সিরাজদিখানের ১০ ইউপিতে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন সম্পন্ন

জাল ভোট ও কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের ১০টি ইউনিয়নে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল থেকে মহিলা ও পুরুষ ভোটাররা নিজ নিজ কেন্দ্রে ভোট দিতে জড়ো হন। সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন সম্পন্ন করতে প্রশাসন ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে, তবে জাল ভোট প্রদানকে কেন্দ্র করে বালুরচর ইউনিয়নের চরবয়রাগাদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আ’লীগ ও বিএনপি সমর্থিত দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এছাড়া রশুনিয়া ইউনিয়নের গোয়ালবাড়ি কেন্দ্রে রঙিন পোস্টার নিয়ে প্রচারণা চালানোর সময় ৩ জনকে ৫ হাজার টাকা করে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। লতব্দি ইউনিয়নসহ বেশ কিছু কেন্দ্রে দখলের গুজব ওঠলেও তার সত্যতা খুঁজে পাওয়া যায়নি।

অন্যদিকে দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে জৈনসার ইউনিয়নের ভাটিমভোগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বিকেল সাড়ে ৪টার সময়ও দুই শতাধিক ভোটারকে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। একই ইউপির কাঁঠালবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে অসর্তকতার কারণে এক আনসারের কাছে থাকা রাইফেল থেকে গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। গুলিটি ভবনের ছাদে আঘাত করলেও কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম জানান, ১০টি ইউনিয়নের প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১ জন এসআই ২০ জন পুলিশ ও আনসার মোতায়েন করা হয়। এছাড়া প্রতিটি ইউনিয়নে ৩টি মোবাইল টিম সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করেছেন। উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুস কুদ্দুস ধীরেন বলেন, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোটাররা উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য নিয়ে তাদের ভোট প্রদান করেছেন। এ সময় একই স্থানে উপস্থিত আ’লীগ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ বিএনপি নেতার সাথে একমত প্রকাশ করেছেন।

জানা গেছে, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বালুরচর ইউনিয়নের চরবয়রাগাদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আ’লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু বক্কর সিদ্দিকের সমর্থকরা জাল ভোট দিতে গেলে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মুক্তার হোসেনের সমর্থকরা বাধা দেয়। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট খুশি আক্তার ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। এছাড়া রশুনিয়া ইউপির গোয়ালবাড়ি কেন্দ্রে সদস্য প্রার্থীর রঙ্গিন পোস্টার নিয়ে প্রচারণা করার সময় ফয়সাল, রানা ও সালমানকে ৫ হাজার টাকা করে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট মাঈনউদ্দিন।

Leave a Reply