নদীতীরের মানুষের রাত কাটে আতঙ্কে

পদ্মা মেঘনা ও যমুনায় ভয়াবহ ভাঙন
মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে পদ্মা, আড়াইহাজারে মেঘনা, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে যমুনা ও ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে পদ্মায় ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। প্রতিদিনই নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে শত শত একর আবাদি জমি, ঘরবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন স্থাপনা। নদীভাঙনের শিকার লোকজন খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছে। তাদের রাত কাটে আতঙ্কে। বিস্তারিত খবর পাঠিয়েছেন আমাদের প্রতিনিধিরা।

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) থেকে শফিকুল ইসলাম জানান, মুন্সীগঞ্জে পদ্মা নদীতে ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙনকবলিত এলাকার বাসিন্দাদের আহাজারিতে আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত হচ্ছে। ভয়ঙ্কর আতঙ্কে রাত কাটাচ্ছেন তারা। নদী ভাঙনের শিকার অসহায় শ্রীনগর ও লৌহজং পদ্মাপাড়ের বাসিন্দাদের ভাঙনের কবল থেকে রক্ষায় নেয়া হচ্ছে না কোনো উদ্যোগ।

এক দিকে যেমন নদী ভাঙনের তীব্রতা বাড়ছে, অন্যদিকে সিকস্তির শিকার ভুক্তভোগীদের আর্তনাদে পদ্মা তীরের বাতাস ভারি হয়ে উঠছে। সরেজমিন দেখা যায়, দেলোয়ার হোসেনের শোবার ঘরের দুটি খুঁটি নদীর পানিতে দুলছে। আরও ৪টি ঘরের ভিটির চিহ্ন পর্যন্ত নেই। এছাড়া সেরুখা, বাচ্চু খলিফা, নইম মোল্লা, সামেলা বেগম, আমীর মাঝিসহ অন্তত ৩০টি বসতি গত ১৫ দিনে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। পদ্মা সেতুর মূল পয়েন্ট থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিম দিকের তীরলাগঘেঁষা যশুলদিয়া গ্রামের ঐতিহ্যবাহী মীরবাড়ি জামে মসজিদটি পদ্মার করাল গ্রাসে এরই মধ্যে বিলীন হয়ে গেছে। প্রচণ্ড স্রোত আর ঢেউয়ের তোড়ে ভেসে গেছে মীরবাড়ির আরও ৬টি পাকা টিনশেড ঘর। এছাড়া মোশারফ হোসেনের ৪টি ঘর, মঙ্গল মিস্ত্রির ভিটিঘর, মুন্নার ৩টি ঘর, ঠাকুরবাড়ি, মাঝিবাড়ি, হতদরিদ্র নুরুল ইসলামের বাড়ি, করিম সরদার, গোলাম হোসেন, ডালিম গাজী, বিপ্লব ও দিনমজুর এমারত ঢালির বসতবাড়ি গত দুই সপ্তাহের অব্যাহত পদ্মার ভাঙনে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। লৌহজং ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ধাইধা ও টেওটিয়া ইউনিয়ন দুটি গত একযুগ ধরেই পুরোপুরি পদ্মায় বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়া গাওদিয়া, বেজগাঁও দক্ষিণ মেদেনিমণ্ডল ও কোমারভোগ ইউনিয়নের আংশিক গত ৪ বছর ধরে নদীতে ডুবন্ত রয়েছে। এ ব্যাপারে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জাহেদুর রহমান বলেন, দ্রুত পদ্মাশাসিত হলে ডুবন্ত জমি উদ্ধারসহ বহু ফসলি জমি ভাঙন রোধ থেকে রক্ষা পাবে। অন্যথায় অচিরেই পাল্টে যাবে লৌহজংয়ের মানচিত্র। মারাত্মক ঝুঁকির মুখে রয়েছে উপজেলার কুমারভোগ ইউনিয়নের ভাওয়ার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ওই ইউনিয়ন পরিষদের মূল ভবনটি। বিগত সময় ওই দুটি প্রতিষ্ঠানের ভবনগুলো বন্যার্তদের আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার হতো। গত কয়েকদিনের ভারি বর্ষণে নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় আগাম বন্যার পূর্বাভাসে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিষয়টি মারাত্মকভাবে ভাবিয়ে তুলছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার জাহিদুল কবির তুহিন জানান, ঝুঁকিপূর্ণ ওই বিদ্যালয়ের পাশে টিনশেড ঘর বানিয়ে তাতে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বিগত এক দশকে ২০টির অধিক স্কুলকে নদী ভাঙনের কারণে অন্যত্র সরিয়ে পুনঃস্থাপিত হয়েছে। উপজেলার কলমা ইউনিয়নের ভাঙনকবলিত অঞ্চলে অবস্থিত সাবেক মন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা ও জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলির বাড়িও মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এলাকার লোকজন জানান, গত কয়েক দিনের প্রবল ভাঙনে ডহরি বাজার প্রায় পুরোটাই নদীগর্ভে চলে গেছে। কলমা বাজারসহ অন্তত ৫০০ পরিবারের বসতি ভাঙনের হুমকির মুখে রয়েছে। জানা গেছে, পদ্মার তোড়ে গত ৩ বছরের ব্যবধানে প্রায় ৫ হাজার একর ফসলি জমিসহ বহু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও সহস্রাধিক ঘরবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে ঢাকা-দোহার সড়কের ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত কামারগাঁও-শাইনপুকুর সড়কের ৭ কিলোমিটার রাস্তা। অব্যাহত পদ্মার ভয়াবহ ভাঙনে দিন দিন বদলে যাচ্ছে শ্রীনগর ও লৌহজংয়ের ভৌগোলিক চিত্র।

স্থানীয়রা জানান, বর্ষায় পদ্মার ভাঙনের প্রধান কারণ নদী থেকে অপরিকল্পিত অবৈধ বালু উত্তোলন। অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনের ফলে নদীর মাঝখানে চর পড়ে। ফলে স্রোতের গতি তীরের দিকে তেড়ে হেঁকে আসে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, শুকনো মৌসুমে শ্রীনগর উপজেলার দক্ষিণ-পশ্চিম দিক দিয়ে প্রবাহিত পদ্মার ৮ কিলোমিটার এলাকাবিশিষ্ট ভাগ্যকুল ও বাঘড়া ইউনিয়নের ১০/১২টি পয়েন্টে এবং লৌহজং উপজেলার যশুলদিয়া, কান্দিপাড়া, দক্ষিণ মেদেনিমণ্ডল ও মাওয়া ঘাটের আশপাশের তীরাঞ্চলে অন্তত ১৫/১৬টি পয়েন্ট থেকে অনবরত চলত নির্বিচারে বালু ও মাটি কাটার মহোত্সব। লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলার পদ্মা তীরবর্তী স্থান থেকে মাটিদস্যুরাও হাজার হাজার ট্রলি মাটি কেটে অন্যত্র নিয়ে যায়। স্থানীয় বাসিন্দারা আরও জানান, নির্বিচারে অপরিকল্পিতভাবে বালু ও মাটি উত্তোলনের ফলে এসব নজিরবিহীন ঘটনার কারণে প্রায় ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সড়ক ও জনপথ বিভাগের ফুলতলা, বেথুয়া, আলামিন, কবুতরখোলা ও যশুলদিয়া সড়কসহ বিস্তীর্ণ এলাকায় ভূমিধস ও নদী ভাঙনে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে। অপর দিকে হুমকির মুখে পড়েছে ২০/২৫টি গ্রামের হাজার হাজার পরিবার ও জমিসহ তাদের নানা সম্পত্তি।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, বিষয়টি মারাত্মক সেনসেটিভ। কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই জানানো হবে। তবে কলমার ভাঙন সম্পর্কে জানলেও যশুলদিয়া ও কান্দিপাড়ার ভয়াবহ ভাঙনের বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না বলে জানান।

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) থেকে মাসুম বিল্লাহ জানান, নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার বিশনন্দী, কালাপাহাড়িয়া ও খাগকান্দা ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে নদীভাঙন দেখা দিয়েছে। ঘরবাড়ি ভাঙনের ভয়ে মেঘনার তীরবর্তী মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। বর্ষাকাল এলেই এইসব গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বিশনন্দী ইউনিয়নের দয়াকান্দা দক্ষিণপাড়া, খাগকান্দা ইউনিয়নের খাগকান্দা নয়াপাড়া, কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের কালাপাহাড়িয়া, মধ্যারচর, কদমীরচর, ইজারকান্দি, বিবিরকান্দি, পূর্বকান্দি, বদলপুর গ্রামের মানুষের মধ্যে নদীভাঙন আতঙ্ক বিরাজ করছে। এর মধ্যে বিশনন্দী ইউনিয়নের দয়াকান্দা দক্ষিণপাড়া, খাগকান্দা ইউনিয়নের খাগকান্দা নয়াপাড়া, কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের কালাপাহাড়িয়া, কদমীরচর, বদলপুর, মধ্যারচর, বিবিরকান্দি, পূর্বকান্দি গ্রামে বর্ষা হলেই নদীভাঙন দেখা দেয়। এ কয়টি গ্রাম মেঘনাবক্ষে প্রায় বিলীন হয়ে যাওয়ার উপক্রম। দয়াকান্দাবাজারটি সম্পূর্ণই মেঘনাগর্ভে চলে গেছে। ফলে বাজারটি অনেক দূর পর্যন্ত সরে এসেছে। কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের কদমীরচর, বিবিরকান্দি, পূর্বকান্দি গ্রাম এবং বদলপুর গ্রামের লোকজন জানান, নদীর তীরে বসবাস করার কারণে বর্ষা এলেই শুরু হয় আমাদের যন্ত্রণা। গ্রামবাসী আরও জানান, প্রমত্তা মেঘনা প্রতিবছর বাড়ি ও জমি গ্রাস করার ফলে এখন অনেক বাড়িঘরের চিহ্ন পর্যন্ত নেই। সবই মেঘনাবক্ষে বিলীন হয়ে গেছে। মেঘনার ভাঙন সরকারি কোনো উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না। তাই ভাঙনকবলিত কয়েকটি গ্রামের মানুষ নদীর ভাঙন ঠেকাতে চেষ্টা করছেন। আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ছরোয়ার হোসেন জানান, বিষয়টি নিয়ে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা চলছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ নজরুল ইসলাম বাবু জানান, নদীভাঙন রোধে বর্তমান সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। আশা করি অচিরেই এই সমস্যার সমাধান হবে।

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে মো. আসলাম আলী জানান, কয়েকদিনের অবিরাম ভারী বর্ষণে যমুনাভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। উপজেলার যমুনা নদীতীরবর্তী গালা, কৈজুরী ও সোনাতনী ইউনিয়নের পূর্বপাড়ের কমপক্ষে ১১টি গ্রামে তীব্র ভাঙন শুরু হয়েছে।

গত এক সপ্তাহের ভাঙনে সোনাতনী ইউনিয়নের দুইকান্দি আদর্শপাড়ার ৫২টি পরিবারসহ প্রায় দেড়শ’ পরিবার গৃহহীন এবং বিস্তীর্ণ ফসলি জমি যমুনাগর্ভে বিলীন হয়েছে। ভাঙনকবলিত গ্রামগুলো হচ্ছে পাকদীঘলিয়া, হরদিঘলিয়া, কচুয়া, বানতিয়ার, ধিতপুর, দইকান্দি, বড় চানতারা, ছোট চানতারা, দাসুরিয়া, আগবাঙ্গালা ও শিমুলকান্দি। পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এসব গ্রামে ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। ভাঙনে প্রতি মুহূর্তে আতঙ্কে দিন কাটছে এসব গ্রামবাসীর। বারবার যমুনার ভাঙনে বাড়িঘর স্থানান্তর করে সর্বস্ব খুইয়ে অসহায় অনেক পরিবার আশপাশের গ্রামে আশ্রয় নিয়েছে। অব্যাহত ভাঙনে যমুনাপাড়ের সোনাতনী উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ইউনিয়ন পরিষদ, ছোট চানতারা কবরস্থান, বানতিয়ার উত্তরপাড়া এবং ভুমুড়িয়া জামে মসজিদ এবং ছোট চানতারা রেজি. বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় যমুনার ভাঙনে হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান, গ্রাম, জনপদ যমুনার ভাঙনকবলিত জায়গা থেকে কোথাও ৫শ’ গজ, কোথাও ১শ’ গজ দূরে রয়েছে। ভাঙনের ভয়াবহতা দেখে জনগণ বাড়িঘর দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিচ্ছে। যমুনার ভাঙনের শিকার শত শত পরিবার খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছে। অপরদিকে অবিরাম বর্ষণে উপজেলার নিম্নাঞ্চলসহ চরাঞ্চলের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ফলে জাম্বু, গামা ও নেপিয়ার ঘাসসহ তিল, কাউন এবং শাকসবজির ক্ষেত তলিয়ে গছে।

চরভদ্রাসন (ফরিদপুর) থেকে মো. মেজবাহ উদ্দিন জানান, ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের হাজীডাঙ্গী ও সেকেরডাঙ্গী গ্রামের পদ্মার পাড় ঘেঁষে পদ্মার ভাঙন দেখা দিয়েছে। পদ্মা নদীর জোয়াড়ের পানি, প্রবল বর্ষণ ও বৈরী আবহাওয়ায় গত বুধবার ওই এলাকার নদীপাড়ের প্রায় ৫ একর ফসলি জমি ও একটি বসতভিটে বিলীন হয়ে গেছে বলে জানা গেছে। এছাড়া পদ্মা নদীর কোলঘেঁষে ১০টি গ্রামের প্রায় ৫ হাজার পরিবার ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে বলেও খবর পাওয়া গেছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলা পরিষদের মাত্র পৌনে এক কিলোমিটার উত্তর দিকে হাজীডাঙ্গী ও সেকেরডাঙ্গী গ্রামে পদ্মার ভাঙন দেখা দেয়ায় সদর ইউনিয়নসহ অত্র এলাকা পদ্মার হুমকির মধ্যে রয়েছে। গত দু’দিনে সদর ইউনিয়নের হাজীডাঙ্গী, সেকেরডাঙ্গী, বালিয়াডাঙ্গী, ফাজিলখার ডাঙ্গী, এমপিডাঙ্গী, গাজীরটেক ইউনিয়নের নতুনডাঙ্গী ও জয়দেব সরকারের ডাঙ্গী গ্রামের পদ্মার পাড় ঘেঁষে ধান, পাটসহ তিলক্ষেতের প্রায় ৫ একর জমি বিলীন হয়ে গেছে।

Leave a Reply