শায়নার খেরোখাতা

মাত্র একটি ছবি মুক্তি পেয়েছে শায়নার। এরই মধ্যে নজরে পড়েছেন সবার। সম্প্রতি শুরু হয়েছে তাঁর দ্বিতীয় ছবি নারগিস আক্তারের ‘পুত্র এখন পয়সাওয়ালা’র শুটিং। লিখেছেন সুদীপ কুমার দীপ
শায়নারা একসময় সৌদি আরবে থাকতেন। বাবা সেখানকার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ছিলেন। শায়নার জন্মের পরপরই তাঁরা বাংলাদেশে চলে আসেন। এর কারণও কিন্তু শায়না। মেয়েটিকে বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য সম্পর্কে জানাতেই বাবার এই সিদ্ধান্ত। সেই মেয়েটি এখন অনেক বড় হয়েছেন। সম্মান প্রথম বর্ষের ছাত্রী শায়না আমিন।

শায়নার চলচ্চিত্রে আসাটা হঠাৎ করেই। শুরুর দিকে চলচ্চিত্রে নিজেকে আগন্তুক মনে হতো তাঁর। প্রথম ছবি ‘মেহেরজান’ মুক্তির পর তাঁকে নিয়ে আলোচনা সর্বত্র। এখন আর আগন্তুক মনে হয় না। পুরোদমে চলচ্চিত্রের বাসিন্দা হতে চান। নিজেকে চলচ্চিত্রের একজনই মনে করেন। চলছে তাঁর দ্বিতীয় ছবি ‘পুত্র এখন পয়সাওয়ালা’র শুটিং। নতুন এ ছবিটি নিয়ে অনেক পরিকল্পনা শায়নার। ছবির চরিত্রের সঙ্গে নাকি তাঁর জীবনের অনেক মিল। তাই যথাসাধ্য চেষ্টা করছেন চরিত্রটিকে ফুটিয়ে তুলতে। অনেক ধৈর্য নিয়ে চরিত্রটির সঙ্গে নিজেকে মিলিয়ে নিচ্ছেন। ধৈর্যের শিক্ষাটা শায়না পেয়েছেন তাঁর মায়ের কাছ থেকে। মায়ের চলাফেরা, কথা বলা, আচার-ব্যবহারের সবই নকল করেন তিনি। বলেন, ‘পৃথিবীর সব মা-ই ভালো। তবে আমার মা একটু বেশিই ভালো। আমি অন্যদের সঙ্গে মিলিয়ে দেখেছি। তাঁর মতো আর কাউকে পাইনি।’

ইদানীং বেশ ব্যস্ততায় দিন যাচ্ছে শায়নার। একদিকে পরীক্ষার প্রস্তুতি অন্যদিকে শুটিং। কোনটি রেখে কোনটি করবেন তিনি? সমাধান করে দিলেন মা-ই। শায়না বলেন, ‘একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি টেবিলের ওপর একটি কাগজ রাখা। খুলে দেখি মা একটি রুটিন করে দিয়েছেন আমার জন্য। এত সুন্দর করে তাতে আমার পুরো সময়টাকে ব্যবহার করা হয়েছে যে আমি তাঁকে সালাম না করে পারিনি।’ ‘পুত্র এখন পয়সাওয়ালা’ ছবিটি এ বছরই শেষ করতে চান শায়না। কারণ বড় ভাইকে কথা দিয়ে রেখেছেন এবারের থার্টিফার্স্ট নাইটটা ইংল্যান্ডেই করবেন। এখনই শুরু করেছেন ব্যাগ গোছানো।

ইদানীং অনেক ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব পাচ্ছেন এই অভিনেত্রী। সব প্রস্তাবে সায় দেওয়ার দরকার মনে করছেন না তিনি। তাঁর মতে, ‘আগে পড়াশোনা, তারপর অন্য কিছু।’

Leave a Reply