মুন্সীগঞ্জের সড়ক ভবনের জমি বেদখল

সড়ক ও জনপথ বিভাগের নিজস্ব জমি থাকা সত্ত্বেও এখন ভাড়া বাড়িতে অফিস চলছে গাদাগাদি করে। এতে গুরুত্বপূর্ণ এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। শহরে উপকন্ঠ সদর উপজেলার মুক্তারপুরের পঞ্চসার মৌজায় ৩ একর ২১ শতাংশ জমি অধিগ্রহণ করা হয় ৬৭ লাখ টাকায়। ২০০৩ সালের ঘটনা এটি। নিচু এই জমিতে সড়ক বিভাগ আরও ৮৯ লাখ টাকা খরচায় মাটি ভরাট করে জমির দখল নিয়ে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়। কিন্তু রহস্যজনক কারেণ এই ভূমি এখন সড়ক ভবনের পরিবর্তে মাকের্ট নির্মিত হয়েছে। সরকারের মূল্যবান এই জমি রাক্ষায় সড়ক বিভাগের কোন তৎপরতা নেই। এর আগে ৯২ সালে শহরের উপকন্ঠ সদর উপজেলার মুক্তারপুরের পঞ্চসার মৌজায় ৪ একর ৩৬ শতাংশ জমি অধিগ্রহণ করা হয় নিজস্ব অফিসের জন্য।

সেই অনুযায়ী তৎকালীন যোগাযোগমন্ত্রী কর্নেল অলি আহম্মদ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। কিন্তু এই ভূমির ক্ষতিপূরণ ব্যায় ৩৩ লাখ ১৮ হাজার টাকা নির্ধারণ হলেও সড়ক বিভাগ জমা দেওয়া মাত্র ১০ লাখ টাকা। সময়মতো টাকা জমা না দেয়ার কারণে এই হুকুম দখল প্রক্রিয়া বাতিল হয়ে যায়। পরবর্তীতে ২০০৩ সালের দিকে আবার উদ্যোগ নেয় নিজস্ব অফিসের জায়গার জন্য। এক একর ১৫ শতাংশ কম অর্থাৎ ৩ একর ২১ শতাংশ জমি অধিগ্রহণ করা হয় পাশের মৌজায়। সড়ক বিভাগের কেটি সূত্র দাবি করেছে, ক্ষমতাধর অনেক প্রকৌশলীই চায়নি মুন্সিগঞ্জে সড়ক ভবন হোক। ঢাকায় থাকা এবং অফিস ফাঁকি দেয়ার সুযোগ নষ্ট হবে বলেই নানাভাবে এই ভূমি মালিকদরে দিয়ে আদালতে মামলা করিয়েছে। জেলা প্রশাসনের হুকুম দখল বিভাগ জানায়, সড়ক বিভাগরে অধিগ্রহণের সব প্রক্রিয়াই সম্পন্ন। কিন্তু ক্ষতিপূরণের টাকা এখনও ফান্ডে পড়ে আছে। মামলাজনিত কারণে এই টাকা ভূমি মালিকগণকে দেয়া যায়নি। এখন ভূমি মালিকরা সড়ক বিভাগের জায়গা দখল করার পাঁয়তারায় লিপ্ত রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অধিগ্রহণ করা জমির মাত্র ১৫ শতাংশ জমির একজন মালিক মামালায় গেলেও অন্য জমি নিয়ে জটিলতার সদুত্তর পাওয়া যায়নি। এদিকে জমির মূল্য দিন দিন বেড়েই চলেছে, একই সঙ্গে এ জমিতে বেদখল প্রক্রিযায় স্থাপনা ও বাড়ছে। বর্তমান শহরের বোগদাদিয়া ভবনে চড়া ভাড়ায় একটি ফ্লোর নিয়ে গাদাগাদি করে চলছে সড়ক ও জনপথ বিভাগের মুন্সিগঞ্জ অঞ্চলের অফিসটি। এলজিইডি ও গণর্পূত বিভাগের নিজস্ব ভূমিতে সুবিশাল অফিস কোয়ার্টারসহ অন্যান্য সুযোগ থাকলেও সড়ক বিভাগের নেই। তাই এখানকার কর্যক্রমও মুখ থুবড়ে আছে।

উচ্চমান সহকারী আব্দুস সামাদ জানান, অধিগ্রহণকৃত একজন মালিক হাইকোর্টে রিট করার কারণেই এই কার্যক্রম বিঘ্নিত হয়। তবে ১৫ শতাংশ জমির জন্য মামলা হলেও বাকি জমি নিয়ে কেন সমস্যা সে বিষয়ে তিনি স্পষ্ট করতে পারেনি। জমিটি বেদখলের সত্যতা স্বীকার করেন তিনি। জেলা প্রশাসক মো: আজিজুল আলম জানিয়েছেন, সমস্যাটি দীর্ঘদিন আগের। তবে সমাধানের চেষ্টা চলছে।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply