবসায়ী আয়ূব আলী। চেয়ারম্যান না হয়েও তিনি এলাকার অনেক উন্নয়নমূলক কাজ করে জনগণের মন জয় করে নিয়েছেন। আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান বিল্লাল হোসেন। নির্বাচনের আগে তার সর্মথক ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি ও এক ছাত্রলীগ নেতা কর্তৃক আয়ূব আলীর সমর্থক জেলা পূজা উদযাপন কমিটির নেতাকে মারধর করার ঘটনা সাধারণ ভোটারদের বিরূপ প্রভাব ফেলেছে।

শ্যামসিদ্ধি : শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নে নির্বাচন করছেন সাদা মনের মানুষ হিসেবে খ্যাত আওয়ামী লীগ নেতা আঃ রব, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মো. রতন ও আওয়ামী লীগের অপর প্রার্থী নাজির হোসেন। ত্রিমুখী এ লড়াইয়ে আঃ রব সার্বক্ষণিকভাবে এলাকায় থাকার কারণে ভোটাররা তাকে এগিয়ে রাখছেন।

বাড়ৈখালী : বাড়ৈখালী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে ৪ জন। এদের মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন মাস্টার প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন। তিনি আওয়ামী লীগের নেতা হয়েও দলীয় সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে আঁড়িয়ল বিলে বিমান বন্দর নির্মাণের বিরোধিতা করে জনগণের পাশে ছিলেন। পুলিশ হত্যা মামলার আসামিও হয়েছেন। এ কারণে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। সেলিম তালুকদার আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন। নিজের দাম্ভিকতার কারণে জনগণের কাছ থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন। এদিক থেকে অনেকটাই সুবিধাজনক অবস্থানে বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যানের ভাই মিজানুর রহমান।

হাসাড়া : হাসাড়া ইউনিয়নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা ও আঁড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির নেতা নাসিরুল আলম পলাশ, বর্তমান চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন মৃধা, বিএনপি নেতা রমিজ উদ্দিন, আওয়ামী লীগের আহসান হাবীব ও আবুল হোসেন নির্বাচন করছেন। প্রচারণার দিক থেকে নাসিরুল আলম পলাশ এগিয়ে রয়েছেন।

ষোলঘর : ষোলঘর ইউনিয়নে নির্বাচন করছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মাহবুবুল আলম রুনু, বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জুলহাস উদ্দিন ও স্বতন্ত্রপ্রার্থী আঃ সালাম। লড়াই হবে ত্রিমুখী।

পাটাভোগ : পাটাভোগ ইউনিয়নে নির্বাচন করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ ডালু। আওয়ামী লীগ নেতা মেহেদী হাসান রতন। বর্তমান চেয়ারম্যান ধলু মিয়া এবং বিএনপি প্রার্থী ও বর্তমান মেম্বার আমীর আলী মৃধা। আওয়ামী লীগ, বিএনপি প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যানের মধ্যে ত্রিমুখী লড়াই হবে।

কুকুটিয়া : কুকুটিয়া ইউনিয়নে নির্বাচন করছেন বিএনপি নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান মোতালেব হাওলাদার, বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী এনায়েত হোসেন। দু’জনের রশি টানাটানিতে সুবিধাজনক অবস্থানে চলে আসতে পারে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হুমায়ূন কবীর।

তন্তর: ইউনিয়নে নির্বাচন করছেন ঢাকার ধনাট্য ঠিকাদার আঃ আজিজ ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আলী আকবর। ঢাকায় বসবাস করার কারণে আঃ আজিজের জনসম্পৃক্ততা কম থাকায় আলী আকবর রয়েছেন সুবিধাজনক অবস্থানে।

কোলাপাড়া : কোলাপাড়া ইউনিয়নে নির্বাচন করছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি মমীন আলীর ছেলে ইসলামপুরের ব্যবসায়ী তৈয়ব হোসেন মামুন। অপরপ্রার্থী আওয়ামী লীগ সমর্থিত আতিকুর রহমান নান্নু। তিনিও ঢাকার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। দু’জনের মধ্যে পারিবারিক ঐতিহ্যের কারণে মামুন রয়েছেন সুবিধাজনক অবস্থানে।

রাঢ়ীখাল : রাঢ়ীখাল ইউনিয়নে হাফ ডজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও নজরুল ইসলাম, হারুনুর রশীদ, আলমগীর আলম ও আয়ূব আলী। এদের মধ্যে নজরুল ইসলামের অবস্থান বেশ পোক্ত।

ভাগ্যকূল : ভাগ্যকূল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন মিতুল। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন একই ইউনিয়নের সভাপতি ফজলুল হক গাজী। আওয়ামী লীগের এ কোন্দলকে কাজে লাগিয়ে এবারও এগিয়ে রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা শহিদুল ইসলাম খান একুল।

বাঘরা : বাঘরা ইউনিয়নের চিত্র ভাগ্যকূল ইউনিয়নের উল্টো। বিএনপি থেকে ইউনিয়নের সভাপতি শামসু খান ও সাধারণ সম্পাদক মো. আলী মাদবর প্রার্থী হয়েছেন। তাদের কোন্দলের কারণে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন আওয়ামী লীগের সমর্থিত প্রার্থী মো. নুরুল ইসলাম। বিকল্পধারা থেকে প্রার্থী হয়েছেন হারুনুর রশিদ খান। অপর প্রার্থী খোকন মোড়ল।

Leave a Reply