পদ্মা সেতুর কাজ দেরি করতে অপপ্রচার চালাচ্ছে ভেনচার ইন্টারন্যাশনাল

বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্টকে অর্থমন্ত্রীর চিঠি
আরিফুর রহমান: ভেনচার ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড নামক স্থানীয় একটি নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান প্রস্তাবিত পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ প্রক্রিয়া দেরি করতে বিভিন্ন ধরনের ছলচাতুরি, অপকৌশল ও অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। একইসঙ্গে স্থানীয় কিছু রাজনৈতিক দলও এ অন্যায় কর্মকাণ্ড করে যাচ্ছে। বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণএশীয় অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মিস ইসাবেল এম জিওইরিরোকে পাঠানো এক চিঠিতে মন্ত্রী এ অভিযোগ করেন। বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্টকে পাঠানো চিঠিতে মন্ত্রী বলেন, চীনা রেলওয়ে কনস্ট্রাকশন কোম্পানির (সিআরসিসি) স্থানীয় এ এজেন্ট সকল সমস্যার মূল কারণ। পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ প্রক্রিয়ায় দেরি করতে প্রতিষ্ঠানটি পক্ষপাতদুষ্ট ও অনুচিত কর্মকাণ্ড করে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটির পাশাপাশি কিছু অসৎ মানসিকতাসম্পন্ন ব্যক্তির ষড়যন্ত্র আমাদের নজরে এসেছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, ভেনচার ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটিকে কালো তালিকাভুক্ত করার পাশাপাশি দেশের সকল উন্নয়নমূলক কাজে তাদের ক্ষতিকর কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ করারও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন অর্থমন্ত্রী।

গত ৩০ জুন বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্টকে দেয়া চিঠিতে মন্ত্রী বলেন, সিআরসিসি ইতোমধ্যে ভেনচার ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডকে স্থানীয় এজেন্ট হিসেবে বাদ দিয়েছে। কিন্তু ভেনচার লিমিটেড সিআরসিসির নাম ভেঙ্গে তাদের পক্ষ হয়ে বিভিন্ন ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে। যা ওই প্রতিষ্ঠানের নৈতিকতা পরিপন্থী। অর্থমন্ত্রী বলেন, এসব অপপ্রচারের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজে দেরি হচ্ছে। তবে ভবিষ্যতে যাতে অপপ্রচার করতে না পারে সেজন্য ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

অর্থমন্ত্রী তার চিঠিতে আরো উল্লেখ করেন, পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজে অংশগ্রহণের আগেই নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান চীনা রেলওয়ে কনস্ট্রাকশন কোম্পানিকে অযোগ্য ঘোষণা করে বাংলাদেশের সেতু কর্তৃপক্ষ ও কারিগরি উপদেষ্টা। কিন্তু গত ২৯ মার্চ বিশ্বব্যাংক সিআরসিসি’র দরপত্রে অংশগ্রহণের ব্যবস্থা করতে বাংলাদেশ সরকারকে অনুরোধ জানায়। কিন্তু বাংলাদেশের পক্ষে ওই সুপারিশ রাখা সম্ভব হয়নি। ৯ মে সিআরসিসি তাদের প্রস্তাব প্রত্যাহার করে নেয়। ১৮মে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ (বিবিএ) দরপত্রে অংশগ্রহণকারী ৫টি প্রতিষ্ঠানের নাম অনুমোদনের জন্য ওয়াশিংটনে পাঠায়। কিন্তু অদ্যবধি বিশ্বব্যাংকের কোনো সম্মতি পাওয়া যায়নি। তিনি বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্টকে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজে দ্রুত সম্মতি দেয়ার অনুরোধ জানান।

Leave a Reply