লৌহজং উপজেলায় আগুনে পুড়ে শিশুর মৃত্যু

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় আগুনে পুড়ে মিঠু আক্তার (৭) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। পুড়েছে একটি গরু ও সাতটি বসত ঘর। সোমবার গভীর রাতে উপজেলার ধারারহাট গ্রামে রিপন শেখের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে। লৌহজং থানার ওসি সুব্রত সাহা জানান, মশার কয়েল থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। আগুন ছড়িয়ে পড়লে সাতটি ঘর ও একটি গরু পুড়ে যায়।

“আগুনে সবাই ঘর থেকে বের হয়ে গেলেও রিপনের স্ত্রী সালেহা বেগম ঘরের আলমিরাতে রাখা দেড় হাজার টাকা আনতে আবার ঘরে ঢোকে। তার পিছনে মিঠুও যায়। সালেহা ফিরে আসলেও মিঠু আগুনে পুড়ে যায়।”

মিঠু ধারার হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী।

ওসি জানান, অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৪০ লাখ টাকা।

বিডি নিউজ 24
——————————

মুন্সীগঞ্জে আগুনে পুড়ে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় আগুনে পুড়ে এক স্কুলছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আগুনে ভস্মীভূত হয়েছে ১০টি বসতঘর।

এছাড়া আগুনে একটি গরুসহ বাড়ির আসবাবপত্র ও অন্যান্য মালামাল পুড়ে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্তরা।

মঙ্গলবার ভোর ৪টায় উপজেলার বোলতলী ইউনিয়নের দারারহাট এলাকায় আগুন লাগার ঘটনা ঘটে।

নিহত স্কুলছাত্রী মারিয়া (০৭) দারারহাট গ্রামের রিপন শেখের মেয়ে। সে দারারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল।

শ্রীনগরের ফায়ার সার্ভিসের দমকলকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে দীর্ঘ ২ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে সকাল ৬টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

শ্রীনগর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন মাস্টার দুলাল চন্দ্র বাংলানিউজকে জানান, বৈদ্যুতিক খুঁটির তার ছিঁড়ে কোরিয়া প্রবাসী বাবুল মোল্লার রান্না ঘরে গিয়ে পড়ে। সেখান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়।

পরে আগুন ছড়িয়ে পড়লে রিপনের বসতঘরে ঘুমিয়ে থাকা তার মেয়ে দগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ঘটনাস্থলে সরাসরি ঢুকতে না পারায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে দেরি হয় বলে তিনি দাবি করেন।

আগুনে কোরিয়া প্রবাসী বাবুল মোল্লা, রিপন শেখ, মিলন শেখ ও আমিনুলের ১০টি বসতঘর পুড়ে ছাই হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
——————————

মুন্সীগঞ্জে শিশু জীবন্ত দগ্ধ : ৭টি ঘর পুড়ে ছাই

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার ধারারহাট গ্রামে ভয়াবহ এক অগ্নিকান্ডে ৭টি ঘর পুড়ে ছাই হয়েগেছে। আগুনে জীবন্ত দগ্ধ হয়েছে মিঠু আক্তার (৭)। এছাড়া একটি দুধেল গাভী পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। মশার কয়েল থেকে আগুনের সূত্রপাত। সোমবার গভীর রাতের এই অগ্নিকান্ডে ক্ষতির পরিমান প্রায় ৪০ লাখ টাকা। লৌহজং থানার ওসি সুব্রত সাহা এসব তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ফায়ার সার্ভিস ঘটনা স্থলে রওনা হলেও আগুন থেতে যাওয়ায় মাঝ পথ থেকে আবার ফিরে গেছে। প্রায় ৭/৮ কিলোমিটারের মধ্যে এই অগ্নিকান্ড ঘটলেও শ্রীনগর ফায়ার সার্ভিস কেন

বিলম্বে রওনা হলো তার সঠিক উত্তর দিতে পারেনি তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী ডা. হারুন জানান, প্রথমে রিপন শেখের ঘরের মশার কয়েল থেকে আগুনে সূত্রপাত। এর পর আগুন ১১ হাজার ভেল্টেজের তারে ছড়িয়ে পড়লে মারত্মক আকার ধারণ করে। একে একে ৭টি ঘর পুড়ে যায়। আগুনে কুরিয়া প্রবাসী বাবুল মোল্লার ৫০ ভরি স্বর্ণ ও নগদ ২ লাখ টাকা ছাই হয়েগেছে। এছাড়া আজাহার শেখ, মিলন শেখ, স্বপন শেখ, আমিলীগ শেখের ঘরবাড়ি ভস্মিভূত হয়েছে। এই আগুনে দরিদ্র ৬টি পরিবার এখন সর্বস্ব হারিয়ে দিশেহারা।

আগুনে রিপন শেখের কন্যা ধারার হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী মিঠু আক্তারের মর্মামিত্মক মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসছে। রিপন শেখের গোয়াল ঘরে বেধে রাখা উন্নত জাতের দুধেল গাভিটিও পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

রিপন শেখের স্ত্রী সালেহা বেগম কন্যার শোকে বার বার মুর্ছা যাচ্ছে। আগুনে সবাই ঘর থেকে বের হয়ে গেলেও সালেহা বেগম ঘরের আলমিরাতে রাখা দেড় হাজার টাকা আনতে আবার ঘরে প্রবেশ করেন। তার পিছনে শিশু মিঠুও যায়। মা ফিরে আসলেও শিশু কন্যা আগুনে ছাই হয়ে যায়।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ
——————————

Leave a Reply