ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ-মুক্তারপুর সড়কে যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমে

মুক্তারপুর সেতু ও নারায়ণগঞ্জ সংযোগ সড়ক নির্মাণে বাস্তবমুখী পদক্ষেপ না নেয়ায় ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে যাত্রীদের দুর্ভোগ বেড়েই চলছে। প্রতিদিন বিভিন্ন পয়েন্টে যানজট লেগেই থাকে। অপ্রস্থ রাস্তা দিয়ে দুটি বাস বা ট্রাক সহজে চলাচল করতে পারে না। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি সংস্কার না করায় মুক্তারপুর থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত স্থানে স্থানে খনাখন্দ ভাঙাচুরা অবস্থা বিরাজ করছে। প্রতিদিন এই ভাঙাচুরা রাস্তা দিয়ে যানবাহন চলাচল করতে গিয়ে কম পক্ষে ৭-৮টি নষ্ট বা বিকল হয়ে পড়ছে। এতে যানজট সৃষ্টির মাত্রা বেড়ে যাচ্ছে। বাসে মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকা ২৫ কিলোমিটার দূরত্ব পেঁৗছাতে সময় লেগে যায ৩-৪ ঘণ্টা।

জানা গেছে, মুক্তারপুরে ধলেশ্বরী নদীর ওপর ৬ষ্ঠ বাংলাদেশ চীন মৈত্রী সেতু নির্মাণের তিন বছর পেরিয়ে গেলেও সংযোগ সড়ক নির্মাণ হয়নি। মুন্সীগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন মুক্তারপুর সেতু হওয়ার পর সংযোগ সড়ক না হওয়ায় এর সুফল ব্যাহত হচ্ছে। সংযোগ সড়ক নির্মাণের দাবিতে মুন্সীগঞ্জবাসী মিছিল, মানবন্ধন কর্মসূচিপালসহ আন্দোলন করেও এর সুফল পায়নি। ওদিকে মুক্তারপুর সেতু হওয়ার পর মুক্তারপুর থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত অপ্রশস্থ সড়কে অতিমাত্রায় যানবাহন চলাচল বেড়ে গেছে। মুক্তারপুর শিল্পনগরীর বিভিন্ন সিমেন্ট ফ্যাক্টরির বড় কভার্ট ট্রাকগুলো রাস্তায় বের হলেই অপ্রশস্থ সড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়। এ ধরনের মালবাহী বড় বড় ট্রাকগুলো চলাচলের কারণে রাস্তা দ্রুত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে বা ভেঙে পড়ছে। ঢাকা-মুন্সীগঞ্জের মতো অপ্রশস্ত ও দুর্বল রাস্তা দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচলে অনুপযোগি হলেও কর্তৃপক্ষের কোনো পদক্ষেপ নেই। রাজধানীর জনসংখ্যার চাপ ও মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরের সঙ্গে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপন করার লক্ষ্যে ২০০৮ সালের ১৮ জানুয়ারি ২০৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ধলেশ্বরী নদীর ওপর মুক্তারপুরে ৬ষ্ঠ বাংলাদেশ চীন-মৈত্রী সেতুটি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্ঠা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ জনসাধারণের চলাচলের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। এর আগে ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া সেতু নির্মাণের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। সেতুটির নির্মাণ কাজ শুরু হয় একই বছরের ৭ জুলাই।

মুন্সীগঞ্জবাসী দীর্ঘদিনের এ কাঙ্ক্ষিত সেতু পেলেও বিকল্প সংযোগ সড়ক কিংবা মুক্তারপুর থেকে পঞ্চবটি পর্যন্ত সড়ক প্রশস্থ না হওয়ায় এ সেতুর সুফল ভোগ করতে পারছেন না। ওই সময় বিকল্প সংযোগ সড়ক হিসেবে কাঠপট্টি থেকে নারায়ণগঞ্জের চাষাড়া হয়ে একটি সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু দীর্ঘদিনেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। শিল্পনগরী হিসেবে পরিচিত মুক্তারপুরে সিমেন্ট, টেক্সটাইল মিল, ম্যাচ, পেপার বোর্ড মিলসহ ছোট বড় মিলে অন্তত শতাধিক শিল্পকারখানা রয়েছে। এসব শিল্পকারখানার উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করণে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

Leave a Reply