শীতলক্ষ্যায় ডুবে যাওয়া লঞ্চের আরও ৩ যাত্রীর লাশ উদ্ধার

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সীগঞ্জ থেকে : শীতলক্ষ্যায় ডুবে যাওয়া এম এল মদিনা আলো’র আরও হতভাগ্য ৩ যাত্রী ভাসমান লাশ শুক্রবার দুপুরে উদ্ধার হয়েছে। এই নিয়ে উদ্ধারকৃত লাশের সংখ্যা দাঁড়ালো ১২। বন্দর থানার ওসি (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, দুর্ঘটনাস্থল নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার শান্তিনগরের কাছে শীতলক্ষ্যায় ভেসে উঠে নারায়ণগঞ্জের গলাচিপার রতন চন্দ্র ঘোষ (৫৫), চাঁদপুরের মতলবের (উত্তর) লালপুর গ্রামের রাহিম (১) ও অঞ্জাত নারী শিশুর (৮) লাশ। লাশগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

বুধবার সন্ধ্যায় মতলব থেকে নারারয়ণগঞ্জগামী এম এল মদিনা আলো তেলবাহী কার্গোর ধাক্কায় ২শ’ যাত্রী নিয়ে ডুবে যায়।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ
——————————–

মুন্সীগঞ্জে লঞ্চডুবি: আরও ৪টি লাশ উদ্ধার

এমভি মদিনার আলো নামের লঞ্চ ডুবির ঘটনায় শুক্রবার আরও চারটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় নিখোঁজ যাত্রীদের খোঁজে স্বজনদের বুক ফাঁটা কান্নায় শীতলক্ষ্যা-ধলেশ্বরীর পাড়ের আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠে।

শুক্রবার নিখোঁজ যাত্রীদের স্বজনরা ব্যক্তিগত উদ্যোগে মুন্সীগঞ্জের চরমুক্তারপুর এলাকার শাহ সিমেন্ট ফ্যাক্টরি এলাকা থেকে শুরু করে নারায়ণগঞ্জের বন্দরের মদনগঞ্জ লঞ্চঘাট পর্যন্ত এলাকায় উদ্ধার তৎপরতা চালায়। সকাল ১১ টার দিকে মুন্সীগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপুর এলাকার শাহ সিমেন্ট ফ্যাক্টরির কাছে ধলেশ্বরী নদীতে ভাসমান অবস্থায় একটি লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে বিকেল সোয়া তিনটার দিকে এক শিশুসহ তিন’জনের লাশ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। উদ্ধারকৃত চারটি লাশের মধ্যে দু’জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন নারায়ণগঞ্জের গলাচিপার রতন ঘোষ (৫৫) ও চাঁদপুরের উত্তর মতলবের রাহিম (১)। অন্য দু’জনের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, লঞ্চ ডুবির ঘটনায় এ পর্যন্ত ১৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হলো।

এর আগে বুধবার রাত ২ টার দিকে বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তম নিমজ্জিত লঞ্চ ও নয়টি লাশ উদ্ধার করে। এরই মধ্য দিয়ে সরকারিভাবে উদ্ধার কাজের সমাপ্তি করা হয়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
——————————–

শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবি: আরো ৩ লাশ উদ্ধার

মুন্সীগঞ্জের চরমুক্তারপুরে শীতলক্ষ্যা নদীতে লঞ্চ ডুবির ঘটনায় আরো ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এরা হলো- নারায়ণগঞ্জের গলাচিপার রতন চন্দ্র সাহা (৫৫), উত্তর মতলবের রাহিম (১) ও অজ্ঞাত ৮ বছরের মেয়ে। আজ শুক্রবার দুপুরে শীতলক্ষ্যা নদীতে ভেসে ওঠার পর বন্দর থানা পুলিশ লাশগুলো উদ্ধার করে। এর আগে সকালে অজ্ঞাত আরো ১ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছিল। এ নিয়ে লাশের সংখ্যা দাঁড়াল ১৩। এদিকে স্বজনরা নিজস্ব উদ্যোগে শুক্রবারও নিখোঁজ থাকা লাশের সন্ধানে নানা তৎপরতা চালাচ্ছেন।

জানা গেছে, গত বুধবার রাতে চরমুক্তারপুরে শীতলক্ষ্যা নদীতে তেলবাহী জাহাজের ধাক্কায় এম ভি মদিনার আলো নামের যাত্রীবাহী লঞ্চটি ডুবে যায়। ওই রাতেই ৮ জনের ও বৃহস্পতিবার সকালে ১ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার সকালে আরো ১ জন ও দুপুরে ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। স্বজনরা জানায়, এখনো আরো ৫ থেকে ৬ জন নিখোঁজ রয়েছে।

শীর্ষ নিউজ
——————————–

Leave a Reply