মুন্সীগঞ্জে আদালতের বারান্দায় হাজতি-পুলিশ হাতাহাতি-কিলঘুষি

মুন্সীগঞ্জে আদালতের বারান্দায় বৃহস্পতিবার দুপুরে হাজতি ও পুলিশের মধ্যে হাতহাতি-কিলঘুষির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ৩ পুলিশ কনস্টেবল আহত ও আদালতের জানালার কাচ ভাঙচুর করা হয়েছে। পরে আদালতের হাজতখানায় হাজতিদের বেধড়ক পিটিয়েছে পুলিশ। আহতরা হচ্ছেন- কনস্টেবল মোতালেব, সারওয়ার ও কাইয়ুম।

প্রকাশ্যে পুলিশ ও হাজতির মধ্যে ওই ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছেন আদালতে আসা বিভিন্ন মামলার বাদী ও বিবাদীরা।

দুপুর দেড়টার দিকে মুন্সীগঞ্জ ১ নম্বর আমলী আদালতের বারান্দায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবী লাবলু মোল্লা বাংলানিউজকে জানান, আফজাল হোসেন রুবেল, মহসিনসহ ৫৬ জন হাজতিকে দুপুর দেড়টার দিকে হাজিরা দিতে মুন্সীগঞ্জ ১ নম্বর আমলী আদালতে আনা হয়। জামিন পাওয়া অপর এক অভিযুক্ত হাজিরা দিতে একই আদালতে আসেন। এ সময় তার পাঞ্জাবির পকেট থেকে সেলফোনটি খোয়া যায়।

তিনি আদালতের হাজতখানার পুলিশের কাছে এ বিষয়ে নালিশ জানান। পুলিশ এ জন্য হাজতি রুবেল ও মহসনিকে দায়ী করে। হাজিরা শেষে আদালতের বারান্দায় পুলিশ সেলফোনটি হাজতি রুবেলের কাছে ফেরত চায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রুবেল সেলফোনটি আছাড় দিয়ে ভেঙে ফেলেন। এ নিয়ে ওই হাজতি এবং পুলিশ কনস্টেবলদের মধ্যে হাতাহাতি ও কিলঘুষি শুরু হয়।

জেলা জজের নাজির মো. মানিক বাংলানিউজকে জানান, এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ হাজতিরা সহকারী জজ সেরেস্তা কক্ষের দুটি জানালার কাচ ভাঙচুর করেন।

জেলা ও দায়রা জজ মঞ্জুরুল বাছিদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এদিকে, হাজতিদের আদালতের হাজতখানায় নেওয়ার পর পুলিশ তাদের বেধড়ক পেটায়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
———————————

মুন্সীগঞ্জে হাজতি-পুলিশ সংঘর্ষ আহত ৪

বৃহস্পতিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ জজকোর্টের বারান্দায় হাজতি পুলিশের হাতহাতি হয়েছে। এই সময় এক পুলিশ কনস্টেবল ও তিন হাজতি আহত হয়েছে। ঘটনার পর হাজতখানার ভেতরে কয়েক হাজতীকে

অমানবিক প্রহার করেছে পুলিশ। পরে জেলা জজ মঞ্জুরম্নল বাছিদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। জেলা জজের নাজির মো. মানিক জানান, এই ঘটনায় নিজ তলার সহকারী জজ আদালতের সেরেসত্মাদাররের কক্ষের দু’টি জানালার কাঁচ ভাংচুর করে বিক্ষুব্ধ হাজতিরা। একটি মোবাইল ফোন চুরি যাওয়া নিয়ে এই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। চুরি যাওয়া মোবাইল ফোনটি হাজতি রম্নবেল আছার দিয়ে ভেঙ্গে ফেলে। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ
———————————

মুন্সীগঞ্জে আদালতের বারান্দায় পুলিশ-হাজতি হাতাহাতি

সাকিল হাসান, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জে আদালতের বারান্দায় আজ দুপুরে পুলিশ ও হাজতির মধ্যে হাতাহাতি-কিলঘুষির ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় ৩ পুলিশ কনস্টেবল আহত ও আদালতের জানালার কাচ ভাঙচুর করা হয়েছে।

আহতরা হচ্ছেন- কনস্টেবল মোতালেব, সারওয়ার ও কাইয়ুম।

প্রকাশ্যে পুলিশ ও হাজতির মধ্যে ওই ঘটনা দেখেছেন আদালতে আসা বিভিন্ন মামলার বাদী ও বিবাদীরা।
দুপুর দেড়টার দিকে মুন্সীগঞ্জ ১ নম্বর আমলী আদালতের বারান্দায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবী মাহবুবুর রহমার তুহিন জানান, আফজাল হোসেন রুবেল, মহসিনসহ ৫৬ জন হাজতিকে দুপুর দেড়টার দিকে হাজিরা দিতে মুন্সীগঞ্জ ১ নম্বর আমলী আদালতে আনা হয়। এ সময় জামিন পাওয়া অপর এক অভিযুক্ত আসামী হাজিরা দিতে একই আদালতে আসেন। এ সময় তার পাঞ্জাবির পকেট থেকে সেলফোনটি খোয়া যায়।

তিনি আদালতের হাজতখানার পুলিশের কাছে এ বিষয়ে জানান। পুলিশ এ জন্য হাজতি রুবেল ও মহসনিকে দায়ী করে। হাজিরা শেষে আদালতের বারান্দায় পুলিশ সেলফোনটি হাজতি রুবেলের কাছে চাইলে রুবেল ক্ষিপ্ত হয়ে সেলফোনটি আছাড় দিয়ে ভেঙে ফেলেন। এ নিয়ে ওই হাজতি এবং পুলিশ কনস্টেবলদের মধ্যে হাতাহাতি ও কিলঘুষি শুরু হয়।

তারপর হাজতিদের আদালতের হাজতখানায় নিয়ে পুলিশ তাদের বেধড়ক পেটায়।

বিডি রিপোর্ট ২৪
———————————

মুন্সীগঞ্জে হাজতি-পুলিশ হাতাহাতি: ৩ কনস্টেবল আহত

মুন্সীগঞ্জের আদালত প্রাঙ্গণে হাজতি ও পুলিশের মধ্যে হাতহাতি-কিলঘুষিতে ৩ কনস্টেবল আহত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ ১ নম্বর আমলী আদালতের বারান্দায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় আদালতের জানালার কাঁচ ভাঙচুর করা হয়। আহত কনস্টেবল মোতালেব, সারওয়ার ও কাইয়ুমকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আসামি আফজাল হোসেন রুবেল, মহসিনসহ ৫ থেকে ৬ জনকে দুপুর দেড়টার দিকে হাজিরা দিতে মুন্সীগঞ্জ ১ নম্বর আমলী আদালতে আনা হয়। একই আদালতে জামিনপ্রাপ্ত অপর এক আসামি হাজিরা দিতে আসেন। এ সময় জামিনে থাকা ওই আসামির পাঞ্জাবীর পকেট থেকে তার ব্যবহারের সেল ফোনটি খোয়া যায়। বিষয়টি কোর্ট হাজতখানার পুলিশের কাছে নালিশ করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ রুবেল ও মহসনিকে দোষী সাব্যস্ত করে। হাজিরা শেষে আদালতের বারান্দায় পুলিশ মোবাইল ফোনটি আসামি রুবেলের কাছে ফেরত চায়। পরে রুবেল মোবাইলটি আছাড় দিয়ে ভেঙে ফেলে। এ নিয়ে ওই হাজতি আসামি ও পুলিশ কনস্টেবলদের মধ্যে হাতাহাতি ও কিলঘুষি শুরু হয়।

জেলা জজ আদালতের নাজির মো. মানিক শীর্ষ নিউজ ডটকমকে জানান, এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ হাজতি আসামিরা সহকারী জজ সেরেস্তার কক্ষের দু’টি জানালার কাঁচ ভাংচুর করে। জেলা ও দায়রা জজ মঞ্জুরুল বাছিদ ঘটনার সরেজমিন তদন্ত করছেন।

শীর্ষ নিউজ
———————————

Leave a Reply