স্বপ্নের পদ্মা সেতু

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল
২৮ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার। শহরের মানিকপুরের বাসার নিচে ইত্তেফাকের রিপোর্টার বাছিরউদ্দিন জুয়েল, ক্যামেরাম্যান শহিদ আহম্মেদ সানী ও জাফর মিয়া ট্যাক্সি থামিয়ে আমার জন্য অপেক্ষা করছে। এর পেছনের ট্যাক্সিতে আরটিভির রিপোর্টার সেতু ইসলাম, মাইটিভির মাঈনুদ্দিন সুমন ও এটিএন নিউজের নূপুর চৌধুরী। তাদের বহরে যুক্ত হলো ডেইলি স্টারের রিপোর্টার ফারহানা। ট্যাক্সিতে চেপে রওনা হলাম মাওয়ার উদ্দেশে। পৌনে ১০টার দিকে পৌঁছলাম মাওয়ায়। পদ্মা সেতু রেস্ট হাউসের আশপাশ সরকারী গাড়িতে ঠাসা। রং-বেরঙের জীপ। দেশের প্রায় সব মিডিয়ার প্রতিনিনিধিদের দেখা গেল এখানে। বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. এনগোজি ওকোনজো ইয়েলা স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ঋণ চুক্তি করতে এখানে আসবেন। কপ্টার থেকে নেমেই সরাসরি রেস্ট হাউসে আসার কথা। কিন্তু ভেতরে ঢোকার পর মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোঃ আজিজুল আলম জানালেন ঢাকার আকাশে প্রচ- মেঘ থাকায় হেলিক্টার উড়তে বিলম্ব করছে। তাই কর্মসূচী কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের এমডি কপ্টার থেকে নেমেই পুনর্বাসন প্রকল্প পরিদর্শন ও ক্ষতিগ্রসত্মদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। আবার রওনা হলাম। প্রায় ৩৮ কিলোমিটার দূরের রাজধানী ঢাকায় বৃষ্টি হলেও এখানে ছিল সোনা রোদ। তবে কিছুটা ঠা-া বাতাস ছিল। অদূরে যে বৃষ্টি হচ্ছিল তা, আকাশে তাকিয়েও বোঝা যাচ্ছিল। সোয়া ১০টার কপ্টার অবতরণ করে বেলা পৌনে ১২টায়।

বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টার লৌহজংয়ের কুমারভোগ ইউনিয়নের পদ্মা সেতু পুনর্বাসন কেন্দ্রের অস্থায়ী হেলিপ্যাডে অবতরণের মুহূর্তে প্রচ- বাতাসে একাকার। আবাসন পলস্নীর অস্থায়ী হেলিপ্যাডে অবতরণের পর বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. এনগোজি ওকোনজো ইয়েলাকে প্রথমে অর্ভ্যথনা জানান স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। পাশের পুনর্বাসনকেন্দ্র পরিদর্শন করে পাশের প্যান্ডেলে গিয়ে বসলেন বিশ্বব্যাংক এমডি। স্বাগত বক্তব্য শেষে ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে মতবিনিময় করে গাড়িতে করে চলে এলেন মাওয়া ৩নং ফেরিঘাটে। সঙ্গে সঙ্গে পুরো মিডিয়া বহর। সবাই উঠলেন রো রো ফেরি ‘ভাষা শহীদ বরকত’-এ। এই ফেরিতে করেই মাঝপদ্মায় গিয়ে এই চুক্তি স্বাক্ষর হয়। বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর এ্যালেন গোল্ডস্টিইন ও বাংলাদেশের পক্ষে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মোশারফ হোসেন ঋণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। বিশ্বব্যংাকের সঙ্গে প্রকল্পের আরও একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। প্রকল্প চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন সেতু বিভাগের সচিব মোশারফ হোসেন ভঁূইয়া। এই সময় বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. এনগোজি ওকোনজো ইয়েলা, অর্থমন্ত্রী আবুল আল আব্দুল মুহিত, পরিকল্পনামন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব) একে খন্দকার, যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, প্রধানমন্ত্রীর অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, জাতীয় সংসদের হুইপ অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এমপি, বিএম মোজাম্মেল হক এমপি, সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এমপি, জামিলুর রেজা চৌধুরীসহ উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বিদেশী অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ক্ষণটি আমাদের জন্য নানা কারণেই স্মরণীয়। বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে এই চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের তিন কোটি মানুষের প্রাণে স্বপ্ন ছুঁয়ে গেছে।

বেলা ১টা থেকে সোয়া ৩টা পর্যনত্ম ফেরিটি পদ্মার বুকে সেতুস্থলে বিচরণ করে। স্বাক্ষর শেষে এক মনোঞ্জ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে বিশ্বব্যাংক এমডি উদ্বেলিত হয়ে নেচে নেচে গানের সঙ্গে নিজেকে বিলিয়ে দেন। এতে গোটা অনুষ্ঠানস্থলে এক বিশেষ পরিবেশ তৈরি হয়। এই সময়টুকু ছিল সকলের জন্যই স্মরণীয়। মাঝে আকাশ ভেঙ্গে ঝুপ করে নামে বৃষ্টি। ফেরির প্যান্ডেলে গড়িয়ে ভিজে একাকার। তবে রক্ষা হয়েছে মঞ্চের অতিথিদের। উপরের ফেরির দ্বিতল অংশ থাকায় বৃষ্টি সেখানে না গেলেও সৃষ্টি হয় ভিন্ন পরিবেশের।

সোয়া ১টায় ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর ও বক্তৃতা পর্ব শেষে দুপুর সোয়া ২টার দিকে প্রেস ব্রিফিংয়ের মুখোমুখি হন বিশ্বব্যাংকের এমডি ড. এনগোজি ওকোনজো ইয়েলা ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, এটি এখন নতুন বিশ্বব্যাংক। অনেক শর্তের বেড়াজালে এখন আর আমরা আবদ্ধ নই। বাসত্মবতার নিরিখে জনগণের স্বার্থে প্রকল্প বাসত্মবায়নে মনোযোগী। তিনি বলেন, করাপসন জিরো টলারেন্স, এটাই বড় শর্ত নয় কী? আরেক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, সেতুতে রেল সুবিধা থাকবে। তবে সেতু চালুর সঙ্গে সঙ্গেই সরাসরি ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের রেল যোগাযোগ চালু করা যাবে না। কারণ আশপাশে এখনও রেললাইন স্থাপন হয়নি। তবে তাড়াতাড়িই এটিও চালু হবে। তিনি প্রশ্নের জবাবে বলেন, শঙ্কা নয়, আমরা দুনর্ীতির বিষয়ে আগে থেকেই সতর্ক, যাতে দুর্নীতি না হয়। রেল বিষয়ক প্রশ্নটি করি আমি। অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে রেললাইন চালু না হওয়ার হাল্কা আভাস পাওয়া যায়। তাই আমার এ প্রশ্ন থেকে বিষয়টি স্পষ্ট হয়। যোগাযোগ ব্যবস্থায় এই সেতু দিয়ে প্রথম থেকেই রেললাইন চালুর গুরম্নত্ব উঠে আসে।

এর পরই পদ্মার তাজা ইলিশ ভেজে গরম গরম তাৎক্ষণিক বিশ্বব্যাংকের এমডিসহ অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়। রো রো ফেরি ‘ভাষা শহীদ বরকত’র তৃতীয় তলা ও দ্বিতীয় তলা এই ইলিশের গান ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়া দেশী মাছসহ নানা খাবারের সম্ভার ছিল এই মধ্যাহ্নভোজে। ড. এনগোজি ওকোনজো ইয়েলা বাঙালী খাবারে মুগ্ধ হন। তিনি এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, এ চুক্তি স্বাক্ষরে অন্য কাউকেও পাঠানো যেত। কিন্তু বাংলাদেশের প্রতি বিশেষ টান ছিল বলেই স্বয়ং আমি এসেছি এবং এসে মুগ্ধ হয়েছি। তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা করেন। নারীদের নেতৃত্ব এবং সফলতায় তিনি সনত্মোষ প্রকাশ করেন। নারীরা সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হয়ে সংসদে যাওয়ার প্রতি গুরম্নত্বারোপ করে স্থানীয় সংসদ সদস্য সরাসরি ভোটে নির্বাচিত নারী হওয়ার বিষয়টি তিনি বার বার উলেস্নখ করেন এবং মতবিনিময় সভা চলাকালে তিনি সাগুফতা ইয়াসমিনের প্রতি আন্তরিকতা প্রকাশ করেন।

এই অনুষ্ঠানে জানানো হয় ১০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই সেতুর ৬ কিলোমিটার থাকবে নদীর ওপর। অবশিষ্ট ৪ কিলোমিটার নদীর দু’পারে থাকবে। ২০১৪ সালের জানুয়ারি মাসের আগেই সেতুটির নির্মাণ কাজ শেষ হবে। এই হবে এশিয়ার বৃহত্তম সেতু। সেতু নির্মাণে ব্যয়ে হবে ২৯০ কোটি ডলার। এর মধ্যে বিশ্বব্যাংক ১২শ’ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (এই ঋণ চুক্তিই স্বাক্ষর হয় এদিন), এডিবি ৬শ’ ১৫ মিলিয়ন ডলার, জাইকা ৪শ’ মিলিয়ন, ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) ১শ’ ৪০ মিলিয়ন ডলার ঋণ সহায়তার প্রতিশ্রম্নতি দিয়েছে। এছাড়া বিশ্বব্যাংক আরও অতিরিক্ত ৩শ’ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ প্রদানের অঙ্গীকার করেছে, যা প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার করা হবে। ২০১৪ সালের জানুয়ারি মাসের আগেই সেতুটির নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

পদ্মায় প্রায় সোয়া ৩ ঘণ্টার ভ্রমণ এবং অনুষ্ঠানের ফাঁকে ফাঁকে এবং শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে মুগ্ধ হন তিনি। গানের সঙ্গে নেচে গেয়ে তাঁর আনন্দ প্রকাশ করেন। শারমিন রমা ও নকুল কুমার বিশ্বাস এই সেতু নিয়ে লেখা বেশ ক’টি গান ছাড়াও জনপ্রিয় কয়েকটি সঙ্গীত পরিবেশন করে সকলকে মুগ্ধ করেন। পরে এমডি কপ্টারে বিকেল সাড়ে ৩টায় ঢাকায় উদ্দেশে উড়ে আসেন। আমরাও রওনা হই ৪২ কিলোমিটার দূরের মুন্সীগঞ্জ শহরে। বাসায় পৌঁছে রিপোর্ট তৈরি। এরই মাঝে কথা হলো নিউজ এডিটর হালিম ভাই ও চীফ রিপোর্টার ওবায়েদ ভাইয়ের সঙ্গে। রিপোর্ট ও ছবি পাঠালাম। আপগ্রেড করলাম। পরদিন প্রধান শিরোনাম হলো এই ছবি আর রিপোর্ট।

Leave a Reply