ইছামতি নদীতে বহুতল ভবন

রাসেল মাহমুদ, মুন্সীগঞ্জ থেকে: সিরাজদিখান উপজেলার ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের নিমতলা এলাকায় ইছামতি নদীতে চলছে দখল বাণিজ্য। মাঝ নদীতেই গড়ে তোলা হচ্ছে বহুতল ভবন। নদীর মাঝখানেই পাঁচতলা ফাউন্ডেশনসহ এই ভবনটির নির্মাণকাজ ইতিমধ্যে দ্বিতীয় তলা পর্যন্ত ঢালাইয়ের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। দু’মাস যাবৎ তাড়াহুড়া করে বেশি পরিমাণ রাজমিস্ত্রি নিয়ে প্রকাশ্যে নদীর মাঝে এ ভবনের নির্মাণকাজ চললেও স্থানীয় প্রশাসন নীরব রয়েছে। এলাকার অনেকে অভিযোগ করেন, সিরাজদিখান উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও এসি ল্যান্ডের কাছে একাধিকবার এ ব্যাপারে অভিযোগ করেও কোন সুফল পাওয়া যায়নি।

কেরানীগঞ্জের আবদুল্লাপুর এলাকার বাসিন্দা হোটেল ব্যবসায়ী জিলা উদ্দিন জিলানী এই বিল্ডিংয়ের মালিক বলে জানা গেছে। নিচতলা ও দোতালা মার্কেটের ওপর থেকে আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হচ্ছে বলে জানান এই বিল্ডিংয়ের ঠিকাদার নাসির উদ্দিন। ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের নিমতলা বাসস্টান্ডে জিলানীর বিসমিল্লাহ নামের একটি খাবারের হোটেল রয়েছে। অবৈধভাবে নির্মাণ করা এই বিল্ডিংয়ের ব্যাপারে কেউ প্রতিবাদ করতে গেলে জিলানী তাদের সাফ জানিয়ে দেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে এই বিল্ডিং নির্মাণ করছি। তোমাদের কোন অভিযোগ থাকলে তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারো। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক নিমতলার এক বাসিন্দা বলেন, এ ব্যাপারে এসি ল্যান্ডকে জানাতে গেলে ব্যাপারটি পাত্তা না দিয়ে তিনি বলেন, ব্যক্তি মালিকানার জায়গা হলে তিনি বিল্ডিং করতেই পারেন। তবে তিনি আবারও খোঁজ নেবেন বলে জানিয়েছিলেন।

ইউএনও’র কাছে গেলে তিনি বলেন, ব্যক্তিমালিকানার জায়গায় বিল্ডিং করছেন, এটা নিয়ে আপনাদের এত মাথা ব্যথা কেন? ইউএনও এবং এসি ল্যান্ডকে হাত করেই নদীর মাঝে এই বিল্ডিং নির্মাণ করা হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। প্রমত্তা ইছামতি নদীর মাঝে বিল্ডিং নির্মাণ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দাউদুল ইসলাম কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, এটার আমি কি জানি? এটা দেখার দায়িত্ব আমার নয়। যিনি বিল্ডিং নির্মাণ করছেন তার কাছে জিজ্ঞেস করেন তিনি কিভাবে বিল্ডিং নির্মাণ করছেন। সিরাজদিখান উপজেলা এসি ল্যান্ড মাহবুবা আইরিন বলেন, কিছুদিন আগে আমি ঢাকা থেকে যাওয়া-আসার পথে খালের ওপর বিল্ডিংটি দেখেছি। পরে নায়েবের মাধ্যমে আমি খোঁজ নিয়েছি। নায়েব সাহেব ওই বিল্ডিংটি দেখে এসে আমাকে জানিয়েছেন, ওটা ব্যক্তিমালিকানার জায়গায় নির্মাণ করা হচ্ছে। কিছুক্ষণ চুপ থাকার পর তিনি আবার বলেন, এটা নিয়ে বৈঠকও হয়েছে, ওই এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান এটার সমাধান করবেন বলে দায়িত্ব নিয়েছেন। বিল্ডিংয়ের মালিক জিলা উদ্দিন বলেন, এক সময় এখানকার সব জায়গাই আমাদের ছিল। রাস্তাটিও আমাদের জায়গার ওপর দিয়েই হয়েছে। বিল্ডিংয়ের কিছু অংশ নদী ও হাটের মধ্যে পড়েছে, এগুলো প্রয়োজনে ভেঙে দেবো। প্রতিবেদকের ফোন পেয়ে অবগত হয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম বলেন, কোনভাবেই নদী দখল চলবে না। আমি এখনই ঘটনাস্থলে ইউএনও এবং এসি ল্যান্ডকে পাঠাচ্ছি। কেউ নদী দখল করে বিল্ডিং নির্মাণ করলে সে বিল্ডিং ভেঙে দেয়া হবে। স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ বলেন, নদীতে কেউ অবৈধভাবে বিল্ডিং নির্মাণ করলে সেটা ইউএনও সাহেবকে জানান। কিভাবে নদীর ওপর বিল্ডিং নির্মাণ করছে, ব্যাপারটি আমিও খোঁজ নিয়ে দেখছি।

Leave a Reply