লৌহজংয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় বসতবাড়ি দখল

পুলিশের ভূমিকা রহস্যজনক
শনিবার লৌহজংয়ে এক ব্যক্তির বাড়িতে হামলা চালিয়ে ৫টি ঘর ভেঙ্গে নিয়ে গেছে বাড়ির মালিক দাবিদার আরেক ব্যক্তি। হামলায় মহিলাসহ আহত হয়েছে ৫ ব্যক্তি। গুরম্নতর আহত ২ জনকে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। হামলার খবর পেয়ে পুলিশ এসে দেখে চলে যায়। এ ফাঁকে বাড়ির মালিক দাবিদার সেখানে ঘর তোলে। ঘর তোলার পর পুলিশ এসে সেখানে যে অবস্থায় আছেন, সেভাবে থাকবেন বলে শানত্মিশৃঙ্খলা রৰার কথা বলে আদালতে হাজির হতে বলে।

জানা যায়, উপজেলার দক্ষিণ হলদিয়া গ্রামের মৃত এবাদত মুন্সীর পালিত পুত্র শাহীন বেপারীর সম্পত্তি তার চাচাত বোনরা জালিয়াতির মাধ্যমে কাগজ-পত্র তৈরি করে কনকসার গ্রামের জনৈক নুরম্নল হকের নিকট বিক্রি করে দেয়। ঘটনা জানতে পেরে শাহীন বেপারী আদালতে মামলা করলে আদালত তার পৰে রায় দেয়। সেমতে সে তার বাড়িতে ৫টি ছাপরা ঘর তুলে বসবাস করে আসছিল। কিন্তু শনিবার নরম্নল হক ২ শতাধিক লোকজন নিয়ে শাহীন বেপারীর বাড়িতে হামলা চালায় ও তার ভিটার ৫টি ছাপড়া ঘর ভেঙ্গে শ্যালো নৌকা করে নিয়ে যায়। এ সময় ঘরে থাকা নগদ ৮ হাজার টাকা ও একটি স্বর্ণের আংটি লুট হয়েছে বলে শাহীন বেপারী অভিযোগ করেছেন। এ হামলায় সুরভী আক্তার (২২), রহিমা বেগম (৫২), শাহীন বেপারী (৫৭), সুমি আক্তার (৩০), ইতি আক্তারসহ (২০) ৫ জন আহত হয়। গুরম্নতর আহত সুরভী আক্তার ও রহিমা বেগমকে পাশর্্ববর্তী শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রকাশ্য দিবালোকে যখন এ হামলার ঘটনা ঘটে তখন মার খেয়ে আহত হয়ে জীবন বাঁচাতে শাহীন বেপারী ও তার পরিবার পালিয়ে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের দিকে ছোটে। এ সময় খবর পেয়ে লৌহজং থানার এসআই আলতাফ হোসেন ঘটনাস্থলে পেঁৗছে দখলকারদের জিজ্ঞেস করে, এখানে কোন সমস্যা আছে কি না। দখলকাররা জানিয়ে দেয়, কোন সমস্যা নেই। দারোগা সাহেব থানায় চলে যান। এ ফাঁকে দখলকারীরা শাহীনের ভিটাতে ঘর তুলে দখল করে নেয় বাড়িটি। ঘর ওঠানো শেষ হলে এসআই আলতাফ থানা থেকে কনস্টেবল পাঠিয়ে একটি নোটিস পাঠান_ এখানে যে যেই আবস্থায় আছে সে অবস্থাতেই থাকবে। আদালতের নির্দেশ ছাড়া এখান কেউ বসত বাড়ি তুলতে পারবে না ।

এ ব্যাপারে এসআই আলতাফ জানান, আমি গিয়ে সেখানে দখল করার মতো কিছু দেখিনি। শান্তিশৃঙ্খলা রৰার জন্যই নোটিস দিয়েছি। কাউকে বাড়ি থেকে উঠিয়ে দেয়া হয়েছে কিনা তা আমার জানা নেই। তাছাড়া আমি অপনার কথার উত্তর দিতে বাধ্য নই। লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুব্রত কুমার সাহা জানালেন, তিনি নির্বাচনী ডিউটিতে গজারিয়া উপজেলায় আছেন। এরকম খবর শুনে দারোগা পাঠিয়েছেন। থানায় ফিরে না গেলে বিসত্মারিত বলতে পারছেন না।

এ ব্যাপারে নূরম্নল হককে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, আমার খরিদ করা জায়গায় আমি ঘর তুলেছি। লোকজন নিয়ে হামলা করার ঘটনা ঠিক নয়। আমার সঙ্গে শ্রমিক ছিল। তাহলে দু’ ব্যক্তি আহত হয়ে হাসপাতালে কিভাবে ভর্তি হলেন আর শাহীন বেপারীর ঘর নৌকায় তুলে নিলেন কারা_এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, তা আমার জানা নেই।

Leave a Reply