‘আমার প্রতিটি অ্যালবামকে একটি উপন্যাস হিসেবে দেখতে চাই’

‘শোন’, ‘বলছি তোমাকে’র লম্বা বিরতির পর প্রকাশ পেল সংগীত বিস্ময় হাবিবের একক অ্যালবাম ‘আহ্বান’। পপ সম্রাটের মৃত্যুশোক আর হরতালমুখর অস্থির সময়কে জয় করে এরই মধ্যে এ অ্যালবামের গান কানে পৌঁছেছে আমজনতার। চারদিক থেকে কানে আসছে আর নেই ভালবাসা, একঝাঁক পায়রা, আহ্বান কিংবা তুমি যে আমার ঠিকানা গানগুলোর ধ্বনি-প্রতিধ্বনি। ‘এখন আর সিডি কিনে না কেউ’ কিংবা ‘সব পাইরেসি হয়ে যাচ্ছে’, এমন প্রচলিত স্লোগানময় অডিও বাজারেও দোকানিদের মুখে এখন রাজ্যের হাসি। এখনও এ অ্যালবামের গান সে অর্থে সুপারহিট হয়নি।

তবে চলন দেখে আঁচ করা যায় আসন্ন ঈদবাজার পর্যন্ত হাবিবের ‘আহ্বান’ ষোলকলা পূর্ণ করবে সফলতার। অ্যালবাম তো প্রকাশ হলো। সাড়া পাচ্ছেন কেমন? এমন প্রশ্নে হাবিবের মিষ্টি হাসিময় সাদামাটা স্বীকারোক্তি, আমি তো সেভাবে বাইরে যাই না। তার ওপর বৃষ্টিতে চারদিক স্তব্ধ প্রায়। তবে আব্বার (ফেরদৌস ওয়াহিদ) মধ্যে বেশ উচ্ছ্বাস দেখলাম। তিনি তো আবার চারদিক ঘুরে বেড়ানোর মানুষ। এর বাইরেও অনেক বন্ধু-ভক্তের কাছ থেকে প্রচুর প্রশংসা পাচ্ছি। আসলে নিজের কথা নিজে বলাটা মুশকিল। দেখা যাক, মাত্র তো রিলিজ হলো। এটাই প্রথম অ্যালবাম যেখানে হাবিব তার নিজস্ব স্লো-মেলোডিনির্ভর ঘরানা থেকে খানিক বেরিয়ে এসেছেন। নিয়েছেন ঝুঁকি। কারণ, সফলতার ধারা থেকে বেরিয়ে খুব বেশি পরীক্ষায় বিশ্বাসী নন আমাদের গানওয়ালারা। মহাজনরাও (সংগীত প্রযোজক) এ বিষয়টিকে সমর্থন করেন না। কেন এই ঝুঁকি কিংবা স্লো ঘরানা থেকে দ্রুতলয়ে ফেরা? হাবিব বলেন, এর পেছনে দুটি শক্ত কারণ আছে।

প্রথম কারণ হলো, আমি যখনই স্টেজ পারফরমেন্সে যাই তখনই রিদমিক গানের প্রচণ্ড অভাব বোধ করি। আমার প্রায় সব গানই হচ্ছে স্লো-রোমান্টিক-মেলোডিয়াস। অথচ স্টেজে গেলে শ্রোতারা মনে প্রাণে আশা করে একটু ফাস্ট বিটের গান। যে গানের সঙ্গে তারা নাচবে-মাথা ঝাঁকাবে। সে ভাবনা থেকেই পরিকল্পনা ছিল এবারের অ্যালবাম হবে পুরো রিদমিক। এর সঙ্গে বাংলালিংক জানালো অ্যালবামটি প্রকাশ করতে চায় বৈশাখ উৎসবে। আমিও বৈশাখের আনন্দ এবং রঙটাকে মাথায় রেখে অ্যালবামটি গুছিয়েছি। হাবিব আরও বলেন, আমি আমার প্রতিটি অ্যালবামকে একটি উপন্যাস হিসেবে দেখতে চাই। যার কভার ডিজাইন, ফটোগ্রাফি, গানের কথা-সংগীতসহ সবকিছুই থাকবে একই সূত্রে গাঁথা। যেন সব মিলিয়ে একটি বিষয় ফুটে ওঠে। বৈশাখকে মাথায় রেখে সেটাই করতে চেয়েছি। মিউজিক করে অথচ হাবিবের মিউজিককে পাশ কেটে চলে- ইন্ডাস্ট্রিতে এমন উদাহরণ দুষ্কর।

মূলত সেই ভাবনা থেকেই হাবিবের প্রতি জিজ্ঞাসা ছিল, এবারের অ্যালবামে রিদমিক ফরমেট ছাড়াও এমন আর কি আছে? আগের দুটি এককের পর এ অ্যালবামে নতুন কোন সিগনেচার? এমন প্রশ্নে ‘আহ্বানে’র প্রতিটি গান ধরে ধরে হাবিব নিজের এনালাইসিসটা এভাবে করেন, ‘আহ্বান’- এ ধারার গান গেল দশ বছরে আর করিনি। এ গানের মাঝখানে একটা ভাংড়া ঢোলের সঙ্গে রক ফিউশন করেছি। ‘কি যে হলো আজ’- এটা আমার কাছে পুরো ডিফরেন্ট একটা কাজ মনে হয়েছে। ন্যান্সির সঙ্গে অনেক গান করেছি, এ ধারার গান একটিও করিনি। ‘একঝাঁক পায়রা’- একটু জ্যাজ, পুরা ওয়েস্টার্ন ফ্লেভার রাখার চেষ্টা করেছি। কণার সঙ্গে ‘লুকোচুরি’ গানটি করেছি একদম ব্রেক বিটের ওপর, ব্রেক ড্যান্সের আদলে। ‘ভুলে যেওনা আমায়’ গানটির যে মুড, সেটা অনেকটা ‘ডুব’ গানটার ফ্লেভারে তৈরি। ‘চোখে চোখে’ পুরো এক্সপেরিমেন্টাল গান।

শতভাগ ওয়েস্টার্ন ফিলের গান। আব্বার গানটা পুরা হিপহপ গান। উনাকে দেখলেই সবাই বলে তিনি এভারগ্রিন, কারণ ওনার মধ্যে এখনও সেই ফিলটা আছে। ওনার সিঙ্গিং স্টাইলে অনেক ফুর্তি আছে। ‘আর নেই ভালবাসা’ গানটার মধ্যে হালকা ‘বল কেন এমন হয়’-এর ফ্লেভার রেখেছি। এই স্টাইলের গান ২০০৮-এর পর আর করিনি। এছাড়া ‘তুমি যে আমার ঠিকানা’, ‘ভুলে যেওনা’ এবং ‘ঠিকানা’ গানগুলোও ফাস্ট বিটের, যে ধারাটা শ্রোতারা আমার কাছে খুব করে চায়। আমার কাছে এমনই হলো গানগুলোর ব্যাখ্যা। আর সাউন্ড এবং কম্পোজিশন কোয়ালিটির বিচারে অন্য দুটি অ্যালবামের চেয়ে ডেফিনিটলি এটার কোয়ালিটি থাউজেন্ড টাইম বেটার। কারণ এর মধ্যে অনেক সময় বয়ে গেছে, অনেক কিছুর আপগ্রেড হয়েছে, আমি নিজেও অনেক কিছু শিখেছি। নতুন কিছু তো থাকবেই, এটাই স্বাভাবিক। সবকিছুই ঠিকঠাক, কিন্তু এই স্টেজে এসে গানের কথাগুলো আরও একটু কাব্যিক একটু উন্নত হলে ভাল হতো না?

এ প্রসঙ্গে হাবিবের সরল স্বীকারোক্তি, আমি আপনার সঙ্গে পুরোটাই একমত। আমিও সেটা ফিল করছি। আসলে আবারও ওই একই কথা বলতে হচ্ছে, হযবরল কিছু করতে চাইনি আমি। আমি চেয়েছি বৈশাখী রঙে সহজ কথায় রিদমিক একটা পূর্ণাঙ্গ অ্যালবাম দাঁড় করাতে। সেটাই করেছি। আমি মনে করি সব কিছুরই একটা স্পষ্ট চরিত্র থাকা উচিত। সে জন্যই আমার আগামী অ্যালবামটি হবে এ অ্যালবামটির খানিক বিপরীত চরিত্রের। সেখানে কাব্যকথা বলেন আর একুস্টিক যন্ত্রানুষঙ্গের কথা বলেন- কোনটাতেই কমতি থাকবে না ইনশাআল্লাহ।

মাহমুদ মানজুর

Leave a Reply