‘বাঁশ-বালুতে মেঘনা ভরাট’ বন্ধ হয়েছে

‘বাঁশ-বালুতে মেঘনা ভরাট’ আপাতত বন্ধ হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. শামসুর রহমানের নির্দেশে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সোনারগাঁ থানার পুলিশ বালু ফেলে নদী দখলের কাজ বন্ধ করে। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার চর কিশোরগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার চর রমজানবেগ মৌজায় মেঘনা নদীর বিপুল এলাকায় বাঁশ পুঁতে ও ড্রেজার দিয়ে নদী থেকে বালু তুলে ফেলে দখল করছিল মেরিটিমাস লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। গতকাল প্রথম আলোয় এ বিষয়ে প্রধান প্রতিবেদন ছাপা হয়।

গতকাল রাত আটটার দিকে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক শামসুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা যে কোনো নদী দখলদারের হাত থেকে রক্ষা করতে বদ্ধপরিকর। তাই তাদের (মেরিটিমাস লিমিটেড) নদী দখল বন্ধ করার জন্য চিঠি দেওয়ার পাশাপাশি মৌখিকভাবে সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দিয়েছি।’ জেলা প্রশাসক আরও জানান, মেরিটিমাস কীভাবে কাজ শুরু করল, তা তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সোনারগাঁয়ের সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, একজন তহশিলদার ও সার্ভেয়ারকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। তাঁরা দাগ-খতিয়ান দেখে প্রতিবেদন দেবেন। এই প্রতিবেদন জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো হবে।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইউনুস আলী বলেন, নির্দেশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ গিয়ে দখলের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। আগামী ১২ জুন মেঘনায় পোঁতা বাঁশের খুঁটি ভেঙে ফেলা হবে।

জানতে চাইলে মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা আজ (গতকাল) সারা দিন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের কাজে ছিলাম। গজারিয়ার ইউএনও এবং এসি (ল্যান্ড) নির্বাচনী দায়িত্বে ছিলেন। আগামীকালের (আজ) মধ্যে এসি (ল্যান্ড) এবং ইউএনওকে পাঠিয়ে ব্যবস্থা নেব।’

মুল রিপোর্টটি পড়ুন

Leave a Reply