শ্রীনগরে হামলায় র‌্যাব-পুলিশসহ আহত ৫০

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলায় পৃথক নির্বাচনী সহিংসতায় প্রিজাইডিং অফিসার, র‌্যাব ও পুলিশসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। র‌্যাব পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১২ রাউন্ড গুলি ছুড়েছে। আহতদের স্থানীয় হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া বালাসুর কেন্দ্রে সংঘর্ষের পর থেকে ১ জন নিহত হয়েছে বলে সর্বত্র গুজব ছড়িয়ে পড়ে। এতে সর্বত্র আতঙ্ক দেখা দেয়। তবে একাধিক সূত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করে তার সত্যতা পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, ফলাফল ঘোষণার পর রাঢ়িখাল ইউপির উত্তর বালাসুর কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সহিংসতায় প্রিজাইডিং অফিসার, ৩ পুলিশ ও দুই আনসারসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। পরাজিত প্রার্থীর লোকজন আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর ওপর হামলা চালিয়ে ব্যালট বাঙ্ ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। পরে সহকারি পুলিশ মো. সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ব্যালট বাঙ্ উদ্ধার করে উপজেলা কন্ট্রোল রুমে নিয়ে যায়। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কুকুটিয়া কেকে ইনিস্টিটিউশন কেন্দ্রে ফলাফল ঘোষণার পর পরাজিত প্রার্থীর লোকজন হামলা চালালে সংঘর্ষ ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি শান্ত করে ফেরার পথে হামলায় র‌্যাবের নায়েক জয়নাল (৪৫) আহত হয়েছেন।

অন্যদিকে শ্রীনগর ইউএনও আব্দুল লতিফ মোল্লা জানান, তন্তর ইউনিয়ননের সুফীগঞ্জ মাদ্রাসা কেন্দ্রে ফলাফল ঘোঘণা করে কেন্দ্র থেকে উপজেলায় ফেরার পথে সুফীগঞ্জ এলাকায় পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল আজিজের লোকজন হামলা চালায়। এতে প্রিজাইডিং অফিসার শ্রীনগর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক গোলাম মাওলা ও পুলিশের এসআই সফিক এবং আরও ৭ পুলিশসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে। পরে র‌্যাব ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ১০ থেকে ১২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে।

শীর্ষ নিউজ
————————————-

শ্রীনগরে সংঘর্ষে র‌্যাব সদস্য গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার উত্তর বালাশুরে ভোট গণনকালে মঙ্গলবার রাতে দু’চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে র‌্যাব সদস্য গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে।

রাঢ়ীখাল ইউনিয়নের উত্তর বালাশুর কমিউনিটি বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

র‌্যাব-১১’র ভাগ্যকুল কার্যালয়ের কমান্ডার লুৎফর রহমান রাত সাড়ে ৯ টায় র‌্যাব সদস্য গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন। তবে গুলিবিদ্ধ র‌্যাব সদস্যের পরিচয় জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাত ৮ টার দিকে ভোট গণনাকালে বাবুল আক্তার ও অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী রিপন বেপারীর সমর্থকরা কেন্দ্রের ভেতর প্রবেশ করে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় উভয় প্রার্থীর সমর্থকরা ব্যালট পেপার ও ভোট বাক্স ছিনিয়ে নিতে গেলে র‌্যাব-পুলিশ বাধা দেয়। এরপরই দু’চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা গোলাগুলি ও ইটপাটকেল নিক্ষেপে জড়িয়ে পড়লে র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। ত

ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত র‌্যাব-পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ওই কেন্দ্রের ব্যালট পেপার ও ভোট বাক্স ছিনিয়ে নিতে ব্যর্থ হয়েছে বলে দাবি করে র‌্যাব।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply