দাতাদের সম্মতি পেলে পদ্মা সেতুর দরপত্র এ মাসেই

ঋণদাতা সংস্থাগুলোর সবুজ সংকেত পেলে চলতি মাসেই পদ্মা সেতু নির্মাণের দরপত্র ডাকার প্রক্রিয়া শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন।

সোমবার এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) সঙ্গে ঋণচুক্তি হওয়ার পর মন্ত্রী বলেন, “পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য সবগুলো ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি হয়ে গেছে। দাতাদের অনাপত্তি পেলে চলতি মাসেই আমরা সেতু নির্মাণ ও নদী শাসনের জন্য দরপত্র প্রক্রিয়া শুরু করতে চাই।”

এই চুক্তির আওতায় পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য বাংলাদেশকে ৬১ কোটি ৫০ লাখ ডলার দেবে এডিবি। শেরে বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ চুক্তিতে সই করেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া ও ঢাকায় এডিবির আবাসিক পরিচালক থিবা কুমার কান্দিয়াহ।

২৯০ কোটি ডলার ব্যয়ে নির্মিতব্য পদ্মা সেতুর জন্য বিশ্বব্যাংক দেবে ১২০ কোটি ডলার। জাপান দেবে ৪১ কোটি ৫০ লাখ ডলার। আর ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) দিচ্ছে ১৪ কোটি ডলার। বাকি অর্থ বাংলাদেশ সরকারই বহন করবে। বিশ্বব্যাংক, আইডিবি ও জাপানের সাহায্য সংস্থা জাইকার সঙ্গে এ বিষয়ে ইতোমধ্যে সরকারের চুক্তি হয়েছে।

যোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, দরপত্র চূড়ান্ত হলে প্রথমে তা সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এতে চূড়ান্ত অনুমোদন দেবেন।

“আমরা চলতি বছরের শেষ নাগাদ সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করতে চাই। আর নির্মাণ কাজ শেষ করতে চাই যতো দ্রুত সম্ভব।”

প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান অনুষ্ঠানে বলেন, সরকার যতো দ্রুত সম্ভব স্বচ্ছতার সঙ্গে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ করবে।

“নিখুঁতভাবে কাজটি শেষ করার জন্য আমাকে পদ্মা সেতু প্রকল্পের একজন উপদেষ্টা নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।”

এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্ট শিয়াউ ঝাও বলেন, পরিকল্পনা বাস্তবায়নই মূল চ্যালেঞ্জ। উন্নয়ন সহযোগীরা চায়, কোনো রকম দুর্নীতি ছাড়াই এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হোক।

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বহু প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। মূল সেতুর নকশা এরই মধ্যে তৈরি হয়েছে। নদীশাসন এবং সেতুর দুই পাড়ের রাস্তার নকশাও চূড়ান্ত হয়েছে।

নদীর ওপর সেতুর মূল দৈর্ঘ্য হবে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার। আর দুই পাশে সংযোগ সড়কের দৈর্ঘ্য ১২ কিলোমিটার।

এ সেতু এশিয়ার দীর্ঘতম সেতু হতে চলেছে বলে পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্পে পরিচালক রফিকুল ইসলাম ইতোপূর্বে জানিয়েছেন। বলা হচ্ছে, পদ্মা সেতুর নির্মিত হওয়ার পর জিডিপি ১ দশমিক ২ শতাংশ বাড়বে।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বলেন, সেতু প্রকল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। বর্তমান সরকারের মেয়াদের মধ্যেই এর নির্মাণ কাজ শেষ করার চেষ্টা করা হবে।

Leave a Reply