বাঁশ-বালুতে মেঘনা ভরাট

তানভীর হাসান, মুন্সিগঞ্জ: মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া ও নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সীমান্তবর্তী মেঘনা নদীর বিস্তীর্ণ এলাকায় বাঁশ পুঁতে মাটি ভরাট করছে মেরিটিমাস লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। দেশের প্রধান তিনটি নদীর একটি এই মেঘনা।

মেরিটিমাসের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম দাবি করেছেন, নদীর ভেতরে তাঁদের জমি আছে। তাঁরা এখানে ৫০ একর জায়গাজুড়ে জাহাজ নির্মাণ কারখানা তৈরি করবেন।

তবে প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে শিপইয়ার্ডের অবস্থান লেখা আছে মেঘনা নদীর পশ্চিম তীরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার চর কিশোরগঞ্জে। জায়গার পরিমাণ লেখা ৭০ একর। ওয়েবসাইটে প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা বোর্ডের সদস্য কিংবা কোনো কর্মকর্তার নাম নেই। ব্যবস্থাপনা পরিচালকের একটি বার্তা থাকলেও সেখানে তাঁর নাম নেই।

স্থানীয় ভূমি প্রশাসন বলছে, প্রতিষ্ঠানটি সম্প্রতি ৩১ একর জমি তাদের নামে নামজারি করার জন্য আবেদন করেছে। কিন্তু কাগজপত্রে দেখা যায়, এসএ খতিয়ানে ওই পুরো জমিই খাস হিসেবে অন্তর্ভুক্ত। তাই নামজারির আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়। এর বাইরে প্রতিষ্ঠানটি আরও অন্তত পাঁচ একর খাসজমিও দখল করেছে এবং এ জন্য ভূমি দপ্তর তাদের নোটিশও করেছে। আবার আরএস খতিয়ানে মালিক দাবি করে কিছু লোক প্রতিষ্ঠানটির কাছে জমি বিক্রি করেছেন। এমন ১৪ ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে বেশি জমি লিখে নেওয়ার অভিযোগে জালিয়াতির মামলাও করেছেন। প্রস্তাবিত এই ‘জাহাজ নির্মাণ কারখানা’র জন্য কোনো পরিবেশ ছাড়পত্রও নেয়নি প্রতিষ্ঠানটি।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, গজারিয়ার চর রমজানবেগ ও সোনারগাঁয়ের চর কিশোরগঞ্জ মৌজায় মেঘনা নদীর তীরের জমি ইতিমধ্যে ড্রেজিং করে ভরাট করা হয়েছে। এখন নদীর ভেতরে বিশাল এলাকা জুড়ে বাঁশ পুঁতে বালু ফেলে ভরাট করা হচ্ছে। দুই জেলার পরিবেশ দপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসনের কেউ-ই গত এক বছরে সেখানে যায়নি বা দখলকারীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

নামজারির আবেদন বাতিল: মেঘনার তীরবর্তী চর কিশোরগঞ্জ মৌজায় প্রায় ৩১ একর জমি নামজারি করার জন্য মেরিটিমাস কর্তৃপক্ষ সোনারগাঁ ভূমি অফিসে আবেদন করে। কিন্তু ‘এসএ রেকর্ডে ওই জমি খাস খতিয়ান হওয়ায়’ তৎকালীন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা নামজারির আবেদন খারিজ করেন। বিষয়টি ওই অবস্থায় পড়ে আছে।

এ ছাড়া বর্তমানে আরএস খতিয়ানভুক্ত কয়েক একর সরকারি জমি বন্দোবস্ত নেওয়ার জন্যও আবেদন করে কোম্পানিটি। সেই আবেদনও ভূমি অফিস অনুমোদন করেনি।

সোনারগাঁ উপজেলার তৎকালীন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আবুল আমিন প্রথম আলোকে জানান, চর কিশোরগঞ্জের মেঘনা নদীর তীরবর্তী ওই সব জমি এসএ রেকর্ড অনুযায়ী খাসজমি। কিন্তু আরএস খতিয়ানে ওই জমি ব্যক্তিমালিকানায় রেকর্ড করা আছে। মেরিটিমাস কর্তৃপক্ষ যে পরিমাণ জমি ব্যক্তিমালিকানায় রেকর্ড রয়েছে, তার মধ্যে প্রায় ৩১ একর জমি কিনে তাদের প্রতিষ্ঠানের নামে নামজারি করার জন্য আবেদন করেছিল। কিন্তু ওই জমি যেহেতু এসএ রেকর্ডে খাসজমি, তাই আবেদন মঞ্জুর করা হয়নি। আবুল আমিন আরও জানান, তারা কয়েক একর খাসজমি বন্দোবস্ত নেওয়ার জন্যও আবেদন করছে। সে আবেদনও বাতিল করা হয়েছে।

খাসজমিনহ নদী দখলের বিষয়ে জানতে চাইলে সোনারগাঁ উপজেলার বর্তমান সহকারী কমিশনার (ভূমি) শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘সহকারী ভূমি কর্মকর্তা সরেজমিন দেখতে যাবেন। তিনি এসে আমাকে রিপোর্ট দেবেন। বিধিবহির্ভূত কোনো কাজ হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরসিয়া কমল বলেন, ‘চর কিশোরগঞ্জের বিষয়টি শুনেছি। তবে এ সম্পর্কে আগের এসি ল্যান্ড ভালো বলতে পারবেন। তাঁর সঙ্গে কথা বলতে পারেন।’

মুন্সিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. মমতাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বিষয়টির খোঁজখবর করে দেখব।’

মেরিটিমাসের ভূমি তত্ত্বাবধায়ক মো. আবু হানিফ দাবি করেন, মেরিটিমাস ১৫০ বিঘা (৫০ একর) জমির ওপর জাহাজ নির্মাণ কারখানা করবে। ১৫০ বিঘার মধ্যে অল্প কিছু ছাড়া সব জমি তাদের দখলে আছে। বাকি জমি মালিকদের কাছ থেকে কেনার চেষ্টা চলছে।

দখলের বিরুদ্ধে ভূমি অফিসের নোটিশ: সরকারি জমি দখলের অভিযোগে ২০১০ সালের মার্চ মাসে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস মেরিটিমাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে নোটিশ করেছে। মেরিটিমাস কর্তৃপক্ষ গতকাল পর্যন্ত ওই নোটিশের জবাব দেয়নি।

গজারিয়া ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মো. হাবিবুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের প্রায় পাঁচ একর জমি কোনো অনুমতি ছাড়াই দখল করা হয়েছে। এ কারণে আমরা নোটিশ দিয়েছি। কিন্তু তারা নোটিশের জবাব দিচ্ছে না।’

মামলা: নদীর পাড়ের জমির বিষয়ে চর কিশোরগঞ্জ এলাকার চাষি রমজান হোসেন (৬০) প্রথম আলোকে বলেন, ‘এই জমিতে আমরা চাষ করতাম। তিন ফসলি জমি। এক মৌসুমে আলু ও কফি, আরেক মৌসুমে পটোল, বাঙ্গি, তিল, কাউন হয়। বর্ষায় আমন ধান ও পাট চাষ হয়। এহন কোম্পানি সব জমি বালু দিয়া ভরাট কইরা ফালাইতাছে।’

আরএস রেকর্ডে জমির মালিক আবুল মাদবর বলেন, ‘অনেকের কাছ থেইক্যা কোম্পানি জমি কিনছে। আমিসহ ১৪ জনের কাছ থেকে জমি নিয়া তারা আমাগো লগে জালিয়াতি করছে। আমরা লেখাপড়া জানি না। এই সুযোগে বেশি জমি লেইখ্যা নিছে। আমরা নারায়ণগঞ্জ আদালতে কোম্পানির বিরুদ্ধে জালিয়াতির মামলা করছি। এহন তারা মীমাংসা করার জন্য বসার চেষ্টা করতাছে।’

এলাকাবাসী জানান, ছয় মাস ধরে মেরিটিমাস নদীর পারের ফসলি জমি ও নদীর ভেতরে ড্রেজিংয়ের বালু ফেলে ভরাট করছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নদী ও নদীতীরের বিশাল এলাকায় বালু ভরাট করা হচ্ছে। নদীর ভেতরে উত্তর-দক্ষিণে বিশাল অংশ জুড়ে সারি সারি বাঁশ পুঁতে রাখা হয়েছে। তার ভেতরে ফেলা হচ্ছে বালু। পাশেই বালুর বস্তা স্তূপ করে রাখা।

মেরিটিমাসের দাবি: সেখানেই চোখে পড়ল ১০-১৫ জন লোক। কাছে গিয়ে জানা গেল, এঁরা প্রতিষ্ঠানের লোক। তাঁদের মধ্যেই ছিলেন মেরিটিমাসের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম। সেখানেই তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘এখানে সম্পূর্ণ আন্তর্জাতিক মানের জাহাজ নির্মাণ করা হবে। সরকার চাইতেছে এখানে জাহাজ নির্মাণ কারখানা হোক। মেরিটিমাস পরিচালকসহ অংশীদারেরা যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি দেশের নাগরিক। এঁদের দেশে-বিদেশে ব্যবসা আছে। এখানে ব্যাপক টাকা বিনিয়োগ করা হবে।’ কোম্পানির সঙ্গে কতজন পরিচালক বা অংশীদার আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা কোম্পানির গোপন বিষয়। বলা যাবে না।

কর্মকর্তাদের ভিজিটিং কার্ডে দেখা যায়, মেরিটিমাস লিমিটেডের প্রধান কার্যালয় রাহাত টাওয়ার, দ্বিতীয়তলা, ১৪ বিপণন, সি/এ লিংক রোড, বাংলামোটর, ঢাকা।

নদী দখল বিষয়ে জানতে চাইলে রফিকুল ইসলাম দাবি করেন, ‘নদীর আরও ২০ ফুট ভেতরে আমাদের জমি আছে।’

নদীর তীর, নদী ভরাটের এবং কারখানা করার জন্য অনুমোদন বা ছাড়পত্র নিয়েছেন কি না, জানতে চাইলে রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘অবশ্যই। আর পরিবেশের ছাড়পত্র ছাড়া কি কাজ শুরু করেছি।’

পরিবেশ দপ্তরের বক্তব্য: তবে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আক্তারুজ্জামান বলেন, তাঁরা মেরিটিমাস নামের কোনো জাহাজ নির্মাণ কারখানার জন্য কোনো পরিবেশের ছাড়পত্র দেননি। কেউ এমন কথা বলে থাকলে মিথ্যা বলেছে।

পরিবেশ অধিদপ্তরের মুন্সিগঞ্জ কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সোনিয়া সুলতানাও এমন কোনো প্রতিষ্ঠানকে ছাড়পত্র না দেওয়ার কথা জানিয়ে বলেন, ‘এমন কোনো প্রতিষ্ঠান তাঁদের কাছে আবেদনই করেনি।’

নদী দখলের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে সোনিয়া সুলতানা বলেন, নদীর গতিপথ নষ্ট করে কোনো কিছু করা যাবে না। পরিবেশের ওপর প্রভাব পড়ে এমন কোনো কাজ করা যাবে না। এটা পরিবেশ আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। মেরিটিমাস নদী দখল করছে কি না, খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখবেন বলে জানান তিনি।

Leave a Reply