নারী পাচারকারীচক্র পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে

সেতু ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে লেবাননে নারী পাচারের ঘটনার চাঞ্চল্যকর মামলার আসামি হয়েও পাচারকারী চক্রটি পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে । চাঞ্চল্যকর নারী পাচারের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার বাদী ফুলমালাকে গতকাল রোববার বিকালে প্রকাশ্যে পাচারকারী চক্রের সহযোগীরা হত্যার হুমিক দিয়েছে। জেলার শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর এলাকায় গত রোববার বিকালে অজ্ঞাত পরিচয়ের ৪-৫ জন যুবক বাদীর বসত বাড়িতে গিয়ে ওই হুমকি দেয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়।

এদিকে, গত ১৯ মে মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার ও চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে নারী পাচারকারী চক্রের মূল হোতা ইদ্রিস আলীকে গ্রেফতারের তাগিদ দিয়ে হাইকোর্টে পত্র পাঠিয়েছে। মুন্সীগঞ্জের জেলা পুলিশ সুপার ও চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে পাঠানো হাইকোর্টের ওই পত্রের স্মারক নম্বর হচ্ছে যথাক্রমে ১২৮৭০/২০১১ ও ৪৮৩৪৫/২০১১। অন্যদিকে, জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশের পরও পুলিশ ফুলমালার দায়েরকৃত মামলার আসামি নারী পাচারকারী চক্রের মূল হোতা ইদ্রিস আলীকে গ্রেফতার করতে পারেনি শ্রীনগর থানা পুলিশ। প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরে বেড়ালেও গ্রেফতারের পরিবর্তে শ্রীনগর থানার ওসি মো. সাখওয়াত হোসেন নারী পাচারকারীদের সঙ্গে সখ্যতা বজায় রাখছেন। এমন অভিযোগ_চাঞ্চল্যকর মামলার বাদী ফুলমালার। লেবাননে নারী পাচারকারী চক্রকে গ্রেফতারের জন্য জেলা পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলামের দেয়া নির্দেশের গতকাল রোববার ১৫ দিন অতিবাহিত হয়েছে। তবু চক্রটিকে গ্রেফতারে শ্রীনগর থানা পুলিশ ব্যর্থ হয়েছে।

অন্যদিকে, পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে নারী পাচারকারী চক্রটি দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে। এতে বাদী ফুলমালার জীবনের নিরাপত্তা হুমকির মুখে রয়েছে। বাদী ফুলমালা বলেন, পাচারকারী চক্রের মূল হোতা ইদ্রিস আলীর লেলিয়ে দেয়া লোকজনই আমাকে জানে মেরে ফেলার পাঁয়তারা করছে। তারা আমাকে মামলা তুলে নিতে বার বার ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে। খুন করার হুমকি দিচ্ছে। এ ব্যাপারে রোববার বিকাল সাড়ে ৬টার দিকে জেলা পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলামের সঙ্গে সেল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত সেল ফোন নম্বরে কল করলেও তিনি ফোন ধরেননি।

গত ৫ মে পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম বাদী ফুলমালার সাক্ষ্য গ্রহণ করেন। ওই দিন চক্রটিকে গ্রেফতারের জন্য শ্রীনগর থানার ওসি মো. সাখাওয়াত হোসেনকে নির্দেশ দেন তিনি। এ প্রসঙ্গে শ্রীনগর থানার ওসি মো. সাখাওয়াত হোসেন বলেন, নারী পাচারকারীদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ তৎপর রয়েছে। একাধিকবার অভিযান চালানো হয়েছে মূল হোতা ইদ্রিস আলীকে পাকড়াও করার জন্য। চক্রটি আত্মগোপনে থাকায় ধরা যাচ্ছে না। তবে বাদীকে হত্যার হুমকির বিষয়টি তিনি জানেন না বলে দাবি করেছেন। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ষোলঘর এলাকার অন্তত ১০ নারী ওই পাচারকারী চক্রের খপ্পরে পড়ে লেবানন গিয়ে নির্যাতনের শিকার হন। এতে লেবাননে নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরে আসা ষোলঘর এলাকার ফুলমালা বাদী হয়ে গত ১১ এপ্রিল শ্রীনগর থানায় নারী পাচারকারীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

Leave a Reply