বি. চৌধুরীর পদত্যাগ এবং…

সুমন পালিত
বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের একটি সমালোচিত অধ্যায় রাষ্ট্রপতির পদ থেকে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর পদত্যাগের ঘটনা। ২০০২ সালের ২১ জুন তিনি তারই প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের চাপের মুখে রাষ্ট্রপতি পদ থেকে তিনি পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। তার পদত্যাগের সঙ্গে সঙ্গে স্পিকার জমিরউদ্দিন সরকার অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি পদে শপথ নেন। পরবর্তীতে অধ্যাপক ইয়াজউদ্দিনকে রাষ্ট্রপতি পদে বসানো হয়। রাষ্ট্রপতি হিসেবে অধ্যাপক ইয়াজউদ্দিনের সংকীর্ণ দলীয় মনোবৃত্তি এবং ব্যক্তিত্বহীন কর্মকাণ্ড ২০০৬ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট বিতর্ককে তুঙ্গে তোলে এবং তার ঘাড়ে সওয়ার হয়েই মূলত ‘ওয়াই ইলেভেনের’ আবির্ভাব হয়। এ ঘটনা অধ্যাপক ইয়াজউদ্দিনের নিয়োগ দাতাদের জন্যও সুখকর হয়নি।

আপাদমস্তক ‘মেড বাই বিএনপি’ বলে মনে হলেও অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী ছিলেন ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন মানুষ। সংবিধানের নির্দিষ্ট দায়-দায়িত্বের বাইরে বেগম জিয়া কিংবা জোট সরকারের ‘হিজ মাস্টার্স ভয়েস’ ভূমিকা রাখতে রাজি না হওয়ায় একরকম জোর করেই বঙ্গভবন থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় এই বিদগ্ধ রাজনীতিককে। তার অপরাধ ছিল ২০০২ সালের ৩০ মে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারত করতে যাননি তিনি। বিএনপির অর্বাচীন নেতা এবং সে সময়ের হাফ ও সিকি মন্ত্রীরা এটিকে শহীদ নেতার প্রতি অসম্মান প্রদর্শন বলে অভিহিত করেন। এ বিষয়ে কথা হয়েছিল পদত্যাগী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে। বদরুদ্দোজা চৌধুরী স্পষ্টভাবে বলেছিলেন, রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ছিলেন তার নেতা। নেতার প্রতি শ্রদ্ধাবোধের কারণেই তিনি তার মৃত্যুবার্ষিকীতে মাজার জিয়ারতে আগ্রহী ছিলেন। রাষ্ট্রপতি পদে না থাকলে তিনি ব্যক্তিগতভাবে হলেও মাজারে গিয়ে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেন। রুহের মাগফিরাত কামনা করতেন। কিন্তু সমস্যা হলো রাষ্ট্রপতিকে নিয়ম মেনে চলতে হয়। সংসদীয় ব্যবস্থায় মন্ত্রিপরিষদ ঠিক করে দেয় রাষ্ট্রপতি কোথায় যাবেন কি করবেন। ২০০২ সালের ৩০ মে মন্ত্রিপরিষদ নির্ধারিত কর্মসূচিতে শহীদ জিয়ার মাজারে রাষ্ট্রপতির যাওয়ার কর্মসূচি ছিল না। ফলে বাধ্য হয়েই তিনি প্রয়াত নেতার প্রতি সম্মান জানাতে মাজারে যেতে পারেননি। রাষ্ট্রপতি হিসেবে নিজ উদ্যোগে জিয়ার মাজারে যাওয়ার অবশ্য সুযোগ ছিল। তবে সে ক্ষেত্রে নিজের নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে অন্যান্য জাতীয় নেতার মাজারে গিয়ে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের উদ্যোগ নিতে হতো। যা হয়ত প্রধানমন্ত্রী বা সরকারি নেতাদের সঙ্গে সংঘাতের পরিবেশ সৃষ্টি করত। যা তিনি চাননি।

অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। বাবা ছিলেন রাজনীতিক। শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক, শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মওলানা ভাসানী এবং বঙ্গবন্ধুর মতো জাতীয় নেতাদের ঘনিষ্ঠ সহকর্মী। রাজনীতির চেয়ে চিকিৎসা শাস্ত্রকে পেশা হিসেবে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী বেছে নিয়েছিলেন। জিয়াউর রহমান তাকে রাজনীতিতে আসতে উদ্বুদ্ধ করেন। কিন্তু দল বা দলীয় নেতাদের কাছে নিজের সুবুদ্ধি ও সুবিবেচনাকে তিনি কখনো বন্ধক রাখেননি। বিএনপিতে বরাবরই ‘সেকেন্ড ম্যান’ হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী। কিন্তু জিয়া, সাত্তার কিংবা খালেদা জিয়া কারও মোসাহেব হিসেবে তাকে দেখা যায়নি। রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত হওয়ার পর এ পদের মর্যাদাকে তিনি সমুন্নত রাখার চেষ্টা করেছেন। সায়েম, আবদুর রহমান বিশ্বাস কিংবা ইয়াজউদ্দিনের মতো, হিজ মাস্টার্স ভয়েস হয়ে রাষ্ট্রপতির পদটিকে সার্কাসের ক্লাউনদের মতো বা তামাশার বস্তুতে পরিণত করেননি তিনি। রাজনৈতিক বোদ্ধারা বলেন ২০০২ সালে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে রাষ্ট্রপতি পদ থেকে সরিয়ে না নিলে হয়তো ওয়ান ইলেভেনের উদ্ভব ঘটতো না। তার ঘাড়ে বন্দুক রেখে ক্ষমতা কুক্ষিগত করার সুযোগই হয়তো পেত না ওয়ান ইলেভেনের কুশিলবরা।

লেখক : সাংবাদিক ও কলামিস্ট

বাংলাদেশ প্রতিদিন

Leave a Reply