ফখরুদ্দীন-মইনের বক্তব্য শুনতে বিকল্প চিন্তাভাবনা

সংসদীয় উপকমিটির বৈঠকে হাজির হতে অপারগ হলে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ও সাবেক সেনাপ্রধানকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে তাদের বক্তব্য উপস্থাপনের সুযোগ দেওয়ার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে স্পিকারের সঙ্গেও আলোচনা করেছে কমিটি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ও সেনা সদস্যদের ২০০৭ সালের সংঘর্ষের ঘটনা তদন্তে গঠিত সংসদীয় উপকমিটির আহবায়ক রাশেদ খান মেনন বৃহস্পতিবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে একথা জানিয়েছেন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতিও তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০৭ সালের ওই সংঘর্ষ সম্পর্কে নিজেদের বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমদ ও সাবেক সেনাপ্রধান মইন উ আহমেদকে আগামী ৫ জুন উপকমিটির বৈঠকে তলব করা হয়েছে।

সেনা সমর্থিত বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে ২০০৭ এর অগাস্টে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে খেলার মাঠে সেনা সদস্য ও ছাত্রদের সংঘর্ষের পর সারাদেশে ব্যাপক বিক্ষোভ-সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চার জন এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়জন শিক্ষকসহ বহু শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়। শত শত শিক্ষার্থী সে সময় সেনা সদস্যের নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

ওই ঘটনা তদন্তে গত বছর অগাস্ট মাসে সংসদীয় কমিটি এ উপকমিটি গঠন করে।

উপকমিটি ওই ঘটনার বিষয়ে ফখরুদ্দীন আহমদ ও মইন উ আহমেদকেও তলব করে। তাদের আগামী ৫ জুন উপ কমিটির বৈঠকে হাজির হতে বলা হয়। তবে তারা উপস্থিত হতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

রাশেদ খান মেনন জানান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ দূতাবাস গত ১৯ মে সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমদের কাছে উপকমিটির দ্বিতীয় তলবী চিঠি পৌঁছে দিয়েছে। ২২ মে তা নিশ্চিত করা হয়েছে কমিটির কাছে।

তবে মইন উ আহমদের চিঠি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে পাঠানো হলেও বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তা তার কাছে পৌঁছেনি।

সাবেক সেনাপ্রধান অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে তার পরিবারিক সূত্র নিশ্চিত করেছে বলে জানান কমিটির সভাপতি।

মেনন বলেন, “ওই দুজন প্রথমবারও কমিটিতে আসতে পারেন নি। এবারও হাজির না হলে বিকল্প চিন্তা করতে হবে। এজন্য তাদের বক্তব্য ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে নেওয়ার বিষয়ে স্পিকারের সঙ্গে কথা হয়েছে।”

তিনি আরো জানান, এ ব্যাপারে এখনও সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়নি। কমিটিতে এখনো কোনো আলোচনা হয়নি। ৫ জুন প্রয়োজন হলে বিকল্প প্রস্তাব বিবেচনা করা হবে।

গত ১৮ এপ্রিল এ দুজনকে কমিটির বৈঠকে তলব করা হলেও তারা হাজির না হয়ে যুক্তরাষ্ট্র থেকে লিখিত বক্তব্য পাঠান। কমিটি তাদের ওই বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে। তাদেরকে উপকমিটিতে হাজির হতে দ্বিতীয় দফা তলব করা হয়।

ওইসময় দুজনকে তাদের ই-মেইল ঠিকানায়ও চিঠি পাঠানো হয়।

সশস্ত্রবাহিনী বিভাগের মাধ্যমে মইন উ আহমেদের কাছে চিঠি পাঠানোর উদ্যোগ নেওয়া হলে তাতে অপরাগতা প্রকাশ করে সংস্থাটি।

Leave a Reply