বাঁধ নির্মাণ করাটা হবে আমার প্রধান কাজ

রাসেল মাহমুদ, মুন্সীগঞ্জ থেকে : মুন্সীগঞ্জে প্রমত্তা পদ্মার ভয়াবহ ভাঙনের করাল গ্রাসে পড়ে শেষ প্রান্তে এসে মিশে গেছে হাসাইল বানারী ইউনিয়নের সীমানা। টঙ্গীবাড়ি উপজেলার ক্ষতবিক্ষত হাসাইল বানারী এই ইউনিয়নটি কয়েক দফার ভাঙনের মুখে পড়ে কয়েকটি গ্রাম ছাড়া পুরোটাই ইতিমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। তবে অপর প্রান্তে জেগে উঠেছে বিশাল আকারের চর।

এসব চরে বসবাস করছেন এ ইউনিয়নের ঘর বাড়ি মাটি হারা অসহায় কয়েক হাজার মানুষ। বিধ্বস্ত এই ইউনিয়নটির লোকজনের প্রধান কাজ চরে জেগে ওঠা বালু জমিতে চাষাবাদ ও মাছ ধরা। ভাঙনের মুখে পড়ে অনেক লোকজন ছড়িয়ে ছিটিয়ে বিভিন্ন স্থানে বসবাস করলেও ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাদের রয়েছে অনেক উৎসাহ উদ্দীপনা। ভাঙন কবলিত এ এলাকার উন্নয়ন ও দারিদ্র্যসীমা কমিয়ে অনার লক্ষ্যে চলতি ইউপি নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন এ এলাকার কৃতী সন্তান মনির হোসেন ফকির। তিনি ঘর বাড়ি হারা মানুষগুলোর দুঃখ কষ্টের সঙ্গে নিজেকে মিশিয়ে রেখেছেন অনেক আগে থেকেই। এলাকায় রয়েছে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা।

প্রাথমিক পর্যায়ে ভাঙনের কবল থেকে রক্ষার জন্য বাঁধ নির্মাণে তার রয়েছে অনেক অবদান। তিনি ভোট প্রার্থনায় প্রতিদিনই ভোটারদের কাছে ঘুরে বেরাচ্ছেন চরাঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থানে। তিনি বলেন, দু’দফা আমাদের বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আমার বাবা, দাদা, দাদীসহ অনেক আত্মীয় স্বজনেরই শেষ ঠিকানা হয়েছে এ পদ্মার পারে। আমার প্রেম ভালবাসা, ভাললাগা সব কিছুই এ ইউনিয়নটি জুড়ে। এখানকার মানুষদের ভালমন্দ যে কোন কাজকর্মে আমার সাহায্য সহযোগিতা থাকে সাধ্যানুযায়ী। ভেঙে যাওয়া এ হাসাইল বানারী এলাকার মানুষের সঙ্গে নিজেকে সব সময় সম্পৃক্ত রাখতে পারাটা হবে আমার জন্য সবচেয়ে বড় সৌভাগ্যের। আমি চাই সুখে দুঃখে সব সময় তাদের পাশে থেকে এলাকার উন্নয়নে নিজেকে জড়িয়ে রাখতে। যা ইতিমধ্যে এলাকার লোকজন প্রমাণ পেয়েছে। আমাকে জনগণ তাদের মূল্যবান ভোট দিয়ে নির্বাচিত করলে আমার প্রধান কাজ হবে হাসাইল বানারী ইউনিয়নের শেষ চিহ্নটুকু রক্ষার জন্য পদ্মার পারে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করা। মনির হোসেন ফকির হাসাইল বানারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি।

Leave a Reply