সমর্থকের বাড়িতে পুলিশের ভাত খাওয়ার দৃশ্য ধারণ অতপর…

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকের বাড়িতে পুলিশ সদস্যদের খাবার খাওয়ার দৃশ্য ধারণ করায় পুলিশ একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে ভেঙ্গে ফেলেছে। এ সময় আরটিভি ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের দায়িত্বরত ২ সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করা হয়। শনিবার বেলা ১২ টার দিকে উপজেলার গাওদিয়া ইউনিয়নের বনসেমন্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, শনিবার লৌহজং উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ উপলক্ষ্যে মুন্সীগঞ্জের সার্কেল এসপি সাইফুল ইসলামসহ পুলিশের একটি টিম গাওদিয়ায় দায়িত্ব পালন করতে যায়। এসময় ভোট কেন্দ্রের দায়িত্ব পালন না করে চেয়ারম্যান প্রার্থী ডিএম কবিরের সমর্থক মিজানুর হাওলাদারের বাড়িতে সার্কেল এসপি সাইফুল ইসলামসহ পুলিশের ওই দলটি খাবার খাচ্ছিল।

ঘটনা জানতে পেরে আরটিভির সাংবাদিক সেতু ইসলাম, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাংবাদিক লাভলু মোল্লাসহ কয়েকজন সাংবাদিক এ দৃশ্য ভিডিও ক্যামেরায় ধারণ করেন। বিষয়টি টেরে পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে সার্কেল এসপি সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা আরটিভির ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে তা ভেঙ্গে ফেলেন এবং সাংবাদিকদের লাঞ্ছিত করেন।

এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘পুলিশ দলটি দু’একদিন আগে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর মারামারি ঘটনা তদন্ত করতে গিয়েছিল বলে জানতে পেরেছি। এ ব্যাপারে আরো খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।’

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
———————————

লৌহজংয়ে সংবাদিকদের লাঞ্ছিত ও ক্যামেরা ভাঙচুর করেছে পুলিশ

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকের বাড়িতে খাবার খাওয়ার দৃশ্য ধারণ করায় পুলিশ আরটিভির ক্যামেরা ভাঙচুর ও ২ সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করেছে। আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার গাঁওদিয়া ইউনিয়নের বনসেমন্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে আজ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেখানে মুন্সীগঞ্জের সার্কেল এসপি সাইফুল ইসলামসহ পুলিশের একটি টিম দায়িত্ব পালন করছে।

এ সময় তারা ভোটকেন্দ্রের দায়িত্ব পালন না করে চেয়ারম্যান প্রার্থী ডিএম কবিরের সমর্থক মিজানুর হাওলাদারের বাড়িতে সার্কেল এসপি সাইফুল ইসলামসহ পুলিশের একটি টিম নিয়ে খাবার খাচ্ছিলেন। এতে এলাকায় উপস্থিত আরটিভির সাংবাদিক সেতু ইসলাম, বাংলাদেশ প্রতিদিন’র লাভলু মোল্লাসহ কয়েক সাংবাদিক এ দৃশ্য দেখে তা ভিডিও ক্যামেরায় ধারণ করেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে সার্কেল এসপি সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ আরটিভির ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে তা ভেঙে ফেলে এবং সাংবাদিকদের লাঞ্ছিত করে।

পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে আরো খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।

শীর্ষ নিউজ
———————————

Leave a Reply