মুন্সীগঞ্জে পদ্মায় ভয়াবহ ভাঙ্গন

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, ভাগ্যকূল থেকে ফিরে : শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকূলে পদ্মা রুদ্রমূর্তির আকার ধারণ করেছে। কয়েক ঘন্টায় ২৭টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও ৩০টি বসতবাড়ি বিলীন হয়েগেছে। হুমকির মুখে রয়েছে আরও কয়েক শ’ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, অসংখ্য বসতি, সড়ক, বিদ্যালয় ভবন, পোস্ট অফিসসহ গুরুত্বপূর্ণ সরকারি বেসরকারি স্থাপনা। ভাঙ্গনের কারণে শ্রীনগর-দোহার লিঙ্ক রোডর এখন মারাত্মক হুমকীর মুখে।

সরেজমিন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে-পদ্মার ভাঙ্গনে একর পর এক বিলীন হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী বিক্রমপুরের ভাগ্যকূলের গ্রাম, হাট-বাজার, রাসত্মাঘাট। বিগত মৌসুমে পানি উন্নয়ন বোর্ড বাঁশের বেড়া ও বালির বসত্মা ফেলার পরও পদ্মায় তলিয়ে গেছে বিস্তৃর্ণ জনপদ। স্থানীয়ভাবে লোকজনও বাঁশের বেড়া ও নানা কিছু ফেলে ঢেউ থেকে তীর রক্ষার চেষ্টা চালচ্ছে। কিন্তু ভাঙ্গন থামছে না। পরিকল্পিতভাবে ভাঙ্গনরোধে ব্যবস্থা গ্রহন না করায় বিগত বছরের পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রায় ৪২ লাখ টাকার প্রকল্প গ্রহন করা হলেও কিছুই কার্যকর হয়নি।

এদিকে বর্ষার শুরুতেই আকস্মিক এই ভাঙ্গনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী। কিছু বুঝে উঠার আগেই ফুসে উঠছেছে পদ্মা। ভাগ্যকূল ছাড়াও এখন নদী তীরবর্তী চারিপাড়া, কবুতরখোলা, মান্দ্রা, কামারগাওঁ, কেদারপুর, নয়াবাড়ী, মাগঢাল ও বাঘড়া এলাকায়ও ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভাঙ্গন রোধে ন্যূনতম কোন ব্যবস্থাই গ্রহন করা হয়নি।

শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল লতিফ মোল্লা জানান, গত ৮/১০ দিনের এই ভাঙ্গনে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জরুরি পত্র দেয়া হয়েছে এবং ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোকে সহায়তা দানে জন্য জেলা প্রশাসনকে অবগত করা হয়েছে। এখনও কোন সারা মিলেনি।

এখন পথের বসার যোগার হয়েছে ভাঙ্গন কবলিত ব্যবসায়ীদের। ঐতিহ্যবাহী বাজারটির ছোট হয়ে আসছে। যে ক’টি দোকান অবশিষ্ট রয়েছে তারাও এখন সর্বস্ব হারানোর আতঙ্কে ক্ষণ গুনছে।

রাক্ষুসী পদ্মার এই ভয়ঙ্কর থাবায় কয়েক শ’ বছরের স্মৃতি বিজরিত বসতি হারিয়ে ভূমিহীনের তালিকায় নাম লেখার তালিকাটি বাড়ছেই। তাই লোক দেখানো ব্যবস্থার পরিবর্তে ভাঙ্গন রোধে তরিৎ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করে স্থায়ী সমাধানের দাবী জানিয়েছে ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী। ভাগ্যকূলের বাসিন্দা রহমান মিয়া জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ড যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করলে ভাঙ্গন রোধ করা সম্ভব ছিল। তারা ভাঙ্গনরোধের নামে টাকা বরাদ্দ নিলেও কাজের কাজ কিছুই করেনি। মঞ্জিলা বেগম বলেন, ‘‘নদীর ঢেউয়েই ভাঙ্গছে বেশী, মোটামাটি একাটা ব্যবস্থা নিলেও এই বর্ষায় আমরা রক্ষা পাইতাম।’’

এদিকে সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভায় পদ্মার এই ভাঙ্গন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা শেষে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহনে সিদ্ধান্ত নিয়ে সংশ্লিষ্ট কতৃপর্ক্ষকে তাগিদ দেয়া হয়।

এদিকে মুন্সীগঞ্জ ১আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ বলেন, বাঘড়া-কবুতর খোলা নদী ভাঙন প্রতিরোধে ৩শ কোটি টাকার প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন আছে। এটি বাস্তবায়িত হলে এখানে ভাঙনের স্থায়ী সমাধান হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ
——————————–

মুন্সীগঞ্জে পদ্মার ভাঙন: আতংকে ১৪ গ্রাম

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ৮ কিলোমিটার এলাক জুড়ে পদ্মা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভাঙন আতংকে রয়েছে ১৪টি গ্রামের মানুষ। তীব্র হুমকির মুখে রয়েছে মাওয়া-ভাগ্যকুল সড়ক, ঢাকা-দোহার সড়কের কামারগাঁও বাজার।

জানা গেছে, বিগত কয়েক দিনের দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার প্রভাবে রাক্ষষী পদ্মার শ্রীনগর এলাকায় প্রচণ্ড ভাঙন দেখা দিয়েছে। এতে উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়নসহ আসে পাশের প্রায় ৮ কিলোমিটার এলাকায় অবস্থিত শতাধিক বসতভিটা ও ভাগ্যকুল বাজারের বহু দোকান ঘড় নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এ ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের এখন শেষ সম্বল গরু- বাছুর, হাঁস- মুরগি রাখার জায়গা টুকুও নেই। প্রাচীন এ জনপদটির নদীর তীরবর্তী বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন স্থাপানাও নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। বেড়িবাঁধের বড় রাস্তাও পানিতে ছুঁইছুঁই করছে ।

পদ্মার তিরবর্তী মানুষদের যেন একটাই চিন্তা পরিবার পরিজন নিয়ে কোথায় যাবে তারা। শ্রীনগরের পদ্মার তীরে এখন শুধু ভাঙন কবলিত মানুষের আহাজারি। ভাঙ্গন রোধে কেউ কোন দৃষ্টি দিচ্ছেনা বলে অনেকের অভিযোগ।

স্থানীয় নুরুল ইসলামের স্ত্রী মেহেরজান বেগম (৬২) ধ্বংসস্তূপের ভাঙাচোরা ঘরবাড়ির ওপর দাঁড়িয়ে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, ‘চারটা ঘর গেলগা এক রাইতে। গাঙ্গে আমাগো ফকির বানাইয়া হালাইলো, এহন আমরা কোথায় থাকুম?’ মান্দ্রা গ্রামের রেণু বেগম বলেন, ‘গত বছর গাঙ্গে আমাগো বাড়িঘর, জমিজমা সব নিছে, অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিছিলাম, এখন এই বাড়িটাও নদী ভাইঙ্গা নিল, যাওয়ার আর জায়গা নাই।’ ভাগ্যকুল বাজারের তেল ব্যবসায়ী খালেক বলেন, ‘রাতে পদ্মায় দোকান নিয়ে গেছে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে তেল বিক্রি করছি। এখন মনে হচ্ছে, রাস্তাটা ও পদ্মা গিলে খাইবো।’ ভাগ্যকুল গ্রামের জলিল বেপারী আফসোস করে বলেন, ‘বাপ-দাদার আমলের জমিজমা ঘরবাড়ি সবই খাইল পদ্মায়, এখন থাকার জায়গা নেই। নদীর পাড়ে একটা ঘর ভাইঙ্গা থুইছি, আরেকটা আছে হেইডাও ভাঙতে অইব।’ স্থানীয় মতি সারেং, রহিম শেখসহ কয়েকজন জানালেন, চার বছর ধরে পদ্মায় অব্যাহত ভাঙনে বিস্তীর্ণ এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হলেও ভাঙনরোধে সরকারীভাবে তেমন কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। ভাঙন দেখতে মন্ত্রী-এমপিসহ সরকারী উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা এসে নানা প্রতিশ্র“তি দিলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ আমজাদ হোসেন বলেন, পদ্মার ভাঙন পরিদর্শন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। সর্বপরি পদ্মার তীরবর্তী মানুষদের নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষাকরতে এখনই সরকারী ভাবে বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে দেখা উচিৎ নয়তো আস্তে আস্তে নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যাবে ইতিহাস- ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক প্রাচীন বিক্রমপুরের শ্রীনগর এলাকাটি।

বাংলাটাইমস টুয়েন্টিফোর ডটকম
—————————–

Leave a Reply