বুড়িগঙ্গা থেকে চারটি লাশ উদ্ধার

গত ২৪ ঘণ্টায় বুড়িগঙ্গা থেকে চারটি ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ। এর মধ্যে দুটি হত্যাকাণ্ড এবং দুটি নৌ দুর্ঘটনার শিকার বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদের মধ্যে আলী হোসেন (২৮) নামে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তিনি ভাঙ্গারি ব্যবসায়ী। তার বাড়ি মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের লালবাড়িতে।

পুলিশের ধারণা তাকে মাথায় গুলি করে হত্যার পর নদীতে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা।

শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পাগলা বিএন রোড বরাবর বুড়িগঙ্গা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় আলীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের ভাই আমীর হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বৃহস্পতিবার বাসা থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি আলী।

প্রায় একই সময়ে পোস্তগোলা সেতুর পূর্ব-দক্ষিণ পাশ থেকে অজ্ঞাত এক তরুণের লাশ উদ্ধার করা হয়। তার বয়স আনুমানিক ২০ বছর।

তার মুখের ভেতর কাপড় ঢোকানো এবং শরীরে কোন পোশাক ছিল না। পুলিশের ধারণা তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাম নদীতে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা।

এদিকে রোববার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে আনুমানিক ৩৫ ও ৪০ বছরের দুই অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তির ভাসমান লাশ ধলেশ্বর উচ্চ বিদ্যালয় বরাবর বুড়িগঙ্গা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়।

কেরানীগঞ্জ থানার ওসি আবুল বাশার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ধারণা করা হচ্ছে লাশ দুটি মুন্সীগঞ্জের নৌ দুর্ঘটনায় জোয়ারের পানিতে ভেসে এদিকে এসেছে।

চারটি লাশই ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply