‘সংগীতজীবনের প্রতিটি মুহূর্তই উপভোগ করছি’

প্রকাশিত হয়েছে হাবিবের দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘আহ্বান’। অ্যালবাম এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে তাঁর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রবিউল ইসলাম জীবন
মুঠোফোন, এফএম, এরপর সিডি আকারে এসেছে ‘আহ্বান’। বিষয়টি কেমন উপভোগ করলেন?
পুরো বিষয়টি দারুণ উপভোগ করেছি। আমার বিশ্বাস, এর মাধ্যমে আমাদের সংগীতের একটি নবধারা সৃষ্টি হয়েছে। দিন দিন মানুষের রুচি ও অভ্যাসের পরিবর্তন হচ্ছে। গানের ক্ষেত্রেও তা-ই। গান শোনার মাধ্যমেও এসেছে পরিবর্তন। মানুষের জীবনযাত্রা এখন অনেক বেশি মোবাইল ফোননির্ভর। অফিসে, রাস্তায় কিংবা জ্যামেই কেটে যায় বেশির ভাগ সময়। এ সময় মোবাইল ফোনই হয় তার বেস্ট ফ্রেন্ড। অনেকেই এ সময় গান শুনে সময়টা পার করেন। সে ক্ষেত্রে মুঠোফোনে গান রিলিজের বিষয়টি শ্রোতারাও ইতিবাচকভাবে দেখছেন। এতে পাইরেসি কিংবা নকলের সুযোগ নেই। অন্যদিকে এফএম এবং সিডি আকারে গান রিলিজের প্রক্রিয়া তো রয়েছেই। তবে আমি এফএম কর্তৃপক্ষকেও বলব, তারা যেন শিল্পীদের ব্যাপারে মনোযোগী হয়।

কেমন সাড়া পেয়েছেন?
অভূতপূর্ব! অনেকেই গানগুলো শুনে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। বলেছেন, তাঁরা খুশি।

শ্রোতাদের একটি প্রতিক্রিয়া যদি শোনাতেন…
(হেসে)! একজনেরটা বলার সুযোগ নেই। বললে অনেকেরটাই বলতে হবে!

অ্যালবামের গানগুলো নিয়ে বলুন…
শুরু থেকেই মাথায় রেখেছি, যেন গানগুলো আমার আগের অ্যালবামের চেয়ে একেবারেই আলাদা হয়। আমার মনে হয়, আমি সেটা করতে পেরেছি। দুই-তিনটা গান আছে এঙ্পেরিমেন্টাল। সুর ও সংগীতায়োজনে মেলোডিকেই প্রাধান্য দিয়েছি। এককের পাশাপাশি এতে তিনটি দ্বৈত গানও রয়েছে। এগুলোতে আমার সঙ্গে গেয়েছেন ন্যান্সি ও কণা। অ্যালবামটি প্রকাশিত হয়েছে ডেডলাইন মিউজিক থেকে। আর পৃষ্ঠপোষকতায় রয়েছে বাংলালিংক।

গানগুলো তৈরি করতে কত সময় লেগেছে?
গানগুলো বিভিন্ন সময়ে করা। তবে মূল কাজটা হয়েছে এ বছরই। যেমন ‘এক ঝাঁক পায়রা’ শিরোনামে একটি গান রয়েছে, যেটি ২০০৮ সালের দিকে করা। আবার ‘আহ্বান’ গানটি করেছি সবশেষে। মজার বিষয় হলো, ‘লাস্ট’-এ করা গানটিই অ্যালবামে ‘ফার্স্ট’-এ রেখেছি। এ ছাড়া এ অ্যালবামকে ভেবে তৈরি করেছি এমন গানের মধ্যে রয়েছে ‘তুমি যে আমার ঠিকানা’, ‘আর নেই ভালোবাসা’, ‘চোখে চোখে রাত্রি’ প্রভৃতি।

গান তৈরির কোনো মজার ঘটনা যদি শোনাতেন…
‘আহ্বান’ গানটি নিয়েই বলি। আমি আর আমার বন্ধু মিঠুন চট্টগ্রামের এক হোটেল রুমে বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম। মজা করতে করতে আমাদের মাথায় গানটি তৈরির আইডিয়া আসে। মনমতো একটা সুরও চলে আসে। মিঠুন আমাকে বেশ উৎসাহ দেয়। ওই হোটেল রুমে বসেই (ল্যাপটপে) গানটি প্রায় শেষ করি ফেলি। ঢাকায় এসে কথা ও মিউজিকের বাকি কাজ করেছি।

অ্যালবামের কোন গানটি আপনার সবচেয়ে প্রিয়?
এটা তো বলা মুশকিল। আমার সব গানই আমার কাছে প্রিয়। কারণ প্রতিটি গানেই আমার অনেক স্মৃতি, অনেক আবেগ-অনুভূতি জড়িয়ে থাকে।

‘এ অ্যালবামের প্রচ্ছদ নকল’_এমন অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে আপনি কী বলবেন?

আমার মনে হয়, এসব নিয়ে না ভাবাই ভালো। এর চেয়ে কোনো গানের কোনো অংশে নকল আছে কি না, কিংবা গানগুলো কেমন হয়েছে, তা নিয়ে আমাদের ভাবা উচিত।

এবার আসি ভিন্ন প্রসঙ্গে। শুনেছি, ন্যান্সির পুরো অ্যালবামের কাজ করছেন…

হ্যাঁ। অনেক আগেই এমন পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু নানা ব্যস্ততার কারণে হয়ে ওঠেনি। ঈদে না পারলেও এ বছরই শ্রোতারা অ্যালবামটি হাতে পাবেন।
ডিজে সনিকার এককও তো করছেন… কিছু কাজ হয়ে আছে। আশা করি আগামী বছর এ অ্যালবামটি বের করতে পারব।

হেলাল এবং কায়ার অ্যলবামও তো শুরু করেছিলেন। তার কী হলো?
আরো কিছুদিন পরে শুরু করব। গানের ভয়েস নেওয়া আছে। সংগীতের কাজও কিছুটা হয়েছে। এ অ্যালবামের সব গানই লোকজ ধাঁচের। এ ধরনের গান গাওয়াই ওদের বিশেষত্ব।

আপনি তো বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল তৈরি নিয়েও অনেক ব্যস্ত। জিঙ্গেল তৈরিতে কেমন অনুভূতি হয়?
বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল তৈরি করে অনেক আনন্দ পাই। এখানে ছোট ছোট অনেক কাজ করার সুযোগ থাকে। জিঙ্গেলে ৪০-৬০ সেকেন্ডে আমি একটা গল্প ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করি।

গানের বাইরে সারা দিন আর কী করেন?
গান নিয়েই তো থাকি। সময় পেলে আড্ডা দিই। গল্প করি। ঘুরতে বের হই। ঘোরার জন্য কঙ্বাজারেই যাওয়া হয় বেশি। জায়গাটি আমাকে বেশ টানে।
আপনি তো একটু সুযোগ পেলেই কম্পিউটারে গেমস খেলতে বসে যান…
সেটা তো স্টুডিওতে। গেমস খেলে আমি দারুণ আনন্দ পাই। (হেসে) গেমস খেলা চলছে। চলবে।

সংগীতে আপনার সবচেয়ে সেরা অর্জন কী?
না, এমন কিছু এখনো নেই। যখন একটি ভালো সুর ও সংগীত তৈরি করতে পারি, তখন সেটিই আমার কাছে সেরা। ভবিষ্যতে হয়তো আরো ভালো কাজ করে ফেলতে পারি। তখন সেটাই হবে সেরা। আসলে আমি সংগীতজীবনের প্রতিটি মুহূর্তই উপভোগ করছি। এখানেই আমার যত সুখ। যত অর্জন।

কোন ইচ্ছাটা এখনো পূরণ হয়নি, কিন্তু পূরণ করতে চান?
আমার মনে হয় গানের তুলনায় আমাদের চলচ্চিত্র পিছিয়ে আছে। আমি চলচ্চিত্রের একটা পরিবর্তন দেখতে চাই। মনে অনেক আনন্দ নিয়ে, শান্তি নিয়ে চলচ্চিত্রের গান তৈরি করতে চাই। আমাদের চলচ্চিত্র আরো অনেক সুন্দর হবে, চলচ্চিত্রে আরো অনেক পরিবর্তন আসবে, এটাই আমার ইচ্ছা।

Leave a Reply