ইসি দেশের দু’টি দলের চিপায় পড়ে আছে: বিকল্প ধারা

নির্বাচন কমিশন (ইসি) দেশের দু’টি রাজনৈতিক দলের চিপায় পড়ে আছে বলে মন্তব্য করেছেন বিকল্প ধারার চেয়ারম্যান ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী। বুধবার সকালে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বিকল্প ধারা বাংলাদেশের নির্ধারিত সংলাপে তিনি এ মন্তব্য করেন। রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে চলমান সংলাপের ধারাবাহিকতায় এদিন সকাল পৌনে ১১টায় শেরে বাংলা নগরে ইসি সচিবলায়ের সম্মেলন কক্ষে এ সংলাপ শুরু হয়।

ডা. বদরুদ্দোজা নির্বাচন কমিশনকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আপনারা তো স্বাধীন নন। আপনাদের ওপর জনগণের অনেক প্রত্যাশা। আপনারা চিপা থেকে বের হয়ে আসেন। জনগণ আপনাদের সঙ্গে থাকবে।’

এ সময় তিনি বিকল্প ধারার পক্ষে কিছু লিখিত প্রস্তাবও ইসির কাছে পেশ করেন।

প্রস্তাবগুলো হচ্ছে- জাতীয় নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত হতে হবে। যতদিন পর্যন্ত নির্বাচিত সরকারগুলো নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের যোগ্যতা অর্জন করতে না পারে, ততদিন। নির্বাচনী ব্যয় কমাতে ৭/৮ দিন ধরে নির্বাচন করা, প্রাথীকে নগদ অর্থ না দিয়ে করে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে নির্বাচনী প্রচারের ব্যবস্থা করা, ঢাকা সিটি করপোরেশন এলাকা ১৫টির বদলে আসন সংখ্যা ১৮টিতে উন্নীত করা ইত্যাদি।

ডা. বদরুদ্দোজা আরও বলেন, ‘ওই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে। পূর্বের কমিশন নির্বাচিত নতুন কমিশনের কাছে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিবেন। এজন্য তিন সপ্তাহ সময় দেওয়া যেতে পারে।’

এ সময় তিনি ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নির্বাচনে বিরোধিতা করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এটা সফল হলেও পরের নির্বাচনে কেন এটি ব্যবহার করা হয়নি? পদ্ধতিটি ভালো। কিন্তু প্রযুক্তিগতভাবে এর কোনও নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকছে না। যেমন কে ভোট দিল, কাকে ভোট দিল এসব চ্যালেঞ্জের কোনও প্রমাণ থাকছে না।‘

শুধু বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে কোনও পদ্ধতিতে জাতীয় নির্বাচন হতে পরে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘কাজেই ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ কোনওভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।’

তবে আগামী ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে গ্রহণযোগ্যতার পরীক্ষা হিসেবে ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে বলে মত দেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘আগে ছোট ছোট নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করে এর গ্রহণযোগ্যতা নিশ্চিত করুন। উপ-নির্বাচনগুলোতেও এ পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে।’

নির্বাচনী ব্যয় সম্পর্কে বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, ‘খাতা কলমে সর্বোচ্চ ১৫ লাখ টাকা নির্বাচনী ব্যয় আইনত বলা হলেও আমরা জানি নির্বাচনী কোনও কোনও প্রার্থী কোটি টাকার উপরে খরচ করেন। এর কোনও আইনি প্রতিকার নেই।’

এ সময় তিনি প্রার্থীর পক্ষ থেকে নির্বাচনী ব্যয় বাড়ানোর পক্ষে মত দেন তিনি।

এদিকে, নির্বাচনী ব্যয় কমাতে ৭/৮ দিনে নির্বাচন করা যেতে পারে বলেও মত দেন তিনি।

সেইসঙ্গে প্রাথীকে নগদ অর্থ না দিয়ে করে নির্বাচন কমিশন প্রত্যক্ষভাবে নির্বাচনী প্রচারের ব্যবস্থা করতে পারে বলেও অভিমত দেন তিনি।

যেমন প্রতি ইউনিয়নে একই মঞ্চে একই দিনে সব প্রার্থীর বক্তৃতার ব্যবস্থা করা।

নির্বাচনী এলাকা ও সীমানা নির্ধারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘ঢাকা সিটি করপোরেশন এলাকা ১৫টির বদলে ১৮টিতে উন্নীত করা হোক এবং প্রতিটি জেলায় কমপক্ষে ২টির পরিবর্তে ৩টি আসন রাখা হোক।’

নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কমিশনার নিয়োগে ৬ সদস্য বিশিষ্ট অনুসন্ধান কমিটি গঠন করতে হবে।’

বর্তমান প্রস্তাবিত অনুসন্ধান কমিটি আমলাদের দিয়ে গঠিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এটা সার্বিকভাবে গ্রহণযোগ্য হবে না। এ কমিটিতে সংসদ নেতা ও বিরোধী দলীয় নেতা বা তাদের প্রতিনিধিদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।’

মনোনীত প্রতিটি সদস্যের শ্বেতপত্র চূড়ান্ত নিয়োগের আগেই প্রকাশ করতে হবে দাবি করে বিকল্প ধারা।

সংলাপে মাহী বি চৌধুরী ইভিএম পদ্ধতির বিরোধিতা করেন।

তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক নেতারা যদি লাখ লাখ লোক জড়ো করে এক লাখ ভোট কেন্দ্র দখল করতে পারে, তাহলে এক লাখ মেশিন ম্যানুপুলেট করা কোনও ব্যাপারই না।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে তরুণ সমাজের প্রত্যাশা এমন কোনও পদ্ধতি অবিষ্কার করা, যার মাধ্যমে একজন সৎ স্কুল শিক্ষকও কম টকা খরচ করে নির্বাচিত হতে পারেন। তাহলে ইভিএম’র প্রয়োজন নেই।’

তিনি বলেন, ‘প্রক্রিয়াটি জটিল হওয়ায় এতে নির্বাচন কমিশনের উপর চাপ বাড়বে।’

তবে নির্বাচন কমিশনার ছহুল হোসাইন বলেন, ‘একবার এটা শুরু হলে পরবর্তীতে কোনও জটিলতা থাকবে না এবং ভোট বাক্স ছিনতায়ের ঘটনাও বন্ধ হবে।’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এটিএম শামসুল হুদা বলেন, ‘আমি ইসির পক্ষ থেকে বলতে চাই ইভিএম ব্যবহার আমাদের নির্বাচন ব্যবস্থার জটিলতা কমাবে। এতে হারিকেন এবং মোমবাতি জ্বালিয়ে ভোট গণনার হাত থেকে বাঁচা যাবে।’

ইভিএম পদ্ধতিতে ৪শ’ কোটি টাকা খরচ হবে এবং মেশিনগুলো ১৫ বছর পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে বলে ইসি সূত্রে জানা গেছে।

বর্তমান পদ্ধতিতে এর ব্যয় ১১ শ’ কোটি টাকা।

ইসির পক্ষে সংলাপে অংশ নেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এটিএম শামসুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার ছহুল হোসেন, মেজর (অব.) সাখাওয়াত হোসেন, নির্বাচন কমিশন সচিব ড. মো. সাদিক, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) প্রতিনিধি দল, মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির প্রতিনিধি দল ও নির্বাচন কমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

বিকল্প ধারা বাংলাদেশের পক্ষে অংশ নেয় এর চেয়ারম্যান ড. বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply