আবার বালাম

‘কাজটা এর আগে কখনোই করা হয়নি। একেবারে অন্য রকম কিছু করছি। ব্যাপারটা মনে হয় ইন্টারেস্টিং হবে।’ বললেন সংগীতশিল্পী বালাম। তিনি এবার উপস্থাপনা করছেন। সঙ্গে আছেন বোন জুলি।

ঈদ কিংবা কোনো বিশেষ দিনের অনুষ্ঠান নয়, এটিএন বাংলার সাপ্তাহিক আয়োজন; নাম জমবে এবার গানে গানে। জুলাই মাসের শেষ দিকে অনুষ্ঠানটির প্রচার শুরু হবে।
বালাম জানালেন, জমবে এবার গানে গানে অনুষ্ঠানটি গানের ওপর কুইজভিত্তিক ম্যাগাজিন। মোট ৪৭টি পর্ব হবে। মুঠোফোন বার্তার (এসএমএস) সহায়তায় চূড়ান্ত করা হবে প্রতিযোগীদের। প্রতি দলে থাকবেন একজন ছেলে ও একজন মেয়ে। পর্যায়ক্রমে নির্বাচন করা হবে সেরা দল।

প্রতিটি পর্বে নিজেকে নতুনভাবে উপস্থাপন করবেন বালাম। থাকবে ভিন্ন ভিন্ন গেটআপ। তাঁর এই নতুন কাজটা যেন দর্শক পছন্দ করেন, তার জন্য এখন থেকেই নানা পরিকল্পনা করছেন।

উপস্থাপনা নিয়ে এত ভাবনা-পরিকল্পনা, তাহলে বালামের নতুন অ্যালবামের কী হবে! ‘হবে হবে, রাত-দিন এখন ওটার কাজ নিয়েই ব্যস্ত আছি।’ হ্যাঁ, বালাম এখন তাঁর স্টুডিওতে নিজের চতুর্থ একক অ্যালবামের কাজ করছেন।

প্রথম অ্যালবাম বালাম (২০০৭), দ্বিতীয় বালাম-২ (২০০৮) ও তৃতীয় বালাম-৩ (২০১০)। তাহলে এবারের অ্যালবামটি হবে বালাম-৪ ? ‘না, না, এবার অ্যালবামের শিরোনামে আর “বালাম” নামটি রাখব না, একটা আলাদা নাম হবে। এখনো চূড়ান্ত করিনি। আগে পুরো অ্যালবামের কাজ শেষ হোক, তারপর…।’ বললেন বালাম।

শনিবার বিকেল। ধানমন্ডি পুরোনো ৭ নম্বর সড়কে বালামের সঙ্গে কথা হচ্ছিল তাঁর স্টুডিওতে। তখন কেবল ঘুম থেকে উঠেছেন বালাম। অসময়ে ঘুম? ঘুম থেকে উঠে একটু ফ্রেশ হয়ে বালাম বললেন, ‘সারা রাত কাজ করেছি। নতুন অ্যালবামের গানের সুরগুলো তৈরি করছি। গানের কথা লেখা হচ্ছে। জুলাই মাসের গোড়ার দিকে কণ্ঠ দেওয়ার কাজ শুরু করব। সঙ্গে টুকটাক অন্য কাজও আছে।’

বালাম জানালেন, এবার শ্রোতাদের নতুন কিছু দেওয়ার চেষ্টা করছেন সুর ও সংগীত আয়োজনে। গায়কিতেও থাকছে কিছুটা পরিবর্তন। রোমান্টিক ধারার গানের পাশাপাশি নানা বিষয়ের ওপর গান করছেন তিনি।

অ্যালবামটি তৈরি করছেন রোজার ঈদ সামনে রেখে।

বালাম ছিলেন ওয়ারফেজ ব্যান্ডের সদস্য। গাইতেন রক গান। সরে এলেন সেখান থেকে। শুরু হলো একক শিল্পী, সুরকার ও সংগীত পরিচালক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সংগ্রাম। এ কাজে সফল হতে একটু সময় লেগেছিল। প্রায় ১০ মাস খেটে তৈরি করেছিলেন প্রথম অ্যালবাম। এই অ্যালবামের গানগুলো জনপ্রিয় হলো বাজারে আসার তিন মাস পর। প্রায় কাছাকাছি সময়ে অ্যালবামের ‘এক মুঠো রোদ্দুর’, ‘লুকোচুরি’, ‘তোমার জন্য’ আর ‘নূপুর’ গানগুলো দারুণ জনপ্রিয়তা পায়। হঠাৎ বেড়ে যায় বালামের ব্যস্ততা। একক শিল্পী হিসেবে কনসার্টে গান করার সংখ্যা দ্রুত বাড়তে থাকে। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের চাপে বাজারে আনেন দ্বিতীয় অ্যালবাম। প্রথমটি যতটা জনপ্রিয়তা পেয়েছিল, বালাম-২ ততটাই ব্যর্থ হলো। এর কারণ হিসেবে বালামের বক্তব্য, ‘খুব বেশি তাড়াহুড়ো করে ফেলেছিলাম। আর চাপটাও ছিল বেশি। দুটোই প্রভাব ফেলেছে বালাম ২-এ।’
কিন্তু বালাম-৩ তো যথেষ্ট সময় নিয়ে, অনেক ভেবেচিন্তে করা হলো। এর ব্যর্থতার জন্য কাকে দায়ী করবেন বালাম। বললেন, ‘অনেক ভালো একটা কাজ হয়েছিল। প্রথমটির চেয়েও অনেক ভালো। কিন্তু একটা অ্যালবামের যতটা প্রচার-প্রচারণার প্রয়োজন, এখানে তা হয়নি। শ্রোতারা অ্যালবামটির ব্যাপারে জানতেই পারেননি।’

গত ২০ ফেব্রুয়ারি তিনি ছেলের বাবা হয়েছেন। ছেলের নাম রেখেছেন ফাবিয়ান জাহাঙ্গীর। বালামের স্ত্রী সাদিয়া সন্তানের মা হওয়ার অনেক আগে থেকেই খুব অসুস্থ ছিলেন। ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিকে স্ত্রীকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য চলে যান সিঙ্গাপুরে। সেখানে হাসপাতালে থাকতে হয়েছে মাস খানেক।

সাদিয়া এখন কিছুটা সুস্থ। তাই বালামও আবার গানের দিকে নজর দিয়েছেন।

কথা শেষ। এবার বিদায় নিতে হবে। বিদায় জানাতে স্টুডিওর বাইরে বেরিয়ে এলেন বালাম। জানালেন, আগের দিন সন্ধ্যায় স্টুডিওতে ঢুকেছেন, বের হলেন এই প্রথম। এবার বাইরে একটু হাঁটাহাঁটি করবেন। খেলার সঙ্গী বন্ধু রিপনকে পেলে কিছুক্ষণ খেলা করবেন।

বালামের স্টুডিওতে সবই আছে—ক্রিকেট, টেনিস আর ব্যাডমিন্টন খেলার সরঞ্জাম। যখন যেটা ইচ্ছে করে, সেটাই খেলেন। তবে খুব বেশি সময় নয়, ঘণ্টা দুয়েক। এরপর আবার চলে যান স্টুডিওতে। মাঝে কিছুক্ষণের জন্য বাসায় যান, স্ত্রী আর ছেলেকে সময় দেন। রাতে ফিরে আসেন স্টুডিওতে, নিজের গানের জগতে—সুর তৈরির কাজটা যে রাতেই জমে ভালো।

Leave a Reply