মুন্সীগঞ্জে মা-ছেলের দগ্ধ লাশ উদ্ধার

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার কাছে চরকিশোরগঞ্জ এলাকায় বুধবার সকালে মা ও ছেলের দগ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে লাশ ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে নিজ বসতঘরের ভেতরে ৭ বছরের ছেলে ফাহিম ও মা ইসমত আরাকে (২৫) অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। নিহত ফাহিম স্থানীয় কিন্ডারগার্টেন স্কুলের প্রথম শ্রেণীর ছাত্র। এদিকে, মা ও ছেলের অগ্নিদগ্ধের ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এ ঘটনার পর ইসমত আরার স্বামী আলী আজগরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। কেউ কেউ বলছেন, স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করার পর আলী আজগর পালিয়েছেন। আবার কেউ কেউ বলছেন, গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মা-ছেলের মৃত্যু হয়েছে।

এবিষয়ে নিহত ইসমত আরার বাবা ইউসুফ গাজী বাংলানিউজকে জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে স্বামীর বসতঘরের ভেতর নিজ শরীরে কেরোসিন ঢেলে নিজে ও ৭ বছরের শিশু সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন ইসমত।

তবে বুধবার সকাল ১১টার দিকে ওই বাড়িতে গিয়ে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি।

এদিকে, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে অগ্নিদগ্ধ ইসমত আরাকে মুন্সীগঞ্জ শহরের মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে আনা হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অগ্নিদগ্ধ শিশু ফাহিমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে অ্যাম্বুলেন্সের ভেতর রাত ১১টার দিকে মারা যায়।

অন্যদিকে, ঘটনাস্থল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে চরকিশোরগঞ্জ এলাকার স্বামীর বাড়ি থেকে নিহত ছেলে ও মায়ের লাশ উদ্ধার করেছে সোনারগাঁও থানা পুলিশ।

সোনারগাঁও থানার ওসি মো. ইউনুস আলী বাংলানিউজকে জানান, মা ও ছেলে নিজ শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। এ ব্যাপারে থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়ের হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
—————————————–

গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মায়ের মৃত্যু, ঝলসে গেছে ছেলের শরীর

মুন্সীগঞ্জের সীমান্তবর্তী চর কিশোরগঞ্জ বাজার সংলগ্ন একটি বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ইসমত আরা নামের এক গৃববধূ ঘটনাস্থলে মৃত্যুবরণ করেছে। এ সময় আগুনে তার দুই বছরের ছেলের মুখমণ্ডলসহ পুরো শরীর ঝলসে গেছে। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। অগ্নিদগ্ধ হয়ে গুরুতর আহত শিশুটিকে প্রথমে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে এবং পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে মুন্সীগঞ্জ হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শম্ভুপুরা ইউনিয়নের চরকিশোরগঞ্জ বাজারের মার্কেট সংলগ্ন আলী আজগরের বাড়িতে তার স্ত্রী ইসমত আরা গ্যাসের চুলায় রাতের ভাত রান্না করছিল। এ সময় তার দুই বছরের সন্তান মায়ের পাশেই খেলা করছিল। হঠাৎ গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হলে গৃহবধূ ইসমত আরা ঘটনাস্থলেই মৃত্যুবরণ করেন এবং তার ২ বছরের শিশু সন্তানের মুখমণ্ডলসহ পুরো শরীর ঝলসে যায়।

শীর্ষ নিউজ
—————————————–

মুন্সীগঞ্জে অগ্নিদগ্ধ মা-ছেলের মৃত্যু: পুলিশের বক্তব্য আত্মহত্যা

মুন্সীগঞ্জের সীমান্তবর্তী চরকিশোরগঞ্জ এলাকায় অগ্নিদগ্ধ মা ইসমত আরা ও ছেলে ফাহিম মৃত্যুবরণ করেছে। আজ বুধবার পুলিশ তাদের লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

এদিকে, অগ্নিদগ্ধ হয়ে মা ও ছেলের মৃত্যুর ঘটনা হত্যা, আত্মহত্যা, না-কি দুর্ঘটনা, এ নিয়ে এলাকায় নানা প্রশ্ন উঠেছে। মঙ্গলবার রাতে নিজ বসতঘরে অগ্নিদগ্ধ হন মা ইসমত আরা (২৫) ও ৫ বছরের ছেলে ফাহিম। কেউ কেউ বলছেন, স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করেছে পাষণ্ড স্বামী আলী আজগর। আবার কেউ বলছেন, গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মা-ছেলের মৃত্যু হয়েছে। তবে জানা গেছে ঘটনার পর থেকে স্বামী আলী আজগরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।ইসমত আরার বাবা ইউসুফ গাজী জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে স্বামীর বসতঘরে নিজ শরীরে কেরোসিন ঢেলে নিজে ও শিশু সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে আত্মহত্যা করেছে ইসমত আরা। রাত সাড়ে ১০টার দিকে অগ্নিদগ্ধ ইসমত আরাকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অগ্নিদগ্ধ শিশু সন্তান ফাহিমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে রাতেই অ্যাম্বুলেন্সে মারা যায়।

অন্যদিকে ঘটনাস্থল মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা সংলগ্ন নারায়ণগঞ্জ জেলার অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় সোনারগাঁও থানা পুলিশ আজ বুধবার চরকিশোরগঞ্জ এলাকার স্বামীর বাড়ি থেকে অগ্নিদ্বগ্ধ মা ও ছেলের লাশ উদ্ধার করে। সোনারগাঁও থানার ওসি মো. ইউনুস আলী জানান, মা-ছেলে নিজ শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ ব্যাপারে থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়েছে মঙ্গলবার রাতে এমন খবর পাওয়া গেলেও তার সত্যতা মেলেনি।

শীর্ষ নিউজ
—————————————–

Leave a Reply