মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণে ২ মামলা

মুন্সীগঞ্জ সদরের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের মোল্লাবাড়ি ও মাকহাটি গ্রামে ঘরবাড়ি ভাংচুর, লুটপাট ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় ২টি মামলা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে সদর থানায় পৃথক এ মামলা হয়েছে। পুলিশ জানায়, মোল্লাবাড়িতে বুধবার হামলা চালিয়ে ঘরবাড়ি ভাংচুরসহ ৪ জনকে মারধর করা হয়।

এ ঘটনায় নাসির মাদবর বাদী হয়ে বাচ্চু ঢালীকে প্রধান আসামি করে ১৩ জনের নাম উল্লেখসহ ১৭ জনের নামে মামলা করেন। এছাড়া মাকহাটি গ্রামে লুটপাট ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় রহিমা বেগম বাদী হয়ে আকতারকে প্রধান আসামি করে ১২ জনের নামে মামলা করেন।

সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

শীর্ষ নিউজ
—————————-

মুন্সীগঞ্জে পরাজিত প্রার্থী-সহস্রাধিক সমর্থক বাড়িছাড়া

মুন্সীগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় এক পরাজিত ইউপি প্রার্থী সপরিবারে এবং তার সহস্রাধিক সমর্থক বাড়ি ও গ্রামছাড়া হয়েছেন।

চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দিতে বুধবার ও বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটেছে।

এ ছাড়া পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলম মল্লিকের ভাগ্নি কল্পনা দেওয়ানের আমঘাটা গ্রামের বাড়িতে ১০ থেকে ১২টি বোমা ছোড়া হয়েছে।

বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থকরা ওই বোমা নিক্ষেপ করেছে বলে কল্পনা দেওয়ান পুলিশকে জানিয়েছেন।

এদিকে, বুধবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত কয়েক দফায় বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী রিপন পাটোরায়ীর সমর্থকরা ওই বোমা নিক্ষেপ করে। এতে আতঙ্কের মধ্যে বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কল্পনা দেওয়ানের পরিবার গ্রাম ছেড়ে ঢাকায় চলে যেতে বাধ্য হয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।

পুলিশ ও গ্রামবাসীর সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেছে, জেলা সদরের চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের রাজারচর, চরডুমুরিয়া, আমঘাটা, নতুন আমঘাটা, কংশপুরা, চৈতারচর, মাকহাটি, নয়াকান্দি গ্রামের পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলম মল্লিকের প্রায় এক হাজার সমর্থককে গ্রাম থেকে বিতাড়িত করা হয়েছে।

মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী রিপন পাটোয়ারীর সমর্থকরা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ওই সব গ্রামে হামলা চালিয়ে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের বিতাড়িত করেছে বলে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহ আলম মল্লিক অভিযোগ করেছেন।

গ্রাম থেকে বিতাড়িতরা সবাই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থক। তারা গ্রাম ছেড়ে এখন শহরের কোর্টগাঁও এলাকার জেলার আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মহিউদ্দিন আহমেদের বাস ভবনসহ বিভিন্ন এলাকায় আশ্রয় নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে বিজয়ী চেয়ারম্যান রিপন পাটোয়ারীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, ‘পরাজয়ের পর ভয়ে গ্রাম ছেড়েছেন প্রার্থী শাহ আলম মল্লিকের সমর্থকরা। কেউ কাউকে জোর করে গ্রাম ছাড়া করেনি।’

অপরদিকে, পরাজিত প্রার্থী শাহ আলম মল্লিক বাংলানিউজকে বলেন, ‘২১ জুন মোল্লকান্দি ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ফলাফল ঘোষণার পরপরই বিজয়ী প্রার্থী রিপন পাটোয়ারীর সমর্থকরা ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটি গ্রামে হামলা-ভাঙচুর শুরু করে। এতে করে আমার সহস্রাধিক সমর্থক গ্রাম ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘নিজের জীবনের নিরাপত্তা কথা চিন্তা করেই আমি পরিবার-পরিজন নিয়ে বুধবার রাতে বাপ-দাদার বসত-ভিটা ছেড়েছি।’

বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থীর ঘনিষ্ঠভাজন ও সমর্থক সৈয়দ দেওয়ান বাংলানিউজকে বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে কী, বিগত দিনে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলম মল্লিকের সমর্থকরা প্রায় প্রতিটি গ্রামের বিজয়ী চেয়ারম্যানের সমর্থকদের মারধর করেছে। আর বিগত দিনের ওই সব মারধরের কথা চিন্তা করেই পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলম মল্লিক স্বেচ্ছায় গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে গেছেন।’

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply