‘নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সরিয়ে দেয়া সমীচীন’

সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। মুন্সীগঞ্জ-২ আসন থেকে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বর্তমানে জাতীয় সংসদের হুইপ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রশ্নে চলমান বিতর্ক, বিরোধী দলের আন্দোলন, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, নারী উন্নয়ন নীতিসহ সমসাময়িক বেশ কিছু বিষয়ে সাপ্তাহিক-এর মুখোমুখি হয়ে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেছেন শরিফুল ইসলাম পলাশ

সাপ্তাহিক : তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যু নিয়ে ফের বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। বিরোধী দল এ ইস্যুতে হরতাল দিয়েছে। এ বিষয়টি দল হিসেবে আওয়ামী লীগ কীভাবে দেখছে?
সাগুফতা ইয়াসমিন : তত্ত্বাবধায়ক সরকার জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য। যেমনটি হলো কোনো রোগীর প্রাণ বাঁচানোর জন্য ‘কোরামিন’ ইনজেকশন দেয়া। এটা সবসময়ের জন্য গ্রহণযোগ্য সমাধান নয়। জরুরি একটা সময়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার মাধ্যমে গণতন্ত্রে নির্বাচনের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা হয়েছিল। উদ্বুদ্ধ অবস্থা থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষা করা হয়েছিল। কোনো গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে দীর্ঘদিন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা চালিয়ে যাওয়া এটা কোনো দেশের গণতন্ত্রের জন্য সুষ্ঠু কিংবা গ্রহণযোগ্য কথা না। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মাধ্যমে আমাদের দেশে ৪টি নির্বাচন হয়েছে। সেই নির্বাচনগুলোর কারণে আমরা একটা জায়গায় চলে আসতে পেরেছি। এখন নির্বাচন কমিশনকে আরো শক্তিশালী করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সরিয়ে দেয়া সমীচীন বলে আমি মনে করি। আমাদের নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমেই অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব। সেই চিন্তা থেকেই সরকার সেই পথে এগিয়ে যাচ্ছে।

সাপ্তাহিক : আপনরা নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করার কথা বলছেন। সরকার সামনের আড়াই বছরে নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করতে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে বলে আপনি মনে করেন কী ?
সাগুফতা ইয়াসমিন : অবশ্যই পারব। যদি আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশগুলো স্বল্পতম সময়ের মধ্যে সেই দেশগুলোতে নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করতে পারে তাহলে আমরা পারব না কেন? আগামী আড়াই বছরের মধ্যেই আমরা নির্বাচন কমিশনকে সত্যিকার অর্থে স্বাধীন ও শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে পারব। সরকার নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করার জন্য সর্বাত্মকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

সাপ্তাহিক : ক্ষমতায় থাকাকালে নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন করার কথা বলা হয়। আর বিরোধী দলে থাকলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি তোলা হয়। এ অবস্থাকে আপনি কীভাবে ব্যখ্যা করবেন?
সাগুফতা ইয়াসমিন : সব সরকার একইরকম হয়ে আসে না। ধরুন বিএনপি ২০০১ সালের নির্বাচনের পর মাগুরা নির্বাচন দিয়ে ভোট কারচুপি শুরু করেছে। ১৯৯৬ সালে তারা জোর করে রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা করেছে। ২০০৭ সালেও তারা কীভাবে নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিল দেশ ও জাতি সেটা জানে। কাজেই তারা ও আওয়ামী লীগ এক নয়। আওয়ামী লীগের জন্ম গণতন্ত্রের ভেতর থেকে। আমরা সত্যিকার অর্থেই আন্তরিকভাবে চাচ্ছি নির্বাচন কমিশন শক্তিশালী হোক। সেটা করা হবে। গণতন্ত্রকে টিকিয়ে রাখতে হলে সেটাই করা দরকার।

সাপ্তাহিক : নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করতে হলে করণীয়গুলো কী কী বলে আপনি মনে করেন?
সাগুফতা ইয়াসমিন : নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করতে হলে আরো দক্ষ জনবল নিয়োগ করতে হবে। সেখানে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করার জন্য অভিজ্ঞ লোকবল রয়েছে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে জনবল কম রয়েছে। সেই শূন্যপদগুলো পূরণ করতে হবে। একইভাবে নির্বাচন কমিশনকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিতে হবে। যাতে করে নির্বাচন কমিশন চাইলে পুলিশ প্রশাসনকে কাজে লাগাতে পারে এবং পুলিশ বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যেন তাদের কমান্ড শোনে। সেই সঙ্গে কমিশনের জন্য অর্থের বরাদ্দ আরো বাড়ানো এবং যে ধরনের লজিস্টিক সাপোর্ট তারা চায় সেগুলো নিশ্চিত করার পাশাপাশি কর্মরতদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে। সরকার আগামী আড়াই বছরের মধ্যেই এ ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এবং সেটা বাস্তবায়ন করতে পারবে।

সাপ্তাহিক : নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করা হলে বিরোধী দল সেটা সহজভাবে নেবে কিনা?
সাগুফতা ইয়াসমিন : বিরোধী দল যদি পজিটিভ না হয়, তারা যদি গঠনমূলক না হয় তাহলে তারা বিরোধী দল হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে পারে না। বিরোধী দলেরও তো একটা দায়িত্বশীল ভূমিকা থাকা উচিত জাতির জন্য। কারণ তারাও তো দেশবাসীর ভোট নিয়ে বিরোধী দলে এসেছে। তারা যদি কোনো কিছুই পজিটিভ মনে না করে, বিরোধী দলের যে ভূমিকা সেটা যদি তারা বুঝতে না পারে তাহলে আমাদের কিছু করার নাই।

নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করার প্রশ্নে সরকারের সঙ্গে বিরোধী দলের বিপরীত মেরুতে অবস্থান করার কোনো সুযোগ নেই। কারণ নির্বাচন কমিশন শক্তিশালী হলে তাদের মাধ্যমে নির্বাচন করা সম্ভব। অতীতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন হয়েছে।

সাপ্তাহিক : আদালতের রায়কে আপনারা সংসদের চাইতে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন নিজেদের স্বার্থে- বিরোধী দল এই অভিযোগ তুলছে…
সাগুফতা ইয়াসমিন : এটা উচ্চ আদালতের রায়। সরকার এটা করেনি, বিষয়টি আদালতে গেছে আদালত এ বিষয়ে রায় দিয়েছে। অনেক রায়ই তো সরকারের বিপক্ষে যায়, সেটা নিয়ে তো সরকার চিৎকার করছে না। একইভাবে অনেক রায় সরকারের জন্য সুবিধাজনক হয়ে থাকে। এই রায়টা একেবারে নিরপেক্ষভাবে বিচার বিভাগ দিয়েছে।

সরকার ও বিরোধী দলের উভয়েরই এই রায়টা সহজভাবে মেনে নেয়া উচিত। ওনারা ভাল কাজকে সহজভাবে নেন না। আমরা কোরান শরীফ পড়ার পর একটু পরিষ্কার করে সেটা উপরে উঠিয়ে রাখি, সেই কোরান শরীফ আমিনী রাস্তায় নিয়ে আসলো রাজনীতির অস্ত্র হিসেবে। তখন তো তারা আমিনীকে সহায়তা করেছে। ইস্যু কী? বাংলাদেশের ৫০ ভাগ জনসংখ্যা নারী, সেই নারীনীতির বিরুদ্ধে। সেখানেও তারা আমিনীকে সহযোগিতা করেছে।

যেভাবে গঠনমূলক প্রক্রিয়ায় রাজনৈতিক দলের জন্ম হয় সেভাবে ওনাদের দলের জন্ম হয়নি। পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসার দিক দিয়ে তারা ভালো ছিল। সেজন্য মাননীয় বিরোধীদলীয় নেত্রী লন্ডনে গিয়ে স্বীকার করে বলেছেন যে, ‘মঈন জিয়া হতে চেয়েছিল’। এটার মানে কী? জিয়া যেভাবে অবৈধপথে ক্ষমতা দখল করার জন্য এগিয়েছিল, সেনা বাহিনীকে কাজে লাগিয়েছিল এবং অন্যায় কাজটা করেছেন সেই কাজটা মঈন করতে চেয়েছিল।

সুস্থ ও স্বাভাবিক গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরি করার জন্য এবং গণতন্ত্রকে টিকিয়ে রাখার জন্য নির্বাচনকে শক্তিশালী করার কাজে বিরোধী দল সরকারকে সহযোগিতা করবে বলে আমি বিশ্বাস করি। বর্তমান সরকার কিন্তু তার অধীনে নির্বাচন করছে না। নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তার আগে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। সুস্থ ও স্বাভাবিকভাবে যে পদত্যাগ করা যায় সেটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বহুবার প্রমাণ করেছেন। উনি একমাত্র ক্ষমতায় আসলে স্বাভাবিক সময়ে স্বাভাবিকভাবে সরে যান। অন্য কেউ কখনো টানাহেঁচড়া না করা পর্যন্ত সরে নাই। আওয়ামী লীগ পদত্যাগ করার পর নির্বাচন কমিশনের চোখে দল হিসেবে অন্য সবার সমান হবে। তারপর আমরা সেই নির্বাচনে অংশ নেব।

সাপ্তাহিক :
আমাদের নির্বাচন কমিশন কী সকল বিতর্কের ঊর্ধ্বে থেকে তার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারবে?
সাগুফতা ইয়াসমিন : তাদের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই। সেখানে যারা আছে তারা খুবই যোগ্য। তাদের অধীনেই ২০০৮ সালে যে নির্বাচন হলো সেটা পৃথিবীর যে কোনো গ্রহণযোগ্য নির্বাচনগুলোর একটি। পর্যবেক্ষকগণ প্রত্যেকেই স্বীকার করেছেন সুন্দর একটা নির্বাচন এই কমিশনের অধীনে হয়েছে। এই কমিশনের বর্তমান শক্তির সঙ্গে শক্তি এবং সাহস, সহযোগিতা যোগ হলে নির্বাচন কমিশন তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারবে।

সাপ্তাহিক : নারীনীতি নিয়ে দেশে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে সেটাকে আপনি কীভাবে দেখছেন?
সাগুফতা ইয়াসমিন : আমাদের দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক, হয়ত একটু বেশি হবে নারীর সংখ্যা। এই নারী তাদের অর্থনৈতিক মুক্তি ও সামাজিক ব্যবস্থার কারণে অনেক কষ্ট করছেন। তারাও তো মানুষ। তাদের অধিকার রক্ষা করার জন্য অনেক পুরুষও কাজ করে গেছেন। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় থাকাকালে আমাদের প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি গুরুত্ব দিয়েছেন। সিডও চুক্তি বাস্তবায়ন ও নারীকে সত্যিকারের মানুষ হিসেবে মর্যাদা দিতে এই নারীনীতি প্রণয়ন করেছেন। এই নীতিটার বিরুদ্ধে রয়েছে জামায়াতে ইসলাম। তাদের সহযোগিতা করছে বিএনপি। অথচ বিএনপি কিন্তু নারীর ভোট পায়। নারীর ভোট জামায়াতে ইসলামও পায়।

তারা কোরান শরীফকে রাস্তায় নিয়ে আসছে, তারা এটাকে আন্দোলনের ইস্যু মনে করছে। এটা তারা যুদ্ধাপরাধীদের সাজা বন্ধ করার জন্য অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে। তারা অজুহাত খুঁজে বের করতে চায়, আর কিছু না। এটার ভেতরে কোরান সুন্নাহর বিরোধী কিছু নাই। এখানে উত্তরাধিকার গুরুত্বপূর্ণ একটা জিনিস। শুধু মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য এটা করা হয়েছে। এটার বাইরে কোরান সুন্নাহর বিরোধী কিছু করা হয় নাই।

এই নীতিমালা অবিলম্বে আমরা বাস্তবায়ন চাই এবং আইন আকারে। যাতে নারী তার মর্যাদা নিয়ে চলতে পারে। একটা পুরুষেরও বোঝা দরকার যে, তার মা, তার মেয়ে ও তার বোনের মর্যাদা না থাকলে তাদের বাদ দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। একটা দেশের ভালো উন্নয়ন করতে চাইলে সেটা তার অর্ধেক জনগোষ্ঠীকে পেছনে ফেলে রেখে করা সম্ভব নয়। উন্নয়নের জন্য নারীর অধিকার পুরোপুরি সংরক্ষণ, বিচার বিভাগ শক্তিশালী করার মতো বিভিন্ন বিষয় আছে।

সাপ্তাহিক : দেশে দ্রব্যমূল্য বাড়ছে, বাসভাড়া বাড়ছে। সরকার নির্ধারণ করে দেবার পরও বাড়তি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আপনার বক্তব্য কী?
সাগুফতা ইয়াসমিন : আমাদের ছোট্ট আকারের একটা দেশে বিশাল সংখ্যক জনসংখ্যা বসবাস করে। এতগুলো জনগণকে খাওয়ায়ে-পরায়ে ঠিকঠাক মতো রাখা এটা কিন্তু খুব সহজ ব্যাপার না। আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ নই। আমাদের কিছু কিছু খাদ্য আমদানি করতে হয়। শেষ কয়েকটা বছরে বিভিন্ন কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে ডলারের দাম, স্বর্ণের ও ভোগ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা পৃথিবীর বাইরের কোনো গ্রহের বাসিন্দা নই। পৃথিবীজুড়ে দাম বৃদ্ধির প্রভাব আমাদের ওপর পড়ছে। যে কারণে আমরা ভর্তুকি দিয়ে, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনির মধ্য দিয়ে খাদ্যপণ্যের মূল্য মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছি। একটা সময়ে এসে আমরা এই সঙ্কট পার করতে পারব ইনশাল্লাহ। এই মুহূর্তে যদি শেখ হাসিনা না থেকে অন্য কেউ প্রধানমন্ত্রী থাকত তাহলে চালের কেজি থাকতো একশ টাকা। আমরা সবরকম সাপোর্ট দিয়ে চালের মূল্যটাকে ধরে রেখেছি। জিনিসপত্রের দামের সঙ্গে মানুষের আয়ও বেড়েছে। রিকশা ভাড়া বেড়েছে, গার্মেন্টস শ্রমিকদের পারিশ্রমিক বেড়েছে।

বাসভাড়া নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে চেষ্টা করা হচ্ছে। নিঃসন্দেহে সরকার বাস মালিকদের চেয়ে বেশি পাওয়ারফুল। তবে একটা মানুষের পায়ে একটা পিঁপড়া কামড় দিলে সেটার ব্যথাও কিন্তু ১ থেকে ২ ঘণ্টা থাকে। বাস মালিক শ্রমিকরা জনগণেরই একটা অংশ। হার্ডলাইনে গেলেও সেটার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। আমরা অন্য কিছু না শিখলেও পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর কাছ থেকে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার কায়দা রপ্ত করতে পেরেছি। কীভাবে বাস কমিয়ে দিয়ে বা বন্ধ করে ভোগান্তি সৃষ্টি করা যাবে সেটা আমাদের বাস মালিকরা জানে। সেজন্য সরকারকে একটু বুঝে আগাতে হচ্ছে।

সাপ্তাহিক : আওয়ামী লীগের নেতারা অনেক সময় বলে থাকেন দল হিসেবে আওয়ামী লীগের সঙ্গে সরকারের দূরত্ব বাড়ছে। এ ব্যাপারে আপনার পর্যবেক্ষণ কী?
সাগুফতা ইয়াসমিন : আমার এমনটা মনে হয় না। আমি এটা বিশ্বাস করি না। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমি ১৮ ঘণ্টা পার্টির কাজ করি। আমার নেতাকর্মীদের নিয়ে দলের জন্য চিন্তা করি। উপমহাদেশে ক্ষমতাসীন দলের একটা ব্যাপার আছে। বাংলাদেশে বিশেষ করে ২০০১ সালের পর একটা পরিবর্তন এসেছে। তখনকার প্রধানমন্ত্রীর ছেলে তারেক রহমান একটা জিনিসের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে যে ক্ষমতায় গেলে অবৈধভাবে টাকা খাওয়ার সুযোগ আছে। আমি ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সংসদ সদস্য ছিলাম। ওই সময় কিন্তু আমার কর্মীরা ডিমান্ড করে নাই। তারা মনে করত যে রাজনীতি করা মানে জনগণের সেবা করা। মাঝখানে ৫টা বছরে সেই জিনিসটাকে তারেক জিয়া এমনভাবে নষ্ট করে রেখে গেছে, লুটতরাজ শিখিয়ে গেছে সেই অবস্থা থেকে স্বাভাবিক অবস্থায় আসতে সময় লাগবে।

আমার এলাকায় পদ্মা সেতুর কাজ হচ্ছে সেখানে আমার নেতাকর্মীরা এক কাপ চাও খায়নি। সেটা আমি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। কেউ যদি আওয়ামী লীগ সম্পর্কে দুঃখ করে এমন কথাবার্তা বলে থাকে এটা হচ্ছে চাওয়া-পাওয়ার কারণে। কিন্তু আমার মনে হয় না যে, সরকারের সঙ্গে আওয়ামী লীগের দূরত্ব রয়েছে।

সাপ্তাহিক : দলের প্রবীণ নেতাকর্মীদের সেভাবে মূল্যায়ন না করার অভিযোগ ওঠে। সেটাকে আপনি কীভাবে দেখেন?
সাগুফতা ইয়াসমিন : আওয়ামী লীগ খুব পুরনো দল, এর নেতাকর্মীরাই সবচেয়ে শক্তিশালী। কর্মীরা সবসময় ন্যায্য পথে থাকে। নেতাদের মধ্যে কিছু ভুলভ্রান্তি থাকতেই পারে কিন্তু কর্মীরা সবসময় ত্যাগী, তারা সবসময় দেশ ও দশকে নিয়ে চিন্তা করে। এটা আমি আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে বলছি। কাজেই দায়িত্বে থাকা না থাকা প্রবীণ নেতাদের কাছে মুখ্য নয়। তারাও তো অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আছেন। দল হিসেবে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী অবস্থানে নেবার জন্য তারা অনেক বড় ভূমিকা পালন করছেন। তাদের মূল্যায়ন করা হচ্ছে না এমনটা আমি মনে করি না। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা কাজ করে যেতে চাই।

ছবি তুলেছেন কাজী তাইফুর

Leave a Reply