সংসদীয় কমিটির মুখোমুখি হচ্ছেন না ফখরুদ্দীন-মইন

কাজী সোহাগ: শেষ পর্যন্ত সংসদীয় তদন্ত কমিটির মুখোমুখি হচ্ছেন না তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ ও সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) মইন উ আহমেদ। ২০০৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সেনা-ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনায় তাদের সাক্ষ্য নিতে আগামীকাল সংসদীয় কমিটিতে তলব করা হয়েছে। তবে দুজনের কেউই আসছেন না। শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে গতকাল মানবজমিনকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগেও তাদের তলব করে চিঠি দেয়া হলে ঢাবির ওই ঘটনা নিয়ে তারা লিখিত মতামত দেন। পরে কমিটি ওই মতামত প্রত্যাখ্যান করে। একইসঙ্গে স্বশরীরে হাজির হওয়ার জন্য দ্বিতীয় দফায় চিঠি পাঠায়। এ প্রসঙ্গে কমিটি সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, প্রথমবার চিঠি দেয়ার পর তারা যোগাযোগ করলেও দ্বিতীয়বার করেননি। দুদিন সরকারি ছুটি থাকায় যোগাযোগেরও কোন সুযোগ নেই। তাই আমরা ধরেই নিচ্ছি তারা কমিটির মুখোমুখি হচ্ছেন না।

এদিকে তলবে সাড়া না দেয়ায় সাবেক ওই দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সংসদীয় তদন্ত কমিটি সংসদ অবমাননার অভিযোগ উত্থাপন করবে। এর আগে কমিটির সদস্য মাগুরা থেকে নির্বাচিত এমপি বীরেন শিকদার এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে এসব পদক্ষেপ চূড়ান্ত করা হয়েছে। রোববারের বৈঠকে এ নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হবে। এদিকে আগামীকালের বৈঠকে তৎকালীন রাজশাহীর র‌্যাব প্রধান ও ডিজিএফআই’র কর্নেল শামসুল আলম খান কমিটির কাছে তাদের মতামত তুলে ধরবেন। তদন্ত কমিটির এক কর্মকর্তা জানান, ওই দুই কর্মকর্তার সাক্ষ্য চেয়ে চিঠি পাঠালে তারা কমিটির সঙ্গে যোগাযোগ করে বৈঠকে হাজির হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এছাড়া আগামীকালের বৈঠকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আআমস আরেফীন সিদ্দিক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সাইদুর রহমান, অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান একে আজাদ চৌধুরীকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ঘটনা অধিকতর তদন্তের জন্য গত বছরের ১৯শে আগস্ট শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি রাশেদ খান মেননকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের এ উপকমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অপর সদস্যরা হচ্ছেন- শাহ আলম, মির্জা আজম ও বীরেন শিকদার। এর আগে গত ২৭শে ফেব্রুয়ারি কমিটির চুুর্থ বৈঠকে প্রধান উপদেষ্টা ও সাবেক সেনাপ্রধানকে ডাকার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কমিটি এরইমধ্যে ওই সংঘর্ষের পরে নির্যাতিত শিক্ষার্থী ও ছাত্রনেতাদের বক্তব্য নিয়েছে। শিক্ষার্থীরা ওই ঘটনায় ফখরুদ্দীন ও মইনের বিচার দাবি করেন। উল্লেখ্য, বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ২০শে আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মাঠে খেলা দেখাকে কেন্দ্র করে ছাত্র ও সেনা সদস্যদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। ওই সহিংসতা ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার ২২শে আগস্ট সন্ধ্যায় ছয় বিভাগীয় শহরে কারফিউ জারি করে। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ৫৩টি মামলা করে। ওই ঘটনায় উস্কানি দেয়ার অভিযোগে ঢাকা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের গ্রেপ্তার করা হয়। নির্বিচারে আটক করে নির্যাতন করা হয় ছাত্রদের।

Leave a Reply