ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়কে যান চলাচল বন্ধ

গর্ত ও খানাখন্দে ভরা সড়ক
তানভীর হাসান: নারায়ণগঞ্জের পঞ্চবটী থেকে মুন্সিগঞ্জের মুক্তারপুর পর্যন্ত ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়কের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য ছোট-বড় গর্ত ও খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে পড়ে পরপর দুটি মালবোঝাই ট্রাক বিকল হলে গত শুক্রবার রাত থেকে ওই সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

গতকাল শনিবার দুপুর পর্যন্ত ট্রাক দুটি না সরানোয় ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়কে কোনো যানবাহন চলেনি। ফলে সকাল থেকে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

ওই সড়কে চলাচল করা যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকেরা বলেন, বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের জন্য পঞ্চবটী থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত কোনো নর্দমা নির্মাণ করেনি সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর। একসময় বৃষ্টির পানি রাস্তা থেকে গড়িয়ে আশপাশের নিচু জমি জলাশয়ে গিয়ে পড়ত। এখন সেগুলো ভরাট হয়ে বৃষ্টির পানি জমা হচ্ছে রাস্তায়। দুই সপ্তাহ ধরে বৃষ্টির ফলে সড়কের বিভিন্ন স্থানে সৃষ্ট গর্তে পানি জমে আস্তে আস্তে গর্তগুলো বড় হচ্ছে। এতে কিছুক্ষণ পরপর গাড়ি বিকল হয়ে পড়ছে। রিকশা, অটোরিকশা, বেবিট্যাক্সি ও ইজিবাইক প্রায় সময় বড় গর্তে পড়ে উল্টে যাচ্ছে। এ ছাড়া সড়কের পঞ্চবটী থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত অংশের রাস্তা সরু এবং রাস্তার পাশে ফুটপাত নেই। এতে পঞ্চবটীর বিসিক শিল্পনগর ও তার আশপাশে অবস্থিত ৫০০ রপ্তানিমুখী পোশাক শিল্প-কারখানার হাজার হাজার শ্রমিককে প্রতিদিন দুর্ভোগ নিয়ে হেঁটে চলাচল করতে হচ্ছে।
যাত্রীরা বলেন, এক সপ্তাহ ধরে সড়কটি চলাচলের একেবারেই অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। দ্রুত সড়কটি মেরামত করা প্রয়োজন।

নারায়ণগঞ্জ শিল্প ও বণিক সমিতির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ফতুল্লার ভোলাইলে অবস্থিত রপ্তানিমুখী মিনার ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মঞ্জুরুল হক বলেন, এ সড়কের পঞ্চবটী মোড়ে ও বিসিক শিল্পনগরের সামনে গত শুক্রবার রাতে দুটি মালবাহী ট্রাক রাস্তার গর্তে চাকা আটকে বিকল হয়। উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন রেকার ছাড়া ট্রাক দুটি সরানো সম্ভব নয়।

বিকেএমইএর সহসভাপতি ও পঞ্চবটীর বিসিক শিল্পনগরে অবস্থিত এমবি নিট ফ্যাশনের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ হাতেম বলেন, ভাঙা রাস্তার কারণে বিদেশি ক্রেতারাও এখন বিসিক শিল্পনগরে সহজে আসতে চান না। ভাঙা রাস্তা ও যানজটের কারণে কিছু দিন আগে বিসিক শিল্পনগরের ফকির অ্যাপারেলস লিমিটেড কর্তৃপক্ষ ঢাকা থেকে বিদেশি ক্রেতাদের হেলিকপ্টারে কারখানা পরিদর্শনে আনেন।
ব্যবসায়ী নেতা হাতেম বলেন, পঞ্চবটী থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত রাস্তার দু’পাশে অসংখ্য রপ্তানিমুখী শিল্প-কারখানা থাকায় ছোট থেকে ভারী প্রচুর যানবাহন চলাচল করে। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য আনা-নেওয়া করা হয় এ রাস্তা দিয়ে। তাই সওজের উচিত উন্নত প্রযুক্তিতে দ্রুত এ রাস্তাটি সংস্কার ও তা দুই লেনে উন্নীত করা।

যোগাযোগ করা হলে ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ পথে চলাচলকারী দিঘিরপার পরিবহনের মালিক জগলুল হালদার ভুতু বলেন, ‘সড়কের যে অবস্থা গাড়ি প্রতিদিন বিকল হচ্ছে। গাড়ির স্প্রিংসহ বিভিন্ন যন্ত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে, তা মেরামত করতে চলে যাচ্ছে অনেক টাকা। এতে লাভের চেয়ে লোকসান হয়ে যাচ্ছে। তাই আজ (গতকাল) সকাল থেকে গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছি।’

ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ-নারায়ণগঞ্জ বাস, ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সভাপতি মুক্তার হোসেন বলেন, ‘ভাঙা রাস্তার কারণে বাসের ক্ষতি হচ্ছে। যানজটে আটকা পড়ে যাত্রীদের সময় নষ্ট হচ্ছে। মালিকেরা আর্থিক লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছে। এ ব্যাপারে ঐক্য পরিষদ অনেক আন্দোলন করেছে, তবু কর্তৃপক্ষ রাস্তাটি সংস্কার করছে না।’

গতকাল বিকেলে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আইনুল হক বলেন, পঞ্চবটীতে ভাঙা রাস্তায় গর্তে চাকা আটকে বিকল হয়ে পড়া ট্রাক দুটি রেকারের সাহায্যে অপসারণের চেষ্টা করা হচ্ছে।
সওজের ঢাকা অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আরিফুর রহমান বলেন, ‘পঞ্চবটী থেকে মুক্তারপুর সেতু পর্যন্ত সড়কটি আমাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল। কিন্তু আট-নয় মাস আগে তা সেতু বিভাগের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। এখন তারাই দেখাশোনা করছেন।’

এ প্রসঙ্গে সেতু বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী আবদুল ওদুদের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম বলেন, ‘সড়কটির অবস্থা আসলেই করুণ। সড়কটি মেরামতের জন্য সেতু বিভাগকে বলা হয়েছে। দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমি আবারও বলছি।’

Leave a Reply